kalerkantho

বঙ্গবন্ধুর ভাষণ

থ্রিডিতে ‘পিতা’

নওশাদ জামিল   

৭ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



থ্রিডিতে ‘পিতা’

বসুন্ধরা স্টার সিনেপ্লেক্সে বঙ্গবন্ধুর ত্রিমাত্রিক ভিডিও ‘পিতা’র মোড়ক উন্মোচন অনুষ্ঠানে অতিথিরা। ছবি : কালের কণ্ঠ

১৯৭১ সালের ৭ মার্চ। ঘড়িতে বিকেল ৩টা ২০ মিনিট। দৃপ্ত পায়ে মঞ্চে উঠলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। পরনে সাদা পাঞ্জাবি, কালো রঙের মুজিব কোট। খানিকক্ষণ পর মাইকের সামনে দাঁড়ালেন জাতির জনক, চারদিকে তাকালেন। চারপাশে মানুষ আর মানুষ। রেসকোর্সের জনসমুদ্র থেকে ঢেউয়ের মতো ক্ষণে ক্ষণে উঠছিল স্লোগান। লাখো জনতার উদ্দেশে ভালোবেসে আবেগভরা সম্বোধন করে শুরুতেই বললেন, ‘ভাইয়েরা আমার। ’ সঙ্গে সঙ্গে থেমে গেল সব শব্দ, চারদিকে পিনপতন নীরবতা। তারপর বঙ্গবন্ধু শোনালেন তাঁর সেই অমর বাণী। জনসমুদ্রে দাঁড়িয়ে ঘোষণা করলেন, ‘এবারের সংগ্রাম আমাদের মুক্তির সংগ্রাম, এবারের সংগ্রাম স্বাধীনতার সংগ্রাম।

জাতির পিতার বজ্রকণ্ঠের সেই সাতই মার্চের ভাষণ উদ্দীপ্ত করেছিল, অনুপ্রাণিত করেছিল বাঙালি জাতিকে। সেদিন জাতি স্বাধীন বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠার দিকনির্দেশনা পেয়েছিল, পেয়েছিল সংগ্রামের বিপুল প্রেরণা। নতুন প্রজন্মের কাছে এখন সেই সংগ্রামের কথা, অনুপ্রেরণার কথা ছড়িয়ে দেওয়ার সময়। প্রযুক্তিপ্রিয় নতুন প্রজন্মের কাছে বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক সাতই মার্চের ভাষণের মূল ভিডিওটি এবার থ্রিডি ফরম্যাটে রূপান্তর করা হলো। তৈরি করা হলো থ্রিডি ভিডিও চিত্র ‘পিতা’।

গতকাল সোমবার বিকেলে বসুন্ধরা সিটি শপিং মলের স্টার সিনেপ্লেক্সে এই ভিডিও চিত্রের উদ্বোধনী প্রদর্শনী হয়। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, তথ্য ও যোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহেমদ পলক, চ্যানেল আইয়ের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর, অভিনেতা ও নির্মাতা আফজাল হোসেন প্রমুখ।

অনুষ্ঠানে আয়োজকরা জানান, আধুনিক প্রযুক্তির মাধ্যমে থ্রিডি ভিডিও চিত্রটি সারা দেশের সব শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে দেখানোর উদ্যোগ নেওয়া হবে। থ্রিডি ভিডিও চিত্র ‘পিতা’ তৈরিতে মুখ্য ভূমিকা রেখেছেন কাজী জসিমুল ইসলাম বাপ্পি। তিনি বলেন, ‘আজকের প্রজন্ম থ্রিডি চলচ্চিত্র দেখে অভ্যস্ত। ১৯৭১ সালের ৭ মার্চ রেসকোর্স ময়দানে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবু?র রহমানের সেই ভাষণের সাদামাটা ভিডিও কি তাদের কাছে আদৌ পৌঁছতে পেরেছে? এটা সম্ভব নয়। আজকের ছেলেমেয়েদের কাছে বঙ্গবন্ধু আর তাঁর ভাষ?ণকে নিয়ে যেতে হবে। এ ক্ষেত্রে থ্রিডি প্রযুক্তির কোনো বিকল্প নেই। আর সে উদ্দেশ্য নিয়েই প্রথমবারের মতো তৈরি করা হয়েছে ঐতিহাসিক সাতই মার্চের ভাষণের পূর্ণাঙ্গ থ্রিডি ভিডিও চিত্র। ’

