kalerkantho


মন্ত্রিসভায় সিদ্ধান্ত

রিজার্ভের অর্থে সার্বভৌম সম্পদ তহবিল হবে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৭ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



রিজার্ভের অর্থে সার্বভৌম সম্পদ তহবিল হবে

১০ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের সার্বভৌম সম্পদ তহবিল গঠনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এর জন্য প্রয়োজনীয় আইন প্রণয়ন করা হবে।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে গতকাল সোমবার সচিবালয়ে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিসভা বৈঠকে এ বিষয়ে নীতিগত সিদ্ধান্ত হয়। দুই বিলিয়ন ডলার দিয়ে যাত্রা শুরু হলেও পাঁচ বছরে তহবিলের মোট পরিমাণ হবে ১০ বিলিয়ন ডলার। রিজার্ভ থেকে প্রতিবছর দুই বিলিয়ন করে ডলার নিয়ে এ তহবিল গঠন করা হবে।

বৈঠক শেষে মন্ত্রিপরিষদসচিব মোহাম্মদ শফিউল আলম জানান, বিশ্বের অনেক দেশেই সার্বভৌম সম্পদ তহবিল আছে। এই তহবিল সরকার জনকল্যাণে যেকোনো খাতে ব্যবহার করতে পারবে। বিশেষ করে বিদেশিদের সঙ্গে যৌথ তহবিলের ক্ষেত্রে এ ধরনের সার্বভৌম সম্পদ তহবিল থাকা জরুরি। উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ড ছাড়াও যেকোনো জরুরি প্রয়োজনে এখানে থাকা অর্থ ব্যবহার করা যাবে। বাংলাদেশ যখন বিদেশিদের সঙ্গে যৌথভাবে কোনো কাজ করে তখন ডলার দিতে হয়। জেডিসিএফ (জাপানি ঋণ মওকুফ সহায়তা তহবিল), ইসিএফ (আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিলের বর্ধিত ঋণ সহায়তা) বা কোনো বিদেশি ব্যাংক ঋণ দিয়ে বলে একটা অংশ বাংলাদেশকে দিতে হবে।

অথচ ওই অংশের ডলার দেওয়ার কোনো ব্যবস্থা বাংলাদেশে গড়ে ওঠেনি। এ তহবিল থেকে সেই সহায়তা পাওয়া যাবে।

গতকালের বৈঠকে কৃষিকাজে ভূগর্ভস্থ পানি ব্যবস্থাপনা আইনের খসড়ার নীতিগত অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এই আইন লঙ্ঘন করার যে শাস্তি ছিল তাও বাড়ানো হয়েছে। আগের আইনে সর্বোচ্চ শাস্তি ছিল দুই হাজার টাকা জরিমানা। নতুন আইনে এর পাশাপাশি সাত দিনের কারাদণ্ড অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।

এ ছাড়া গতকালের সভায় অর্থপাচার ও সন্ত্রাসে অর্থায়ন প্রতিরোধে বাংলাদেশের মিউচ্যুয়াল ইভাল্যুয়েশনের চূড়ান্ত প্রতিবেদন গ্রহণের প্রক্রিয়া মন্ত্রিসভাকে অবহিত করা হয়। মন্ত্রিপরিষদসচিব জানান, বাংলাদেশের আইনি কাঠামো পর্যালোচনা করে দেখা গেছে, টেকনিক্যাল কমপ্লায়েন্সের ক্ষেত্রে বাংলাদেশের অবস্থা উন্নত অনেক দেশের সমান। এ থেকে বলা যায়, বাংলাদেশে সেই অর্থে মানি লন্ডারিং নেই। অর্থ মন্ত্রণালয়ের ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগও মন্ত্রিপরিষদ বিভাগকে জানিয়েছে, বাংলাদেশে কোনো ধরনের অর্থপাচার ও সন্ত্রাসে অর্থায়ন হয় না।

এ ছাড়া শাস্তি বাড়িয়ে করা বাংলাদেশ চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্টস আইন-২০১৭-এর খসড়ায় নীতিগত অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা। কেউ মিথ্যার আশ্রয় নিয়ে নিজেকে সদস্য দাবি করলে এবং অবৈধভাবে সনদ প্রদান বা ব্যবহার করলে ১০ লাখ টাকা জরিমানা বা তিন বছরের জেল বা উভয় দণ্ডে দণ্ডিত হবে। আগে এটা ছিল এক হাজার টাকা জরিমানা বা ছয় মাসের জেল।

সভায় বাণিজ্য সংগঠন আইন-২০১৬-এর খসড়ায় নীতিগত অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। আওয়ামী লীগ নেতা ও সাবেক মন্ত্রী সুরঞ্জিত সেনগুপ্ত এবং জাতীয় চার নেতার একজন এ এইচ এম কামরুজ্জামানের স্ত্রী জাহানারা জামানের মৃত্যুতে মন্ত্রিসভায় শোকপ্রস্তাব গ্রহণ করা হয়।

একজন সিনিয়র মন্ত্রী কালের কণ্ঠকে জানিয়েছেন, বৈঠক শেষে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে রোহিঙ্গাদের কক্সবাজারের শরণার্থী ক্যাম্প থেকে সরিয়ে ঠেঙ্গার চরে নিয়ে যাওয়ার বিষয়ে উন্নয়ন সহযোগীদের সঙ্গে আলোচনা শুরুর নির্দেশ দিয়েছেন।


মন্তব্য