kalerkantho


বই কেনা ও দেখার চমতৎকার পরিবেশ

নওশাদ জামিল   

৯ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



বই কেনা ও দেখার চমতৎকার পরিবেশ

নতুন বইয়ের ঘ্রাণে প্রতিদিনই মানুষ বাড়ছে মেলায়। পরিবেশও আনন্দদায়ক।

ছিমছাম, পরিপাটি। সারি সারি সাজানো স্টল। প্রতিটি স্টল নান্দনিকভাবে বিন্যস্ত। গা ঘেঁষাঘেঁষি করে দাঁড়ানো নয়। ফলে চারপাশেই আছে প্রশস্ত আঙিনা। মেলার পরিসর বাড়ানোর ফলে ক্রেতা-পাঠকরা ঘুরতে পারছে স্বচ্ছন্দে, বই নেড়েচেড়ে দেখতে পারছে ইচ্ছা মতো আয়েশি ভঙ্গিতে। বই কেনা ও দেখার জন্য এ পরিবেশ সত্যিই স্বাচ্ছন্দ্যময় ও আনন্দদায়ক।

অমর একুশে গ্রন্থমেলার অষ্টম দিন ছিল গতকাল বুধবার। সোহরাওয়ার্দী উদ্যান অংশ ঘুরে দেখা যায়, বেশ জমে উঠেছে প্রাণের মেলা।

দল বেঁধে দর্শনার্থীরা ঢুকছে মেলা প্রাঙ্গণে। মেলা ঘুরে ক্লান্ত হলে মেতে উঠছে আড্ডায়। আর সেই আড্ডাও বইকে কেন্দ্র করে। নতুন বই নিয়ে, মেলার পরিবেশ নিয়ে ক্রেতা-দর্শনার্থীরা জানায় তাদের আনন্দের কথা। উত্তরা থেকে আসা পাঠক সাবেরা জাহান চৈতি বলেন, ‘রাজনৈতিক পরিস্থিত ভালো, ফলে মেলায় ক্রেতা-দর্শনার্থীও প্রচুর। এ ছাড়া এবার মেলার পরিবেশটা সত্যিই চমত্কার। ’

গতকাল মেলায় হাজির হয়েছিলেন জনপ্রিয় সাহিত্যিক মুহম্মদ জাফর ইকবাল। সঙ্গে ছিলেন তাঁর স্ত্রী ইয়াসমিন হক ও কবি গুলতেকিন খান। মেলায় ঢুকতেই অটোগ্রাফ শিকারিরা ঘিরে ধরে মুহম্মদ জাফর ইকবালকে। ক্রেতা-দর্শনার্থীকে দীর্ঘক্ষণ অটোগ্রাফ দেন তিনি। তাঁর সঙ্গে ছবি তুলতে হুমড়ি খেয়ে পড়ে শিশু-কিশোররা।

মুহম্মদ জাফর ইকবাল বলেন, ‘এখন অনেকেই বইয়ের সঙ্গে সেলফি তোলে, তারা কিন্তু বইও কেনে। মেলায় যারা আসে তারা বইয়ের পাঠক। তাই ওদের সঙ্গে সেলফি তুলে ক্লান্ত হই না। ’ তাম্রলিপি থেকে হুমায়ূন আহমেদকে নিয়ে মা আয়েশা ফয়েজের লেখা বই ‘শেষ চিঠি’ প্রকাশ পেয়েছে। এই বইটি নিয়ে হুমায়ূন আহমেদের ছোট ভাই মুহম্মদ জাফর ইকবাল বলেন, ‘বড় ভাইয়ের মৃত্যুর পরে মা এটা লিখেছিলেন। এটা পড়লে আমাদের চোখেও পানি চলে আসে। আমার পরিবারের সদস্যরা সিদ্ধান্তহীনতায় ছিলাম এটা ছাপাব কি না। পরে মনে হলো, পাঠকের সামনে তুলে ধরা যেতেই পারে। ’

