kalerkantho


মানবিক হওয়ার সাধনায় সিলেটে শুরু সংস্কৃতি উৎসব

সিলেট অফিস   

২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



মানবিক হওয়ার সাধনায় সিলেটে শুরু সংস্কৃতি উৎসব

সিলেটে বেঙ্গল উৎসবের উদ্বোধন করেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। ছবি : কালের কণ্ঠ

শাহজালাল ব্রিজ হয়ে সুরমা নদী পার হয়ে নগরে ঢুকেই হাতের বাঁয়ে আবুল মাল আবদুল মুহিত ক্রীড়া কমপ্লেক্স। সাঁঝের আলো মিলিয়ে গিয়ে গতকাল আঁধার নামল সেখানে। হাছন রাজা মঞ্চের জমকালো আলো একঝটকায় সেই আঁধারকে যেন সরিয়ে দিল। সিলেটের ঐতিহ্যবাহী মণিপুরি নৃত্যের ঝংকার মুহূর্তে প্রাণ ছড়িয়ে দিল পাশের হাওরজুড়ে।

খ্যাতিমান নৃত্যশিল্পী ওয়ার্দা রিহাব ও তাঁর নাচের দল ধৃতি নর্তনালয়ের মণিপুরি নৃত্যালেখ্য ‘লেইচান’ পরিবেশনের মধ্য দিয়ে গতকাল বুধবার সিলেটে ১০ দিনব্যাপী বেঙ্গল সংস্কৃতি উৎসবের মূল মঞ্চ প্রাণ পেল।

মানবিক হওয়ার সাধনায় সিলেটে গতকাল বিকেল ৪টায় সৈয়দ মুজতবা আলী মঞ্চে যুদ্ধশিশুদের নিয়ে নির্মিত প্রামাণ্যচিত্র ‘বর্ন টুগেদার’ প্রদর্শনীর মধ্য দিয়ে  বেঙ্গল সংস্কৃতি উৎসব শুরু হয়। এরপর একই মঞ্চে জাতীয় রবীন্দ্রসংগীত সম্মিলন পরিষদ সিলেট দেশের গান পরিবেশনের পরপরই শুরু হয় আনুষ্ঠানিক উদ্বোধনী অনুষ্ঠান। গান-নৃত্য-কথা আর হাজারো মানুষের উপস্থিতিতে উৎসব জমে উঠে প্রথম দিনই।

৮টায় উদ্বোধনী পর্বের অনুষ্ঠান শুরু হয় হাছন রাজা মঞ্চে। এ সময় উদ্বোধকের বক্তব্য দেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ব্র্যাকের প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারপারসন স্যার ফজলে হাসান আবেদ।

বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর, ইনডেক্স গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক জাকিয়া তাজীন ও ঢাকা ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সৈয়দ মাহবুবুর রহমান। সূচনা বক্তব্য দেন বেঙ্গল ফাউন্ডেশনের চেয়ারম্যান আবুল খায়ের। ধন্যবাদ জ্ঞাপন করে বক্তব্য দেন জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি (সাবেক) ও বেঙ্গল ফাউন্ডেশনের উপদেষ্টা ড. এ কে মোমেন।

উদ্বোধকের বক্তৃতায় অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বেঙ্গল ফাউন্ডেশনের এই উদ্যোগের প্রশংসা করে বলেন, রুচির বিকাশ একটা স্তরে পৌঁছালেই মানুষ একটা পর্যায়ে পৌঁছে। তখন তারা সত্যিকার অর্থেই আশরাফুল মাখলুকাত হয়ে ওঠে। তখন চাইলেও তারা আর নৃশংসতায় জড়াতে পারে না। ঢাকার বাইরে এ রকম অনুষ্ঠানের আয়োজন করায় তিনি বেঙ্গল ফাউন্ডেশনকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, ‘সিলেটে অনুষ্ঠান আয়োজনের জন্য আয়োজক আবুল খায়ের লিটুকে আমি কোনোভাবে প্রভাবিত করিনি। তিনি নিজের ইচ্ছায় এখানে প্রথম এসেছেন। এ উৎসবের মাধ্যমে সিলেট অঞ্চলে রুচির বিকাশ হবে বলে আমি মনে করি। ’

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্যে সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর বলেন, ‘আমরা যারা ঢাকায় থাকি বিগত বছরগুলোতে বেঙ্গল আয়োজিত সংগীত, চিত্রকলাসহ নানা বিষয়ে উৎসব উপভোগের সুযোগ পেয়েছি। এবার বেঙ্গল ফাউন্ডেশন সেটা ঢাকার বাইরে নিয়ে এসেছে। ’

ঢাকার বাইরে এ ধরনের আয়োজনের প্রশংসা করে সংস্কৃতিমন্ত্রী বলেন, ‘সিলেটে আজকে একটি অসাধারণ ঘটনা ঘটে গেল। এর মাধ্যমে ঢাকার বাইরে কিছু হচ্ছে না বলে যে একটা খেদ ছিল তা থেকে আমরা বেঁচে গেলাম। ’

সবক্ষেত্রে বাংলা ভাষার ব্যবহার নিশ্চিত করার আহ্বান জানিয়ে সংস্কৃতিমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা ১০টি শব্দ বললে পাঁচটিই ইংরেজি থাকে। সাইনবোর্ডে তাকালে অধিকাংশই ইংরেজি। বিয়ের কার্ডও ইংরেজিতে ছাপানো হচ্ছে। গ্রাম থেকে উঠে আসা মানুষ আমরা। এখনো গায়ে মাটির গন্ধ। কেন বিয়ের কার্ড ইংরেজিতে হবে?’

উদ্বোধনী পর্বের আগে বিকেল ৪টায় সৈয়দ মুজতবা আলী মঞ্চে ‘বর্ন টুগেদার’, ‘টেলিভিশন’ ও ‘গেরিলা’ চলচ্চিত্র প্রদর্শিত হয়। সন্ধ্যা ৬টা ২০ মিনিটে হাছন রাজা মঞ্চে মণিপুরি নাচ পরিবেশন করে বাংলাদেশের নৃত্যশিল্পী ওয়ার্দা রিহাব ও তাঁর দল। একই মঞ্চে এরপর দেশের গান পরিবেশন করেন জাতীয় রবীন্দ্রসংগীত সম্মিলন পরিষদ সিলেটের শিল্পীরা। উদ্বোধনী পর্বের পর রবীন্দ্রসংগীত পরিবেশন করেন প্রখ্যাত শিল্পী অদিতি মহসিন। সবশেষে ছিল ফিউশন ফোক জলের গানের পরিবেশনা।

আজকের অনুষ্ঠানমালা : আজ বিকেল ৪টায় সৈয়দ মুজতবা আলী মঞ্চে জাহিদুর রহিম অঞ্জনের ‘মেঘমল্লার’ চলচ্চিত্র প্রদর্শনীর মাধমে উৎসবের দ্বিতীয় দিন শুরু হবে। একই মঞ্চে সন্ধ্যা সোয়া ৭টায় মঞ্চায়িত হবে মণিপুরি থিয়েটার পরিবেশিত মঞ্চনাটক ‘কহে বীরাঙ্গনা’। এ ছাড়া হাছন রাজা মঞ্চে সন্ধ্যা ৬টা ২০ মিনিটে শুরু হবে সংগীতানুষ্ঠান। এতে দলীয় যন্ত্রসংগীত তবলা পরিবেশন করবে বেঙ্গল পরম্পরা সংগীতালয়, এরপর লোকসংগীত ও নজরুলসংগীত পরিবেশিত হবে।


মন্তব্য