kalerkantho


ভালোবাসার দিনে বই হোক উপহার

নওশাদ জামিল   

১৪ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



ভালোবাসার দিনে বই হোক উপহার

কৈশোর পেরিয়ে প্রাণের মেলা এখন পূর্ণ যৌবনে। এই ভরা যৌবনে গতকাল সোমবার লেগেছিল বসন্তের ছোঁয়া, আজ মঙ্গলবার ভরে উঠবে ভালোবাসার উচ্ছ্বাসে। ভালোবাসা আর বই—একই সূত্রে যেন গাঁথা। আমরা যে কথা মুখে বলতে পারি না, যে অব্যক্ত ভাষা প্রকাশ করতে পারি না—একজন লেখক-কবি সেই কথা অবলীলায় বলে দেন তাঁর সৃষ্টিতে। ভালোবাসার দিনে আজ তাই প্রিয়জনকে বই উপহার দেবে অনেকেই।

গতকাল ছিল বসন্তের প্রথম দিন। বিশেষ দিন তাই প্রত্যাশা ছিল জনজোয়ারের, প্রকাশকদের মুখে হাসি দেখে বোঝা যায়—দিনটি বিফলে যায়নি। অবসরের প্যাভিলিয়নের সামনে দেখা হলো প্রতিষ্ঠানটির প্রকাশক ও গল্পকার আলমগীর রহমানের সঙ্গে। কথা প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘নিয়মিত আসতে পারি না, তবে মনটা পড়ে থাকে এই গ্রন্থমেলায়। এখন মেলা জমজমাট, পরিপূর্ণ। কেননা বসন্ত আমাদের প্রাণের উৎসব।

বই বিক্রির সঙ্গে একে মেলালে হবে না, উৎসবের এই আনন্দকে উপভোগ করতে হবে। আমরা সেটাই করেছি। ’

গতকাল মেলার দুই প্রান্ত বাংলা একাডেমি ও সোহরাওয়ার্দী উদ্যান ঘুরে দেখা যায়, পুরো মেলায়ই লেগেছিল বসন্তের ছোঁয়া। ‘বাসন্তী’ সাজে এসেছিল পাঠক-দর্শনার্থীরা। হঠাৎ মনে হচ্ছিল গোটা উদ্যানই যেন পরিণত হয়েছে হলুদ কোনো ফুলের বাগানে।

শুধু পাঠকদের মাঝেই নয়, বসন্তের ছোঁয়া লেগেছিল স্টলগুলোতেও। বিক্রয়কর্মীরাও সেজে এসেছিলেন বসন্তের রঙের সঙ্গে মিলিয়ে। প্রতিটি স্টলেই ছিল দর্শনার্থীদের ভিড়। বইপ্রেমীরা বসন্তে রঙের সঙ্গে নিয়েছেন নতুন বইয়ের ঘ্রাণও। ফলে বিক্রিবাট্টাও ছিল বেশ।

গতকাল বিকেলে ও সন্ধ্যায় শাহবাগ, চারুকলা, টিএসসি, সোহরাওয়ার্দী উদ্যান, বাংলা একাডেমিসহ আশপাশের গোটা এলাকাই হয়ে ওঠে উৎসবমুখর। উচ্ছ্বাসমুখর পরিবেশে তরুণ-তরুণীরা ঘুরে বেড়িয়েছে মেলার বিভিন্ন স্টল।

বিশ্ব ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে আজও মেলা জমজমাট থাকবে—এমনটাই প্রত্যাশা করছেন প্রকাশকরা। গতকাল ফাগুনের প্রথম দিনেই অনেকে ভালোবাসার প্রিয় মানুষকে নতুন বই উপহার দিয়েছেন। ভালোবাসার দিনে অনেকেই নতুন বই কিনে প্রিয়জনকে উপহার দেবেন—এমনটাই প্রত্যাশা তাঁদের।

১৩ গুণীর নামে চত্বর : প্রয়াত গুণীদের অবশেষে স্মরণ করল বাংলা একাডেমি। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন মেলা পরিচালনা কমিটির সদস্যসচিব ড. জালাল আহমেদ। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানে যাঁদের নামে চত্বর করা হয়েছে তাঁরা হলেন কবি সৈয়দ শামসুল হক, কবি শহীদ কাদরী, কবি রফিক আজাদ, আবদুল গফুর হালী, শওকত ওসমান, সরদার জয়েনউদ্ৎদীন, মদনমোহন তর্কালঙ্কার, আমীর হোসেন চৌধুরী, দীনেশচন্দ্র সেন, আহসান হাবীব, আবদুল্লাহ আলমুতী শরফুদ্দীন ও নূরজাহান বেগম। এ ছাড়া বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণে শহীদ ধীরেন্দ্রনাথ দত্তের নামে আরেকটি চত্বরের নামকরণ করা হয়েছে।

গ্রন্থমেলায় প্রকাশিত চারটি নির্বাচিত বইয়ের তথ্য-পরিচিত ছাপা হলো।

আলোকিত মুখচ্ছবি : প্রবন্ধ-নিবন্ধের বই। লেখক গোলাম মুরশিদ। একাধারে তিনি লেখক, গবেষক, প্রাবন্ধিক। তিন দশক আগে লন্ডনে পাড়ি জমালেও বাংলাদেশ, বাংলা ভাষা নিয়েই তাঁর লেখা, গবেষণা। তাঁর এই বই স্মৃতিকথাধর্মী, দেশ-বিদেশের গুণীজনের প্রতি তাঁর শ্রদ্ধাঞ্জলি। বইটি প্রকাশ করেছে অবসর। প্রচ্ছদ করেছেন ধ্রুব এষ। দাম ৫৭৫ টাকা।