কবি গুলতেকিন খান বলেন, ‘অন্যান্য বছরের তুলনায় এবার মেলার পরিবেশটা আনন্দদায়ক, পাঠকরা স্বাচ্ছন্দ্যে বই দেখতে পারছে, কিনতে পারছে। ফলে এবার ক্রেতা-দর্শনার্থীও বেশি। ’

বইমেলায় আসা চারটি গুরুত্বপূর্ণ বইয়ের তথ্য-পরিচিতি পত্রস্থ হলো।

সাদা কফিন ও মুক্তিযোদ্ধা : গল্পগ্রন্থটির লেখক বিপ্রদাশ বড়ুয়া। নিসর্গী হিসেবে তিনি অগ্রণী ভূমিকা পালন করছেন অনেক দিন ধরেই। তাঁর নতুন গল্পগ্রন্থ ‘সাদা কফিন ও মুক্তিযোদ্ধা’। বইটি প্রকাশ করেছে একুশে বাংলা প্রকাশন। তাঁর গল্পে মানব-মানবীর চিরন্তন সম্পর্ক, নিগূঢ় রহস্য, প্রেম, যৌনতা, দেশপ্রেম, মুক্তিযুদ্ধসহ নানা বিষয় উঠে এসেছে অন্যতর আঙ্গিকে। বইটির প্রচ্ছদ করেছেন ধ্রুব এষ। মূল্য ৪৫০ টাকা।

রূপবতী : উপন্যাসটির লেখক কথাসাহিত্যিক মোস্তফা কামাল। জনপ্রিয় লেখক ও নিষ্ঠাবান সাংবাদিক হিসেবে তাঁর সম্যক পরিচিতি। দীর্ঘদিন ধরে নিরন্তর লিখছেন গল্প, উপন্যাস, রম্যরচনা, শিশুসাহিত্যসহ নানা কিছু। মূলত কথাসাহিত্যেই তাঁর সব ধ্যান, আরাধনা। গল্প-উপন্যাসেই প্রতিফলিত হয় তাঁর সৃজনীসত্তার পূর্ণ প্রতিচ্ছবি। এবারের মেলায় খ্যাতনামা প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান অন্যপ্রকাশ এনেছে তাঁর এ রোমান্টিক উপন্যাসটি। বইটির প্রচ্ছদ করেছেন ধ্রুব এষ। দাম ২২৫ টাকা। অসম্ভব সুন্দরী এক তরুণীকে ঘিরে গড়ে উঠেছে এর কাহিনি। তার প্রেমে পড়ে সাকিব নামে এক তরুণ। দুজনের সম্পর্ক, টানাপড়েন কাহিনিকে দিয়েছে অনন্য নান্দনিকতা। তাঁর রচনা খুব ঝরঝরে, স্মার্ট। ফলে পাঠক পড়তে পড়তে পৌঁছে যান এক স্বপ্নের জগতে। তাঁর সৃষ্ট এ জগৎ পাঠকের জন্য আনন্দদায়ক অভিজ্ঞতা।

রুখে দাঁড়াবার সময় : শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের প্রবন্ধগ্রন্থ। শিক্ষাব্যবস্থা, রাজনীতি, সমাজসহ নানা বিষয়ে লেখক বিশ্লেষণ করেছেন। সব মিলিয়ে তাঁর এ বইয়ে পত্রস্থ হয়েছে ১১৮টি প্রবন্ধ-নিবন্ধ। অত্যন্ত সহজ, সরল ও বৈঠকি আড্ডায় তিনি তুলে ধরেছেন একটি সময়ের নির্মম ইতিহাস। প্রকাশ করেছে চারুলিপি প্রকাশন। প্রচ্ছদ করেছেন সোহেল আনাম। দাম ৬০০ টাকা।

