kalerkantho


গরুর মাংসে সাত থাবা

সংকট সমাধানের পথ খুঁজছেন সংশ্লিষ্টরা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



সংকট সমাধানের পথ খুঁজছেন সংশ্লিষ্টরা

রাজধানীর বাজারে গরুর মাংসের মূল্য বৃদ্ধি এবং ধর্মঘটের নেপথ্যের কারণ নিয়ে কালের কণ্ঠে সংবাদ প্রকাশের পর সংশ্লিষ্ট মহলে ব্যাপক তোলপাড় শুরু হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার ঢাকার বিভিন্ন এলাকায় কালের কণ্ঠ’র চাহিদা বেড়ে যায়।

গাবতলী ও মিরপুর এলাকায় কালের কণ্ঠ’র প্রতিবেদনের ফটোকপিও সরবরাহ করতে দেখা গেছে।

গাবতলীর হাটে ইজারাদার-হুন্ডি সিন্ডিকেটের তোপে পড়েছে মাংস ব্যবসায়ীরা। সেখানে মাংস ব্যবসায়ীদের সংগঠনের কার্যালয়ে তালা ঝুলিয়ে দিয়েছে ওই সিন্ডিকেট। পশুর হাট ও মাংসের বাজারে স্থিতিশীলতা আনতে উদ্যোগ নিয়েছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি)।

বাংলাদেশ মাংস ব্যবসায়ী সমিতির মহাসচিব রবিউল আলম বলেন, কালের কণ্ঠ’র খবরে ব্যাপক তোলপাড় শুরু হয়েছে। অনেক বিষয় ফাঁস হয়েছে খবরে। সারা ঢাকা শহরে পত্রিকা নিয়ে কাড়াকাড়ি। মিরপুরে সিন্ডিকেটের লোকজন পেপার গায়েব করেছে। পরে ফটোকপি বিক্রি হয়েছে।

তিনি আরো বলেন, ‘হুন্ডি ও ইজারাদার সিন্ডিকেট গাবতলীতে আমাদের অফিসে তালা ঝুলিয়ে দিয়েছে। সাহস করে সত্য বলায় অনেকের ওপর চাপ সৃষ্টি করা হচ্ছে। ’

ঢাকা (গাবতলী) গবাদি পশু ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক আমজাদ হোসেন বলেন, ‘প্রভাবশালী সিন্ডিকেটের ভয়ে কেউ সত্য কথা বলতে সাহস পায় না। কালের কণ্ঠ সত্য বলেছে। তদন্ত হলে সব কিছু বের হয়ে আসবে। ’

সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা জানান, এক মাস পর গাবতলী হাটের ইজারার মেয়াদ শেষ হচ্ছে। আগামী বছরের জন্য ইজারা দেওয়ার ক্ষেত্রে পশুর খাজনা বাড়ানোর প্রক্রিয়া চলছে। একই সঙ্গে ব্যবসায়ীদের বিরোধ বা কোনো সমস্যার কারণে যেন মাংসের দাম না বাড়ে সে বিষয়ে পর্যালোচনা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

ডিএনসিসির প্রধান সম্পত্তি কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম বলেন, ‘বুধবারও আমরা একটি বৈঠক করেছি। হাটে মাংস ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে খাজনা কম রাখা হয় যেন মানুষ মাংস কম মূল্যে কিনতে পারে। তাহলে কী হচ্ছে? হাটে কেউ বেশি খাজনা রাখতে পারবে না। আবার মাংস ব্যবসায়ী হয়ে কম খাজনায় গরু কিনে বাইরে বিক্রেতাদের কাছে আস্ত গরু বেচাও অন্যায়। ফলে সব বিষয়ই মাথায় রেখে ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ’

জানতে চাইলে আমিনুল ইসলাম আরো বলেন, ‘খাজনার বিষয়টি ক্রেতা পর্যায়ে নেওয়া যায় কি না তা আমরা ভাবছি। এ জন্য আগে প্রকৃত মাংস ব্যবসায়ীদের শনাক্ত করতে হবে। এ কাজ চলছে। গাবতলী হাটে মোবাইল কোর্ট চালানোরও সিদ্ধান্ত হয়েছে। ’


মন্তব্য