এই কাহিনি শেষ হয়নি : কথাসাহিত্যিক মঈনুল আহসানের উপন্যাস। লেখক ঢাকার নাগরিক জীবন দেখেছেন কাছ থেকেই। তাই নাগরিক জীবনের ছোটখাটো দিকগুলোও তাঁর দৃষ্টি এড়ায়নি। এ বইটিতে তিনি প্রচলিত ধারণা উপেক্ষা করে পর্যবেক্ষণ করেছেন মধ্যবিত্তের অন্তর্গত শূন্যতা এবং নির্মোহ দৃষ্টিতে চিত্রিত করেছেন বিপন্ন মধ্যবিত্তের আকাঙ্ক্ষা ও অতৃপ্তি। বইটি প্রকাশ করেছে দিব্য প্রকাশ। প্রচ্ছদ করেছেন মোস্তাফিজ কারিগর। দাম ১৫০ টাকা।

এশিয়ার রূপকথা : লেখক শিশুসাহিত্যিক আলী ইমাম। রূপকথা এক দেশ থেকে অন্য দেশে মুখে মুখে ফেরে। মানুষই এর বাহক। রূপকথার চরিত্র ভিন্ন হলেও এর কাহিনি, প্রেক্ষাপট সব মানুষের জন্য সমান গুরুত্বপূর্ণ। বইটি প্রকাশ করেছে পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্স। প্রচ্ছদ করেছেন রাজীব রাজু। দাম ২৮০ টাকা।

কিছু হাসি কিছু রম্য : লেখক কথাসাহিত্যিক মোস্তফা কামাল। তাঁর পেশা সাংবাদিকতা, তবে প্রকৃত জায়গা সৃজনশীল লেখালেখির জগৎ। গল্প-উপন্যাস, শিশুতোষ, রম্য রচনা, সায়েন্স ফিকশনসহ সাহিত্যের নানা শাখায় তাঁর অবাধ বিচরণ। লেখক এরই মধ্যে রম্য উপন্যাস লিখে অর্জন করেছেন খ্যাতি এবং বিপুল পাঠকের ভালোবাসা। তাঁর এ বইটিও রম্য রচনা। প্রকাশ করেছে অনন্যা। লেখক অত্যন্ত সাবলীল ও আকর্ষণীয় ভাষায় তুলে ধরেছেন মজাদার ঘটনা। তাতে যেমন আছে নির্মল হাসির খোরাক, তেমনি রয়েছে সমাজ, রাজনীতিসহ নানা কিছু নিয়ে তীক্ষ খোঁচা। বইটির প্রচ্ছদ করেছেন ধ্রুব এষ। দাম ১৬০ টাকা। এ ছাড়া গ্রন্থমেলায় প্রকাশিত হয়েছে মোস্তফা কামালের তিনটি বই। তাঁর ‘অগ্নিকন্যা’ শীর্ষক ইতিহাসভিত্তিক উপন্যাস প্রকাশ করেছে পার্ল পাবলিকেশন্স। অন্যপ্রকাশ থেকে বের হয়েছে নিপাট প্রেমের উপন্যাস ‘রূপবতী’। অনন্যা প্রকাশ করেছে কিশোর গোয়েন্দা উপন্যাস ‘প্রিন্স উইলিয়ামের আংটির খোঁজে’।

নতুন বই : একাডেমির সমন্বয় ও জনসংযোগ উপবিভাগ থেকে প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী, গতকাল মেলার ১৩তম দিনে নতুন ৭১টি বই এসেছে। এর মধ্যে গল্প ১১, উপন্যাস ৬, প্রবন্ধ ৬, কবিতা ২৭, জীবনী ৩, মুক্তিযুদ্ধ ২, নাটক ১, ভ্রমণ ১, রাজনীতি ১, চিকিৎসা/স্বাস্থ্য ২, অনুবাদ ১ এবং অন্যান্য বিষয়ের ওপর আরো ১০টি বই প্রকাশ পেয়েছে। এ ছাড়া ১৪টি নতুন বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করা হয়।

মিজান পাবলিশার্স এনেছে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের ‘রচনাসমগ্র’। মুক্তধারা এনেছে সিরাজুল ইসলাম চৌধুরীর ‘তাজউদ্দিন আহমেদের রাজনৈতিক জীবন’। অন্বেষা এনেছে কথাসাহিত্যিক মোস্তফা মামুনের উপন্যাস ‘বাদল ব্রাদার্স’। আলোঘর এনেছে ক্রীড়া সাংবাদিক নোমান মোহাম্মদের গ্রন্থ ‘পেলে থেকে মেসি’।

মেলামঞ্চের আয়োজন : গতকাল গ্রন্থমেলার মূল মঞ্চে অনুষ্ঠিত হয় ‘মদনমোহন তর্কালঙ্কারের জন্মদ্বিশতবার্ষিকী’ শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠানে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন অধ্যাপক শফিঊল আলম। আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন ড. সফিউদ্দিন আহমদ এবং ড. রতন সিদ্দিকী। সভাপতিত্ব করেন প্রাবন্ধিক-গবেষক সৈয়দ আবুল মকসুদ।

আজকের অনুষ্ঠান : আজ মঙ্গলবার বিকেলে গ্রন্থমেলার মূল মঞ্চে অনুষ্ঠিত হবে ‘পঞ্চাশ ও ষাট দশকের একুশের সংকলন’ শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠান। এ ছাড়া সন্ধ্যায় রয়েছে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।


মন্তব্য