kalerkantho


বসন্তবরণের অপেক্ষায়

নওশাদ জামিল   

১৩ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



বসন্তবরণের অপেক্ষায়

প্রিকৃতিতে রংবেরঙের ফুলের ডালা সাজিয়ে এলো বসন্ত। আজ সোমবার থেকে প্রকৃতির সর্বত্র বিরাজ করবে ঋতুরাজের লাবণ্য। কিন্তু নগরজীবনে সেটুকু পাওয়া দুষ্কর। এর পরও ইট-পাথরের নাগরিক জীবনে নানামাত্রিক বাধা ছাপিয়ে প্রকৃতির অঢেল ঐশ্বর্যের যেটুকু পাওয়া যায়, তাকেই অতি আপন করে নিই আমরা। মন নেচে ওঠে আনন্দে। সেই আনন্দে রাজধানীবাসীর বেশভূষা, উৎসব-আয়োজনে দেখা যাবে ঋতুরাজের বর্ণচ্ছটা। তা থেকে বাদ পড়বে না অমর একুশে গ্রন্থমেলাও। বরং অগুনতি বাসন্তী শাড়ি পরা তরুণীর খোঁপায় গোঁজা গাঁদা আর তরুণদলের পরা পাঞ্জাবির রঙের আভায় ঝলমলিয়ে উঠবে বইমেলা প্রাঙ্গণ।

মেলায় গতকাল রবিবার থেকেই দেখা গেছে বসন্তের আমেজ। শীতের শেষ বেলায় মেলায় আসা বিভিন্ন বয়সের নারী-পুরুষের পোশাক ও সাজসজ্জায় ছিল বসন্তের আবহ। তা পূর্ণাঙ্গ রূপ নেবে আজ।

বসন্তের প্রথম দিনে আজ সকাল থেকে চারুকলার বকুলতলায় জমবে ভিড়। রঙের আলপনায় সাজবে শাহবাগ থেকে চারুকলা ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসি চত্বর। বাদ যাবে না অমর একুশে গ্রন্থমেলাও। সকাল পেরিয়ে বেলা গড়ানোর সঙ্গে সঙ্গে বসন্তের রং আছড়ে পড়বে বাংলা একাডেমি ও সোহরাওয়ার্দী  উদ্যানে মেলা প্রাঙ্গণে। পুরো এলাকায় ছড়িয়ে যাবে হলুদ, কমলা, লালসহ নানা রং।

বসন্তের প্রথম দিনে আজ বিকেল ৩টায় খুলে যাবে গ্রন্থমেলার প্রবেশদ্বার। প্রকাশকরা বলছেন, পহেলা ফাল্গুন মেলার জন্য বরাবরই একটি গুরুত্বপূর্ণ দিন। এর সঙ্গে রয়েছে পরদিনের বিশ্ব ভালোবাসা দিবসও। এ দুই দিনই ব্যাপকভাবে জমে থাকবে মেলা। বিক্রিবাট্টাও হবে জমজমাট। লেখক-প্রকাশকরা প্রত্যাশা করছেন, আজ শুরু হওয়া জনস্রোত বইমেলার শেষ দিন পর্যন্ত অব্যাহত থাকবে।

জ্ঞান ও সৃজনশীল প্রকাশক সমিতির সাধারণ সম্পাদক কামরুল হাসান শায়ক বলেন, ‘অমর একুশে গ্রন্থমেলা হচ্ছে আমাদের সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের অন্যতম অংশ। আর পহেলা ফাল্গুন ও ভালোবাসা দিবসে মানুষ পরিবার-পরিজন নিয়ে বইমেলায় আসবে—এটাই তো স্বাভাবিক। আমরা আশা করছি পাঠক-দর্শনার্থীর পদচারণে মুখর থাকবে এ দুটি দিন। ’

প্রকাশিত হলো সৈয়দ মনজুরুল ইসলামের গল্পগ্রন্থ : গতকাল মেলার সোহরাওয়ার্দী উদ্যান অংশে উন্মোচন করা হয় কথাসাহিত্যিক সৈয়দ মনজুরুল ইসলামের ‘একাত্তর ও অন্যান্য গল্প’ বইটির। অন্যপ্রকাশ থেকে প্রকাশিত বইটির মোড়ক উন্মোচন করেন কথাসাহিত্যিক ইমদাদুল হক মিলন। এ সময় বইটির লেখক ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন অন্যপ্রকাশের প্রধান নির্বাহী মাজহারুল ইসলাম, পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্সের পরিচালক কামরুল হাসান শায়ক প্রমুখ।

মোড়ক উন্মোচন শেষে সৈয়দ মনজুরুল ইসলাম বলেন, ‘এবারের মেলা খুব সুন্দর আর গোছানো হয়েছে। শুরু থেকেই জমে উঠেছে মেলা। গত শুক্রবার আমি মানুষের ভিড়ে ভেতরে প্রবেশ করতেই পারিনি। পহেলা ফাল্গুন আর ভালোবাসা দিবস উপলক্ষে মেলায় মানুষের আনাগোনা আরো বাড়বে, সন্দেহ নেই। ’

এ বছর লেখকের এ বইটি ছাড়াও পাঞ্জেরী থেকে প্রকাশিত হয়েছে ‘মুক্তিযুদ্ধের সাহিত্য ও অন্যান্য প্রবন্ধ’ ও চন্দ্রাবতী একাডেমি থেকে এসেছে ‘বিচিত্র স্বাদের গল্প’।

মেলায় আসা চারটি গুরুত্বপূর্ণ বইয়ের তথ্য-পরিচিতি তুলে ধরা হলো :

