kalerkantho


আখাউড়ায় আইনমন্ত্রী

খালেদা জিয়ার সৎসাহস নেই

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি   

১১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



খালেদা জিয়ার সৎসাহস নেই

ফাইল ছবি

বিচারের মুখোমুখি হওয়ার মতো সৎসাহস বিএনপি নেত্রী খালেদা জিয়ার নেই বলে মন্তব্য করেছেন আইন, বিচার ও সংসদবিষয়ক মন্ত্রী আনিসুল হক। গতকাল শুক্রবার সকালে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আখাউড়ায় এক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন।

আইনমন্ত্রী বলেন, ‘বিএনপি নেত্রীর বিরুদ্ধে দুর্নীতির মামলা হয়েছে। তিনি ৬০ বার আদালতে গেছেন আর ১০০ বার অসুস্থতার কথা বলে সময় চেয়েছেন। বিচারের সম্মুখীন হওয়ার মতো সৎসাহস বিএনপি নেত্রীর নেই। ’ খালেদা জিয়ার ছেলে তারেক রহমান বিদেশে থাকার টাকা কোথায় পায়—এ প্রশ্ন তোলেন মন্ত্রী।

মোবাইল থেরাপি ভ্যানের কার্যক্রম উদ্বোধন এবং প্রতিবন্ধীদের মধ্যে হুইল চেয়ার বিতরণ উপলক্ষে দেবগ্রাম পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে ওই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। জাতীয় প্রতিবন্ধী উন্নয়ন ফাউন্ডেশন এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।

অনুষ্ঠানে ৫০ জন প্রতিবন্ধীর মধ্যে হুইল চেয়ার বিতরণ করা হয়। পরে আইনমন্ত্রী মোবাইল থেরাপি ভ্যানের কার্যক্রম উদ্বোধন করেন। অনুষ্ঠানে মন্ত্রী ৬১ পরিবারের মধ্যে নতুন বিদ্যুৎ সংযোগ উদ্বোধন এবং দেবগ্রাম পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের নতুন ভবনও উদ্বোধন করেন।

উল্লেখ্য, জিয়া আরফানেজ ট্রাস্ট ও জিয়া চ্যারিটেবল ট্রাস্ট-সংক্রান্ত দুটি মামলায় খালেদা জিয়ার আত্মপক্ষ সমর্থনের দিন ধার্য ছিল গত বৃহস্পতিবার। খালেদা জিয়া অসুস্থ—উল্লেখ করে ঢাকার বিশেষ জজ আদালত-৩-এ তাঁর পক্ষে সময় চাওয়া হয়। আগামী ১৬ ফেব্রুয়ারি নতুন তারিখ ধার্য করেছেন আদালত।

‘নির্বাচন কমিশন গঠনে প্রধানমন্ত্রীর ইচ্ছার প্রতিফলন ঘটেছে’— সম্প্রতি বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের এমন মন্তব্য প্রসঙ্গে এক প্রশ্নের জবাবে আইনমন্ত্রী বলেন, ‘আইন অনুসারে নিবন্ধিত সব রাজনৈতিক দলের সঙ্গে কথা বলে রাষ্ট্রপতি নির্বাচন কমিশন গঠন করেছেন। আমি যত দূর জানি আওয়ামী লীগের দেওয়া নাম থেকে একজন, বিএনপির তালিকা থেকে একজন ও অন্যান্য দল থেকে বাকিদের নাম দিয়ে পাঁচজনের নির্বাচন কমিশন গঠন করা হয়েছে। ’ বিএনপি মানুক আর না মানুক এ কমিশনের মাধ্যমেই দেশের পরবর্তী সব নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে বলে মন্তব্য করেন আনিসুল হক। আজেবাজে কথা বলা বন্ধ করে এ কমিশনের অধীনে নির্বাচনে অংশ নেওয়ার জন্য তিনি বিএনপির প্রতি আহ্বান জানান।

জাতীয় প্রতিবন্ধী উন্নয়ন ফাউন্ডেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কামরুন নাহার খানমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য দেন সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব সুশান্ত কুমার প্রামাণিক, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার জেলা প্রশাসক রেজওয়ানুর রহমান।

অনুষ্ঠানে আনিসুল হক আরো বলেন, ‘জাতির জনক বঙ্গবন্ধু ১৯৭২ সালের সংবিধানে প্রতিবন্ধীদের জন্য একটা জায়গা রেখে গেছেন। সেই ব্যবস্থার ওপর দাঁড়িয়েই আমরা প্রতিবন্ধীদের সেবার মান উঁচু থেকে উঁচুতে নিয়ে যাব। ২০১৩ সালে প্রতিবন্ধীদের সুরক্ষায় আইন হয়েছে। ওই আইনে প্রতিবন্ধীদের অধিকার হরণ করলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়ার কথাও বলা আছে। ’ তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মেয়ে সায়মা ওয়াজেদ প্রতিবন্ধীদের কল্যাণে বিশ্বব্যাপী আন্দোলন করে যাচ্ছেন। প্রতিবন্ধীরা এখন আর অসহায় নয়। কেননা, তাদের সঙ্গে শেখ হাসিনা রয়েছেন। ’

মন্ত্রীর মাকে স্বাগত : ঢাকা থেকে মহানগর প্রভাতী ট্রেনে করে গতকাল সকাল সাড়ে ১০টার দিকে আখাউড়া রেলওয়ে জংশন স্টেশনে এসে নামেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। ওই সময় তাঁর মা মুক্তিযোদ্ধা জাহানারা হক সঙ্গে ছিলেন। গ্রামের বাড়ি ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা উপজেলার পানিয়ারূপ যেতে তিনি ছেলের সঙ্গে ট্রেনে আসেন।

মন্ত্রীর মা জাহানারা হককে স্বাগত জানাতে রেলওয়ে স্টেশন এলাকায় জড়ো হয় শত শত মানুষ। লাইন ধরে দাঁড়ানো লোকজনের হাতে প্ল্যাকার্ডে লেখা ছিল—‘আমরা আনিসুল হক হতে চাই’, ‘মা তোমায় সালাম’, ‘মা তোমাকে ভালোবাসি’ প্রভৃতি। সেখানে আখাউড়া পৌরসভার মেয়র তাকজিল খলিফা কাজল উপস্থিত ছিলেন।

আখাউড়া স্টেশন থেকে মন্ত্রীর মা সড়ক পথে কসবায় গ্রামের বাড়িতে চলে যান। অন্যদিকে আনিসুল হক বিকেলে আখাউড়ার মন্দিয়ন্দ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সম্মেলনে প্রধান অতিথির বক্তব্য দেন।


মন্তব্য