জরুরি আইনের সরকারের দুই বছর : স্মৃতিকথা ও বিশ্লেষণধর্মী বইটির লেখক সাবেক মন্ত্রী ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন। ফখরুদ্দীন-মইনউদ্দীন সরকারের দুই বছরে দেশের রাজনীতি, রাষ্ট্র ও সমাজ ব্যবস্থাসহ নানা ক্ষেত্রে ভাবমূর্তি দারুণভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হয়। লেখক নিবিড়ভাবে তা পর্যবেক্ষণ করেছেন, বিশ্লেষণ করেছেন। বইটি প্রকাশ করেছে আহমদ পাবলিশিং হাউস। প্রচ্ছদ করেছেন বায়েজিদ সোহাগ। দাম ৬০০ টাকা।  

নতুন বই : গ্রন্থমেলার তথ্যকেন্দ্রের তথ্য অনুযায়ী, গতকাল মেলায় প্রকাশিত হয় ১০৯টি বই। এর মধ্যে গল্প ১৬, উপন্যাস ২৭, প্রবন্ধ ৫, কবিতা ২৪, গবেষণা ২, শিশুসাহিত্য ৫, জীবনী ১, বিজ্ঞান ৩, ভ্রমণ ৪, ইতিহাস ২, চিকিৎসা/স্বাস্থ্য ১, রম্য/ধাঁধা ১, অনুবাদ ১, বৈজ্ঞানিক কল্পকাহিনি ১ এবং অন্যান্য বিষয়ের ওপর ১৬টি নতুন বই এসেছে। ১৪টি নতুন বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করা হয়। এর মধ্যে ২০০৯ থেকে চলতি বছরের ১২ জানুয়ারি পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণ নিয়ে প্রকাশিত হয়েছে ‘জাতির উদ্দেশে ভাষণ’। বইটি প্রকাশ করেছে স্বেচ্ছাসেবক লীগের প্রকাশনা সংস্থা বঙ্গবন্ধু বার্তা।

গতকাল আসা নতুন বইয়ের মধ্যে রয়েছে অনিন্দ্য প্রকাশ প্রকাশিত ইকবাল হাসানের উপন্যাস ‘ছায়ামুখ ও আশ্চর্যকুহক’। ইত্যাদি গ্রন্থপ্রকাশ এনেছে মাহবুব-উল-আলম চৌধুরীর উপন্যাস ‘বস্তির নাম ৭৪২’। চৈতন্য এনেছে কবি প্রান্ত পলাশের কাব্যগ্রন্থ ‘আমার কীরাম জানি লাগে’। অনন্যা এনেছে গোলাম মাওলা রনির ‘তাসের ঘরে বাঁশের খুঁটি’ ইত্যাদি।

মেলা মঞ্চের আয়োজন : গতকাল গ্রন্থমেলার মূল মঞ্চে অনুষ্ঠিত হয় ‘সরদার জয়েনউদ্দীনের জন্মশতবার্ষিকী’ শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন অধ্যাপক বিশ্বজিৎ ঘোষ। আলোচনায় অংশ নেন কথাসাহিত্যিক হরিশংকর জলদাস, অধ্যাপক বায়তুল্লাহ কাদেরী, সরদার জয়েনউদ্দীনের ছেলে জ্যোতি জয়েনউদ্দীন এবং মোবাশ্বিরা ফারজানা মিথিলা। সভাপতিত্ব করেন ড. মোহাম্মদ জয়নুদ্দীন। সন্ধ্যার সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে সংগীত পরিবেশন করেন নাদিরা বেগম, আবুবকর সিদ্দিক, আজগর আলীম ও সফিউল আলম রাজা।

আজকের আয়োজন : আজ গ্রন্থমেলার মূল মঞ্চে অনুষ্ঠিত হবে ‘বাংলা ভাষায় ইতিহাস চর্চা’ শীর্ষক আলোচনা অনুষ্ঠান। অনুষ্ঠানে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপন করবেন অধ্যাপক ড. মো. মাহবুবর রহমান। আলোচনায় অংশ নেবেন অধ্যাপক মেসবাহ কামাল এবং ড. আশফাক হোসেন। সভাপতিত্ব করবেন ইতিহাসবিদ অধ্যাপক মুনতাসীর মামুন। সন্ধ্যায় রয়েছে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।


মন্তব্য