স্মৃতিময় কর্মজীবন : লেখক আবুল মাল আবদুল মুহিত। কীর্তিমান এই পুরুষের ৬০ বছরের কর্মময় জীবন। কর্মসূত্রে দেখেছেন দেশের রাজনীতি, সমাজ, অর্থনীতিসহ নানা গুরুত্বপূর্ণ দিক। বইটি মূলত সেসব ঘটনার সত্যনিষ্ঠ বিবরণ। রাষ্ট্রীয় ঘটনাস্রোত ছাড়াও বন্ধু-পরিজনসহ তাঁর ব্যক্তিজীবনের নানা অন্তরঙ্গ ঘটনা এতে প্রবাহিত হয়েছে। বইটি প্রকাশ করেছে চন্দ্রাবতী একাডেমি। প্রচ্ছদ করেছেন ধ্রুব এষ। দাম ৬০০ টাকা।

কথার কথা : কিশোরদের জন্য লেখা বইটির লেখক আনিসুজ্জামান। বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের বরেণ্য এই গুণীজন কিশোরদের জন্য লিখেছেন বাংলা ব্যাকরণের নানা দিক নিয়ে। বইটিতে শুধু বাংলা ভাষার নিয়মকানুন নয়, বাংলা ভাষা কোথা থেকে এলো, কিভাবে এলো, বাংলা সংস্কৃতির উৎসসহ নানা বিষয় বর্ণনা করা হয়েছে সাবলীলভাবে। বইটি প্রকাশ করেছে চন্দ্রাবতী একাডেমি। প্রচ্ছদ ও অলংকরণ করেছেন ধ্রুব এষ। দাম ২৫০ টাকা।

কিশোর উপন্যাসসমগ্র : দেশের কিশোর সাহিত্যে বিশিষ্টতা অর্জন করেছেন আনোয়ারা সৈয়দ হক। তাঁর কিশোর উপন্যাসের জগৎ গড়ে উঠেছে প্রতিদিনের জীবনযাত্রার সুখ-দুঃখকে সঙ্গী করে। বইটিতে পত্রস্থ হয়েছে তেমনই পাঁচটি উপন্যাস। প্রকাশ করেছে পাঞ্জেরী পাবলিকেশন্স। প্রচ্ছদ করেছেন গৌতম ঘোষ। দাম ৫০০ টাকা।

প্রবাসে প্রিয়জন : লেখক সাকিল চৌধুরী। বইটি মূলত ভ্রমণগ্রন্থ। ইউরোপের বেশ কয়েকটি শহর ও সেসব অঞ্চলের তথ্য-ইতিহাস, ঐতিহ্য নিয়ে, মানুষজন নিয়ে গল্প। বইটি প্রকাশ করেছে অনন্যা। প্রচ্ছদ করেছেন ধ্রুব এষ। দাম ১৭০ টাকা।

নতুন বই : বাংলা একাডেমির তথ্যকেন্দ্র থেকে প্রাপ্ত তথ্যানুযায়ী, গতকাল মেলায় ৯৬টি নতুন বই এসেছে। এর মধ্যে গল্প ৮, উপন্যাস ২০, প্রবন্ধ ৩, কবিতা ৩৫, শিশুসাহিত্য ৭, নাটক ১, ভ্রমণ ৩, ইতিহাস ১, রাজনীতি ১, রম্য/ধাঁধা ১, অনুবাদ ১ এবং অন্যান্য বিষয়ের ওপর আরো ১৫টি নতুন বই এসেছে। এ ছাড়া গতকাল মেলায় ৩২টি নতুন বইয়ের মোড়ক উন্মোচিত হয়েছে।

অনন্যা এনেছে জনপ্রিয় কথাসাহিত্যিক ইমদাদুল হক মিলনের গল্পগ্রন্থ ‘রাত দুপুরে’। রয়েল পাবলিশার্স এনেছে কবি নাসির আহমেদের ‘কবিতা সমগ্র’। অবসর এনেছে আশা নাজনীনের ‘স্বামীসূত্র’। চৈতন্য এনেছে কবি বিধান সাহার গদ্যগ্রন্থ ‘এসো বটগাছ’ ইত্যাদি।

মূল মঞ্চের আয়োজন : গতকাল মেলার মূল মঞ্চে অনুষ্ঠিত হয় ‘দীনেশচন্দ্র সেনের সার্ধশততম জন্মবার্ষিকী’ শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠানে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন অধ্যাপক সৈয়দ আজিজুল হক। আলোচনায় অংশ নেন ড. মাহবুবুল হক ও ড. এম আবদুল আলীম। সভাপতিত্ব করেন অধ্যাপক মোহাম্মদ আবদুল কাইউম। সন্ধ্যায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে আবৃত্তি পরিবেশন করেন আবৃত্তিশিল্পী রেজিনা ওয়ালী লীনা, মো. রফিকুল ইসলাম ও এস এম মাহিদুল ইসলাম।

আজকের অনুষ্ঠান : আজ বিকেলে গ্রন্থমেলার মূল মঞ্চে অনুষ্ঠিত হবে ‘মদনমোহন তর্কালঙ্কারের জন্ম দ্বিশতবার্ষিকী’ শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠানে প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন অধ্যাপক শফিঊল আলম। আলোচনায় অংশ নেবেন রতন সিদ্দিকী, সফিউদ্দিন আহমদ ও মুহম্মদ শহীদ উজ জামান। সভাপতিত্ব করবেন প্রাবন্ধিক-গবেষক সৈয়দ আবুল মকসুদ। সন্ধ্যায় রয়েছে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।


মন্তব্য