kalerkantho


বাংলাদেশ সীমান্তে বেড়া নির্মাণ

ভারত সরকারকে অর্থছাড়ের নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১০ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



ভারত সরকারকে অর্থছাড়ের নির্দেশ সুপ্রিম কোর্টের

আসাম রাজ্যে অনুপ্রবেশ ঠেকাতে বাংলাদেশ-ভারত সীমান্তে কাঁটাতারের বেড়া নির্মাণের জন্য শিগগির প্রয়োজনীয় অর্থের জোগান দিতে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারকে নির্দেশ দিয়েছেন দেশটির সুপ্রিম কোর্ট। একই সঙ্গে কাঁটাতারের বেড়া বসানো ও সীমান্তে নিরাপত্তা নিশ্চিত কাজের অগ্রগতি প্রতিবেদনও চেয়েছেন সর্বোচ্চ আদালত।

গত বুধবার বিচারপতি রঞ্জন গগৈ ও বিচারপতি আর এফ নরিমানের যৌথ বেঞ্চ এ আদেশ দেন। আদেশে কাঁটাতারের বেড়া নির্মাণের কাজ দ্রুত শেষ করতে তাগিদ দেওয়া হয়েছে। সীমান্তে নিরাপত্তা নিশ্ছিদ্র করার এই পুরো কাজের সার্বিক নজরদারির দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে মধুকর গুপ্ত কমিটিকে।

আদালতে শুনানিতে কেন্দ্রের পক্ষে অংশ নেন অ্যাডিশনাল সলিসিটর জেনারেল (এজিএস) পি এস পাতওয়ালিয়া। তিনি আদালতকে বলেন, এরই মধ্যে কাঁটাতারের বেড়া বসানোর কাজ দিতে টেন্ডার চূড়ান্ত করা হয়েছে। আসাম রাজ্য সরকার সীমান্ত সুরক্ষিত করার জন্য দুই কোটি ৯৬ লাখ রুপি কেন্দ্রের কাছে চেয়েছে। সেই টাকা জোগানের বিষয়ে সিদ্ধান্ত শিগগির নেওয়া হবে।

আদালত তাঁর আদেশে বলেছেন, আসামে বসবাস করা বৈধ নাগরিকদের যত দ্রুত সম্ভব চিহ্নিত করতে ন্যাশনাল রেজিস্ট্রার অব সিটিজেনসের (এনআরসি) হালনাগাদকরণের কাজ শেষ করতে হবে। এ নিয়ে আগামী ১৯ এপ্রিল আদালতে আবার শুনানির দিন ধার্য করা হয়েছে।

কয়েক বছর আগে এক নির্দেশনায় সুপ্রিম কোর্ট জানিয়েছিলেন, ১৯৭১ সালের ২৪ মার্চের আগে আসামে আসা কোনো বাংলাদেশি যদি ভারতে বসবাস করার বৈধ কাগজপত্র দেখাতে পারেন, তাহলে তাঁর নাম এনআরসির তালিকাভুক্ত করা যেতে পারে। সেই নির্দেশনার কথা উল্লেখ করে আবারও আদালত ১৯৭১ সালের ২৫ মার্চের পর যারা বাংলাদেশ থেকে ভারতে ঢুকেছে তাদের ফেরত পাঠানোর তাগাদা দিয়েছেন।

২০১২ ও ২০১৪ সালে আসাম রাজ্যে জাতিগত সহিংসতার পর অবৈধভাবে বাংলাদেশিদের বসবাসের বিষয়টি নিয়ে সুপ্রিম কোর্টে যায় আসাম সম্মিলিতা সংঘ, আসাম পাবলিক ওয়ার্কস ও অল আসাম অহম অ্যাসোসিয়েশন। সেই মামলার পরিপ্রেক্ষিতেই বুধবার আদেশ দেন আদালত। সূত্র : দ্য হিন্দু, ইন্ডিয়ান ডিফেন্স নিউজ, এবেলা।


মন্তব্য