kalerkantho


টঙ্গীতে প্রিজন ভ্যানে হামলা

কামাল পাঁচ দিনের রিমান্ডে

নিজস্ব প্রতিবেদক, গাজীপুর   

৮ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



কামাল পাঁচ দিনের রিমান্ডে

কামাল

গাজীপুরের টঙ্গীতে প্রিজন ভ্যানে হামলার ঘটনায় গ্রেপ্তার মোস্তফা কামালের পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত। আটকের পর সোমবার গভীর রাতে কামালের বিরুদ্ধে টঙ্গী থানায় সন্ত্রাসবিরোধী আইনে মামলা করে পুলিশ।

এ মামলায় তাকে গ্রেপ্তার দেখানো হয়েছে।

গতকাল মঙ্গলবার বিকেলে পুলিশ কামালকে আদালতে হাজির করে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ১০ দিনের হেফাজতে নেওয়ার আবেদন করে। গাজীপুরের কোর্ট ইন্সপেক্টর রবিউল ইসলাম কালের কণ্ঠকে জানান, শুনানি শেষে গাজীপুরের জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট-৪-এর বিচারক মাহবুবা আক্তার পাঁচ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।  

কামালের বিরুদ্ধে মামলার বাদী হয়েছেন টঙ্গী থানার এসআই অজয় কুমার চক্রবর্তী। এজাহারে বাদী উল্লেখ করেন, কামাল সাত-আটজন সহযোগীকে নিয়ে বোমা হামলার মাধ্যমে আতঙ্ক সৃষ্টি ও পুলিশ হত্যা করে ফাঁসির দণ্ডপ্রাপ্ত জঙ্গি মুফতি হান্নানসহ সহযোগীদের ছিনতাইয়ের পরিকল্পনা করেছিল। আটকের পর তার ব্যাগ তল্লাশি করে আগ্নেয়াস্ত্র, ১৩টি গুলি, বোমা ও বোমা তৈরির সরঞ্জাম, দুটি চাপাতি, প্রায় আট হাজার টাকা পাওয়া গেছে। গুলশান হামলায় ব্যবহৃত বোমা ও গ্রেনেডের সঙ্গে কামালের কাছ থেকে উদ্ধার হওয়া বোমা ও হ্যান্ড গ্রেনেডের মিল রয়েছে। গতকাল মামলা তদন্তের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে জেলা গোয়েন্দা পুলিশকে (ডিবি)।

পুলিশ কর্মকর্তারা বলছেন, মোস্তফা কামাল (২২) প্রশিক্ষিত জঙ্গি বলে ধারণা করছেন তাঁরা।

১৯ দিন আগে সে গাজীপুরে এসে ভোগড়া মধ্যপাড়ার ব্যবসায়ী শফিকুলের বাসায় ভাড়াটে হিসেবে উঠেছিল।

ঘটনার পর ময়মনসিংহ গোয়েন্দা পুলিশ কামালের বাবা মোফাজ্জল হোসেন, মা আছিয়া খাতুন, বড় ভাই আব্দুল মোতালেব ও শরিফুল ইসলামকে আটক করলেও পরে ছেড়ে দিয়েছে।

টঙ্গী থানার ওসি ফিরোজ তালুকদার জানান, সোমবার আটকের পর কামাল জানিয়েছিল সে নরসিংদীর মাধবদীর শেখেরচরের জামিয়া ইমদাদিয়া মাদরাসার হেদায়েম নাউ জান্নাতের ছাত্র। প্রিজন ভ্যানে হামলার জন্য এক ব্যক্তি তাকে ১০ হাজার টাকা দিয়েছিল। ওই ব্যক্তিকে সে চেনে না। তবে পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে, চার বছর আগে ময়মনসিংহের তারাকান্দা বড় মসজিদ মাদরাসা থেকে কোরআনে হেফজ সম্পন্ন করে সে নরসিংদী শেখেরচরের ওই মাদরাসায় পড়তে যায়। গত ১০ ফেব্রুয়ারি মাদরাসা থেকে ছুটি নিয়ে বাড়ি এসেছিল। মাদরাসায় যাওয়ার কথা বলে দেড় হাজার টাকা নিয়ে যায়। এর বাইরে পরিবারের সদস্যরা আর কিছু জানাতে পারেনি।

কামাল যে বাড়িতে ভাড়া ছিল গতকাল দুপুরে সেখানে গেলে বাড়ির মালিকের স্ত্রী খাদিজা বেগম কালের কণ্ঠকে জানান, ওই যুবক তাকে জানিয়েছিল, চাকরির খোঁজে সে গাজীপুরে এসেছে। প্রথমে আমরা ভাড়া দিতে চাইনি। অনুনয়-বিনয়ের পর ১৫ দিনের মধ্যে ভোটার আইডি কার্ড দেওয়ার শর্তে তাকে মাসে ১৫০০ টাকা ভাড়ায় থাকতে দিই। ১৫ ফেব্রুয়ারি ঘরে উঠলেও সে তিন-চার রাতের বেশি থাকেনি। তোশক, বালিশ ও জামাকাপড় ছাড়া তার সঙ্গে কোনো মালপত্র ছিল না। একপর্যায়ে সন্দেহ হওয়ায় আমরা তাকে ঘর ছেড়ে দিতে বলি। রবিবার দুপুরে সে ঘরের চাবি দিয়ে যায়। দু-তিন দিনের মধ্যে এসে মালপত্র নিয়ে যাবে বলে জানিয়ে যায়। পরে সোমবার রাত আড়াইটার দিকে ডিবি পুলিশ ও র্যাব তাকে নিয়ে বাড়িতে আসে। তারা ঘর তল্লাশি করে চলে যায়।  

পুলিশ ও কারাগার সূত্র জানায়, ককটেল হামলার শিকার ওই প্রিজন ভ্যানে ১৯ দুর্ধর্ষ জঙ্গি ছিল। ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলায় সোমবার ঢাকার দ্রুত বিচার ট্রাইব্যুনাল-১ আদালতে হাজিরা শেষে তাদের কাশিমপুর কারাগারে ফিরিয়ে নেওয়া হচ্ছিল।  

গাজীপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সোলায়মান জানান, অন্য জঙ্গি হামলার সঙ্গে টঙ্গীতে প্রিজন ভ্যান হামলার সাদৃশ্য রয়েছে। এসব বিষয়ে কামালকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করা হবে।


মন্তব্য