kalerkantho


ভিড়ের পাশাপাশি বিক্রিও বেড়েছে

নওশাদ জামিল   

১৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



ভিড়ের পাশাপাশি বিক্রিও বেড়েছে

শুক্র ও শনিবার মেলায় ভিড় ও বিক্রি বেশি হয়ে থাকে—এই ধারণা ভেঙে গেছে মঙ্গলবার। গতকাল মেলায় ভিড় ও বিক্রি দুটিই হয়েছে বেশি।

সকাল থেকেই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, টিএসসি, চারুকলা, শাহবাগ এলাকায় ছিল তরুণ-তরুণীর ঢল। দুপুর গড়িয়ে বিকেল নামতেই সেই ঢল এঁকেবেঁকে মিশেছে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ও বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণে। ভালোবাসা দিবস আর ফাল্গুনের দ্বিতীয় দিনের উদাস হাওয়ার আনন্দে ছুটে আসা জনস্রোতে বইমেলা তার কাঙ্ক্ষিত রূপ ফিরে পায়।

বিকেল ৩টায় গ্রন্থমেলার দ্বার খুলতেই চঞ্চল তারুণ্য ভিড় করে গ্রন্থমেলায়। বিকেল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত নবীন যুগলরা প্রজাপতির চঞ্চলতা নিয়ে ঘুরে বেড়ায় এক স্টল থেকে অন্য স্টলে। প্রিয়জনকে বই কিনে উপহার দিয়েছে অনেকেই। শুধু যুগলরাই নয়, নানা বয়সী মানুষের উচ্ছ্বাস দেখা গেছে মেলা প্রাঙ্গণে। অনেকের পোশাকেই ছিল ভালোবাসার রং লালের আধিক্য। অনেকের হাতে দেখা গেছে গোলাপগুচ্ছ।

নতুন বইয়ের ব্যাগও দেখা গেছে অনেকের হাতে। বেশির ভাগেরই ঝোঁক ছিল কবিতার বই কেনায়। এদিন প্রিয় কবির বই প্রেমিক-প্রেমিকারা একে অন্যকে উপহার দিয়েছেন। অপেক্ষাকৃত নবীন কবিদের বইও বিক্রি হয়েছে। প্রকাশকদের প্রস্তুতিও ভালো ছিল। প্রচুর কবিতার বই মেলায় এনে রেখেছিলেন তাঁরা।

ঐতিহ্য প্রকাশনীর কর্ণধার আরিফুর রহমান নাইম বলেন, ‘প্রতিবছরই আমরা বেশ কিছু তরুণের কাব্যগ্রন্থ প্রকাশ করি। এবারও এর ব্যতিক্রম হয়নি। তরুণের কবিতার বই গতকাল বেশ ভালো কাটতি ছিল। ’

শুধু কবিতা নয়, বিশেষ দিনে প্রচুর বিক্রি হয়েছে গল্প-উপন্যাস। যুগলদের কেউ কিনেছে কবিতার বই, কেউ কিনেছে রোমান্টিক উপন্যাস। অন্যান্য বই যে বিক্রি হয়নি, তা নয়। অন্যান্য বইও বিক্রি হয়েছে বেশ। তবে বিশেষ দিন থাকায় কবিতার প্রতি টান ছিল অনেকের।

দুই সপ্তাহে ১৬৩৩ বই : গতকাল ছিল মেলার ১৪তম দিন অর্থাৎ দুই সপ্তাহ পার করল মেলা। দুই সপ্তাহে মেলায় মোট বই এসেছে ১৬৩৩টি। এর মধ্যে গল্প ২৩৬টি, উপন্যাস ২৮৮টি, প্রবন্ধ ৮৪টি, কবিতা ৪৭০টি, গবেষণা ২৪টি, ছড়া ৩৯টি, শিশুতোষ ৫১টি, জীবনী ২৫টি, রচনাবলি ৪টি, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক ৫১টি, নাটক ১১টি, বিজ্ঞান ২০টি, ভ্রমণ ৩৩টি, ইতিহাস ২১টি, রাজনীতি ৯টি, স্বস্থ্য ১২টি, কম্পিউটার ৩টি, রম্য ৮টি, ধর্মীয় ৪টি, অনুবাদ ৭টি, অভিধান ১টি, সায়েন্স ফিকশন ২২টি ও অন্যান্য ২১০টি।

মেলায় টাস্কফোর্সের অভিযান : গতকাল মেলার ১৪তম দিনে এসে প্রথমবারের মতো পাইরেট বইয়ের বিরুদ্ধে অভিযান চালিয়েছে এর জন্য গঠিত টাস্কফোর্স। তারা ৯টি প্রতিষ্ঠানকে মৌখিকভাবে সতর্ক করেছে। প্রকাশনা সংস্থাগুলো হলো— হলি পাবলিকেশন, রেজা পাবলিকেশন, শিশুসাহিত্য, বই পড়ি, রাতুল গ্রন্থ প্রকাশ, মেলা, প্রিয়প্রকাশ, পিপিএমসি ও জোনাকী প্রকাশনী।

