kalerkantho


গোয়ায় মুখ্যমন্ত্রী পারিকর মণিপুরেও সরকার গঠনের দাবি বিজেপির

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৪ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



গোয়ায় মুখ্যমন্ত্রী পারিকর মণিপুরেও সরকার গঠনের দাবি বিজেপির

ভারতের গোয়ায় শেষমেশ সরকার গঠন করতে যাচ্ছে বিজেপিই। মুখ্যমন্ত্রী হচ্ছেন রাজ্যের সাবেক মুখ্যমন্ত্রী তথা দেশটির বর্তমান প্রতিরক্ষামন্ত্রী মনোহর পারিকর। সংখ্যায় পিছিয়ে থাকলেও তাঁকে সামনে রেখে সরকার গড়ার চেষ্টায় নেমেছিল বিজেপি। সরকার গড়তে দরকার ২১ বিধায়কের সমর্থন। রবিবার রাজ্যপালের কাছে ২২ জন বিধায়ককে হাজির করে সরকার গড়ার দাবি জানান পারিকর। রাতেই তাঁকে মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে নিয়োগের চিঠি পাঠান রাজ্যপাল মৃদুলা সিন্হা। একক দল হিসেবে সংখ্যায় এগিয়ে থেকেও সরকার হাতছাড়া হওয়ায় কংগ্রেস দল বিধায়ক কেনাবেচার অভিযোগ তুলেছে।

রাজ্যপাল তাঁর চিঠিতে শপথের তারিখ না লিখলেও দলীয় সূত্রের খবর, আগামী মঙ্গলবার শপথ নিতে পারেন পারিকর। ভারতের কয়েকটি গণমাধ্যম জানায়, তিনি পদত্যাগের পর কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি বাড়তি দায়িত্ব হিসেবে প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় সামলাবেন।

এদিকে গত রাত পর্যন্ত মণিপুরে কে সরকার গঠন করবে তার চূড়ান্ত ফয়সালা হয়নি। তবে বিজেপি এ রাজ্যে সরকার গড়তে ম্যাজিক ফিগার রাজ্যপালকে জমা দিয়েছে বলে জানা গেছে।

৬০ সদস্যের বিধানসভায় সরকার গড়তে দরকার ৩১ আসন। কংগ্রেস এককভাবে সবচেয়ে বেশি ২৮টি আসন পেলেও বিজেপি ৩২ বিধায়কের তালিকা জমা দিয়েছে। তবে মণিপুরের কংগ্রেসদলীয় মুখ্যমন্ত্রী ইদোবি সিং এখনো আশা ছাড়েননি। তিনি কংগ্রেসকেই প্রথমে সরকার গঠনের সংখ্যাগরিষ্ঠতা প্রমাণ করার সুযোগ দেওয়ার দাবি তুলেছেন। এ রাজ্যে বিজেপি পেয়েছে ২১টি, তৃণমূল কংগ্রেস ১টি এবং অন্যরা ১০টি।   বিজেপি সরকার গড়ার জন্য নিজেদের জয়ী ২১ সদস্যের পাশাপাশি চার ন্যাশনাল পিপলস পার্টি, চার নাগা পিপলস ফ্রন্ট, ১ এলজেপি, ১ নির্দলীয় সদস্য ও তৃণমূলের টিকিটে দাঁড়িয়ে জেতা রবীন্দ্র সিংয়ের নাম রাজ্যপালের কাছে জমা দিয়েছে।

গোয়া বিধানসভার ৪০টি আসনের মধ্যে বিজেপি পেয়েছে ১৩টি। কংগ্রেস পেয়েছে ১৭টি আসন। একটি আসন পাওয়া শারদ পাওয়ারের দল এনসিপি কংগ্রেসের পাশে রয়েছে। ফলে সরকার গড়তে কংগ্রেসের দরকার ছিল মাত্র তিনটি আসন। তুলনায় লড়াইটি কঠিন হওয়া সত্ত্বেও বিজেপির অন্যদের সমর্থন আদায়ে এগিয়ে যাওয়ায় তাদের শক্তি শেষমেশ দাঁড়ায় ২২ বিধায়কে। মহারাষ্ট্রবাদী গোমন্তক পার্টি, গোয়া ফরোয়ার্ড পার্টি ও নির্দলীয় তিনটি করে আসন তারা নিজেদের পক্ষে ভেড়াতে সক্ষম হয়। সূত্র : আনন্দবাজার, টাইমস অব ইন্ডিয়া।


মন্তব্য