কাজী জসিমুল ইসলাম বাপ্পি আরো জানান, সম্পূর্ণ নিজস্ব অর্থায়নে ‘পিতা’ তৈরি করা হয়েছে। এ কাজে তাঁর সময় লেগেছে পাঁচ মাস। বাপ্পি বলেন, “আমি ঐতিহাসিক ভাষণটিকে থ্রিডি প্রযুক্তিতে রূপান্তরের উদ্যোগ নিই ১৭ মাস আগে। শুরুতে কয়েকজন বন্ধুর কাছ থেকে পরামর্শ পেয়েছি। এরপর আমি হলিউডের ‘অ্যাভাটার’ ছবিটিকে যাঁরা ত্রিমাত্রিক প্রযুক্তিতে রূপান্তর করেছেন, তাঁদের সঙ্গে যোগাযোগ করি। বলিউডের ‘মুঘল-ই-আজম’ ছবিটির রঙিন সংস্করণ যাঁরা করেছেন, তাঁদের সঙ্গেও আলোচনা করেছি। তারপর মুম্বাইয়ে গিয়ে বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক সাতই মার্চের ভাষণ থ্রিডিতে রূপান্তরের কাজ করেছি। ”

পরবর্তী সময়ে এটির কারিগরি দিক উন্নয়নে যুক্ত হয় চ্যানেল আই ও মাত্রা। এ ছাড়া স্বদেশ ট্যাব, ওকে ওয়ার্ল্ড, ওকে মোবাইল এ কাজে সহযোগিতা দিয়েছে। সবার উদ্যোগেই আধুনিক থ্রিডি প্রযুক্তিতে রূপান্তর করা হলো বঙ্গবন্ধুর সাতই মার্চের ভাষণ।

অনুষ্ঠানে আফজাল হোসেন বলেন, ‘আমরা চাই, নতুন প্রজন্ম সাতই মার্চের ভাষণ সম্পর্কে জানুক। তারা আগ্রহ নিয়ে পুরো ভাষণটি দেখুক। ঐতিহাসিক এ ভাষণ হয়তো প্রত্যেক বাংলাদেশি শুনেছে, কিন্তু নতুন প্রজন্মের আগ্রহের জায়গাটি সৃষ্টিতে তাদের প্রিয় থ্রিডি ভিজ্যুয়াল মাধ্যমটিকে ব্যবহার করা হয়েছে। ’

দেশের চার কোটি ছাত্রছাত্রীর কাছে থ্রিডি ভিডিও চিত্র ‘পিতা’ নিয়ে যেতে চান কাজী জসিমুল ইসলাম বাপ্পি। তিনি বলেন, ‘সরকারের সহযোগিতা পেলে আমরা বাসে থ্রিডি প্রযুক্তির হল তৈরি করব। এই বাসগুলো দেশের বিভিন্ন স্কুলে যাবে, ছাত্রছাত্রীদের ভিডিও চিত্রটি দেখানো হবে। ’

প্রদর্শনীর আগে সংক্ষিপ্ত অনুষ্ঠানে বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ, তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু, তথ্য ও যোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহেমদ পলক জানান, থ্রিডি প্রযুক্তির এই ভিডিও চিত্রের প্রসার ও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে দেখানোর জন্য সরকার সব ধরনের সহযোগিতা করবে।

আলোচনা পর্ব শেষে দেখানো হয় ভিডিও চিত্রটি। চোখে বিশেষ চশমা পরে প্রেক্ষাগৃহে আমন্ত্রিত অতিথি ও দর্শনার্থীরা দেখেন সেটি। থ্রিডি প্রযুক্তির মাধ্যমে গোটা ভাষণ ও সেদিনের জনসভাটিকে  জীবন্ত করে তুলে ধরা হয়েছে। দেখতে দেখতে দর্শকদের মনে হবে, তারাও সেই ঐতিহাসিক জনসভায় উপস্থিত। সেই রেসকোর্স ময়দান, লাখো মানুষের স্লোগান, বঙ্গবন্ধুর বজ্রকণ্ঠের ভাষণ, ‘...সাত কোটি মানুষকে দাবায়া রাখতে পারবা না...তোমাদের যা কিছু আছে, তাই নিয়ে প্রস্তুত থাকো...। ’


মন্তব্য