kalerkantho


সরকারকে হাইকোর্টের রুল

দ্বিতীয় ধাপে গ্যাসের দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত স্থগিত

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০



দ্বিতীয় ধাপে গ্যাসের দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত স্থগিত

আগামী ১ জুন থেকে কার্যকর হতে যাওয়া দ্বিতীয় ধাপে গ্যাসের দাম বাড়ানোর সরকারি সিদ্ধান্তের ওপর ছয় মাসের স্থগিতাদেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে দুই দফায় দাম বাড়িয়ে বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের জারি করা গণবিজ্ঞপ্তি কেন অবৈধ ও বাতিল ঘোষণা করা হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল জারি করা হয়েছে।

বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের চেয়ারম্যান ও সচিবসহ সংশ্লিষ্টদের চার সপ্তাহের মধ্যে এর জবাব দিতে বলা হয়েছে।

কনজ্যুমার অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশের (ক্যাব) পক্ষে প্রকৌশলী মোবাশ্বের হোসেনের করা রিট আবেদনের ওপর প্রাথমিক শুনানি শেষে বিচারপতি মইনুল ইসলাম চৌধুরী ও বিচারপতি জে বি এম হাসানের হাইকোর্ট বেঞ্চ গতকাল মঙ্গলবার এ আদেশ দেন। আদালতে রিট আবেদনকারীর পক্ষে আইনজীবী ছিলেন অ্যাডভোকেট সাইফুল আলম। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল মোতাহার হোসেন সাজু।

গত ২৩ ফেব্রুয়ারি এনার্জি রেগুলেটরি কমিশনের পক্ষ থেকে দুই ধাপে গ্যাসের দাম বাড়িয়ে বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়। আটটি গ্রাহক শ্রেণিতে দুই ধাপে দাম বাড়ানো হয়। দাম বেড়েছে গড়ে ২২.৭৩ শতাংশ। প্রথম ধাপে আজ ১ মার্চ থেকে কার্যকর হওয়া আবাসিক খাতে দুই চুলার জন্য ৮০০ টাকা এবং এক চুলার জন্য ৭৫০ টাকা বিল নির্ধারণ করা হয়েছে। দ্বিতীয় ধাপে ১ জুন থেকে দুই চুলার জন্য ৯৫০ টাকা এবং এক চুলার জন্য ৯০০ টাকা দিতে হবে।

এক চুলায় ৫০ শতাংশ ও দুই চুলায় ৪৬.১৫ শতাংশ দাম বাড়ানো হয়েছে। এ ছাড়া প্রথম দফায় গৃহস্থালিতে মিটারভিত্তিক গ্যাসের বিলপ্রতি ঘনমিটার ৭ টাকা থেকে বাড়িয়ে ৯ টাকা ১০ পয়সা করা হয়েছে। দ্বিতীয় দফায় এটি বেড়ে হবে ১১ টাকা ২০ পয়সা।

গাড়িতে জ্বালানি হিসেবে ব্যবহৃত সিএনজির দাম প্রতি ঘনমিটার ৩৫ টাকা থেকে বাড়িয়ে প্রথম ধাপে ৩৮ এবং দ্বিতীয় ধাপে ৪০ টাকা করা হয়েছে। ক্যাপটিভ পাওয়ারে প্রথম দফায় প্রতি ঘনমিটার গ্যাসের দাম ৮ দশমিক ৩৬ টাকা থেকে ৮ দশমিক ৯৮ টাকা এবং দ্বিতীয় দফায় ৯ টাকা ৬২ পয়সা করা হয়েছে। শিল্পে বর্তমানে প্রতি ঘনমিটার গ্যাসের দাম ৬ দশমিক ৭৪ টাকা হলেও মার্চ থেকে ৭ টাকা ৪২ পয়সা এবং জুন থেকে ৭ টাকা ৭৬ পয়সা পরিশোধ করতে হবে। চা বাগানে গ্যাসের দাম ৬ দশমিক ৪৫ টাকা থেকে দুই দফায় বেড়ে যথাক্রমে ৬ টাকা ৯৩ পয়সা ও ৭ টাকা ২৪ পয়সা হবে। বাণিজ্যিক খাতে প্রতি ঘনমিটার গ্যাসের দাম ১১ দশমিক ৩৬ টাকা থেকে বেড়ে প্রথম দফায় ১৪ টাকা ২০ পয়সা ও ১৭ টাকা ৪ পয়সা হয়েছে। বিইআরসি আইন, ২০০৩-এর ধারা ২২(খ) ও ৩৪-এর প্রদত্ত ক্ষমতাবলে এই মূল্য পুনর্নির্ধারণ করা হয়েছে।

অ্যাডভোকেট সাইফুল আলম বলেন, বাংলাদেশ এনার্জি রেগুলেটরি কমিশন আইন-২০০৪ অনুযায়ী বছরে একবারের বেশি গ্যাসের দাম বাড়ানোর সুযোগ নেই। অথচ একবারেই দুই ধাপে দাম বাড়ানো হয়েছে। তা ছাড়া গণশুনানির মাধ্যমে ৯০ দিন পর দাম বাড়ানোর কথা। এ বিষয়ে গণশুনানি হয়েছিল গতবছর ১৮ আগস্ট। আর দাম বাড়ানো হয়েছে ২৩ ফেব্রুয়ারি। আইন লঙ্ঘন করে দাম বাড়ানো হয়েছে।

শুনানির একপর্যায়ে আদালত বলেন, বর্তমানে গৃহস্থালিতে গ্যাসের মূল্য কত? জবাবে অ্যাডভোকেট সাইফুল বলেন, সিঙ্গেল বার্নারের ক্ষেত্রে ৬০০ এবং ডাবল বার্নারে ৬৫০ টাকা। আদালত বলেন, গ্যাস ব্যবহার করবেন টাকা দেবেন না, এটা কি হয়?

শুনানির একপর্যায়ে রাষ্ট্রপক্ষের বক্তব্য জানতে চান আদালত। জবাবে ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল  মোতাহার হোসেন সাজু বলেন, সরকারের কোনো নির্দেশনা পাইনি। তবে আইনে বছরে একবার দাম বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নেওয়ার কথা উল্লেখ রয়েছে। এরপর আদালত আদেশ দেন।


মন্তব্য