মেলা পরিচালনা কমিটির সদস্যসচিব ড. জালাল আহমেদ বলেন, ‘শিশুদের কর্নারে বড়দের বই, পাইরেট বই, অনুমোদনহীন বিদেশি লেখকদের বই এসব স্টল থেকে জব্দ করা হয়েছে এবং তাদেরকে সতর্ক করা হয়েছে। পরে এ কাজ করলে, তাদের স্টল বন্ধ করে দেওয়া হবে। ’

মেলা পরিদর্শনে ডিএমপি কমিশনার : গতকাল মেলায় দ্বিতীয়বারের মতো পরিদর্শনে আসেন ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ (ডিএমপি) কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া। পরিদর্শন শেষে তিনি বলেন, ‘বইয়ের নজরদারির যে কথা উঠেছে সেটা সত্য নয়। নজরদারি করবে বাংলা একাডেমি। তবে দেশে আইন রয়েছে, কেউ যদি কারো ধর্মীয় অনুভূতিতে আঘাত করে কিছু প্রকাশ করে, তাহলে দণ্ডবিধির ২৯৫ ধারা অনুযায়ী তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা যায়। এ ছাড়া আইসিটি অ্যাক্ট রয়েছে। তবে এমন কোনো বই এখনো পাওয়া যায়নি। ’

গ্রন্থমেলায় আসা চারটি নির্বাচিত বইয়ের তথ্য-পরিচিতি তুলে ধরা হলো।

স্মৃতিগদ্য বন্ধনহীন গ্রন্থি : বইটির লেখক কথাসাহিত্যিক হাসান আজিজুল হক। ষাটের দশক থেকেই ছোটগল্পকার হিসেবে পরিচিত হয়ে ওঠেন তিনি। কথাসাহিত্যের প্রচলিত ধারা তো বটেই, নিজের লেখাকেও বারবার নতুন পরীক্ষার সামনে দাঁড় করিয়েছেন। সময়ের সঙ্গে যেমন সমাজের সদর-অন্দর, সমাজের মানুষের ভেতর-বাহির পাল্টেছে; তেমনি পাল্টেছে তাঁর রচনা। স্মৃতিতাড়িত গদ্যে লেখক তুলে ধরেছেন তাঁর সময়ের স্বর্ণালি দিনগুলো। বইটি প্রকাশ করেছে ইত্যাদি। প্রচ্ছদ করেছেন কাব্য কারিম। দাম ২৫০ টাকা।

উনসত্তরের গণ-অভ্যুত্থান : লেখক কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন। কথাসাহিত্যের বাইরে প্রাণের তাগিদ থেকে, সময়ের প্রয়োজনে লিখছেন বিবিধ রচনা। অনুসন্ধানী দৃষ্টি ও তীক্ষ পর্যবেক্ষণ তাঁর সেসব রচনার মূল প্রাণ। লেখক ভিন্ন আলোকে এবার তুলে এনেছেন উনসত্তরের গণ-অভ্যুত্থানের নানা চালচিত্র। আগুন ঝরা দিনগুলো নিয়ে তাঁর অনুভব ও চিন্তারাশি নতুন করে পাঠককে ভাবাবে। বইটি প্রকাশ করেছে চন্দ্রাবতী একাডেমি। প্রচ্ছদ করেছেন ধ্রুব এষ। দাম ১৮০ টাকা।

তোমাদের জন্য মজার মজার গল্প : গল্পগ্রন্থটির লেখক কথাসাহিত্যিক ইমদাদুল হক মিলন। বইটি ছোটদের জন্য লেখা। বইটিতে পত্রস্থ রয়েছে ১৫টি ভিন্ন স্বাদের গল্প। সব গল্পই দারুণ মজার। কোনোটা হাসির, কোনোটা ভয়ের, আবার কোনোটা দুঃখের পরশ জাগানিয়া। সব মিলিয়ে শিশু-কিশোরদের জন্য বইটি যেমন রোমাঞ্চকর, তেমনই আনন্দদায়ক। প্রকাশ করেছে পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্স। প্রচ্ছদ করেছেন মোস্তাফিজ কারিগর। দাম ১৫০ টাকা।

বিশ্বজোড়া অনন্ত অঙ্গনে : লেখক ফারুক মঈনউদ্দীন। পেশায় ব্যাংকার হলেও লেখালেখিতে তাঁর বিচরণ দীর্ঘদিনের। সত্তরের দশকের শেষ ভাগে লেখালেখির সূত্রপাত। কবিতা দিয়ে যাত্রা করলেও থিতু হয়েছেন ভ্রমণসাহিত্যে। পাশাপাশি কথাসাহিত্য, প্রবন্ধ, অনুবাদসহ নানা মাধ্যমে তাঁর সরব পদচারণ। বইটি ভ্রমণের। লেখক তাঁর সাধু ভাষায় পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের ১৫টি গন্তব্য নিয়ে লিখেছেন অনুপম ভ্রমণকথা। বইটি প্রকাশ করেছে অন্যপ্রকাশ। প্রচ্ছদ করেছেন শিল্পী মাসুক হেলাল। দাম ৩৮০ টাকা।


মন্তব্য