kalerkantho


সম্পাদক হয়ে কালের কণ্ঠ ছাড়লেন অমিত হাবিব

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



সম্পাদক হয়ে কালের কণ্ঠ ছাড়লেন অমিত হাবিব

নতুন একটি জাতীয় দৈনিক পত্রিকার সম্পাদক পদে যোগ দিয়েছেন দৈনিক কালের কণ্ঠ’র উপদেষ্টা সম্পাদক অমিত হাবিব। ২০০৯ সালে কালের কণ্ঠে নির্বাহী সম্পাদক হিসেবে যোগ দেওয়ার পর পত্রিকাটি প্রকাশে মুখ্য ভূমিকা পালন করেন তিনি।

অল্প সময়ের মধ্যেই রেকর্ড গড়ে প্রচারসংখ্যা আড়াই লাখ  ছাড়িয়ে যাওয়া এ পত্রিকায় ২০১৩ সাল থেকে উপদেষ্টা সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন অমিত হাবিব।

প্রচারবিমুখ সাংবাদিক অমিত হাবিব বিদায়ের মুহূর্তে কালের কণ্ঠ’র সব সহকর্মী ও কর্তৃপক্ষকে সহযোগিতার জন্য ধন্যবাদ জানিয়ে তাঁর নতুন অভিযাত্রায় সবার সহযোগিতা কামনা করেন। তিনি বলেন, ‘জন্মলগ্ন থেকে কালের কণ্ঠ কর্তৃপক্ষ ও সহকর্মীরা আমাকে সহযোগিতা করেছেন। ফলে পত্রিকাটি টিকিয়ে রাখতে আমি ভূমিকা রাখতে পেরেছি। দীর্ঘদিনের সহকর্মী ও কর্মস্থল ছেড়ে দেওয়াটা কষ্টকর হলেও আমি নতুন চ্যালেঞ্জ নিতে ভালোবাসি। নতুন পত্রিকায় কর্মসংস্থান হবে, এ পত্রিকা পাঠকের খোরাক মেটাতে পারবে বলে আমি আশা করি। ’

সাংবাদিকতায় তিন দশকের অভিজ্ঞতাসম্পন্ন অমিত হাবিবের কর্মজীবন শুরু ১৯৮৭ সালে খবর গ্রুপ অব পাবলিকেশন্সে একই সঙ্গে রিপোর্টার ও সাব-এডিটর হিসেবে। পরে সাপ্তাহিক পূর্বাভাস পত্রিকায় সাব-এডিটর পদে যোগ দেন তিনি। ওই সময় সহসম্পাদনার পাশাপাশি রাজনীতি ও টেলিভিশন নাটক বিষয়ে নিয়মিত লিখতেন তিনি।

পরে ১৯৯১ সালে সিনিয়র সাব-এডিটর হয়ে যোগ দেন দৈনিক আজকের কাগজ পত্রিকায়। পরের বছর একই পদে যোগ দেন দৈনিক ভোরের কাগজে। অল্প দিনের মধ্যে পদোন্নতি পেয়ে যুগ্ম বার্তা সম্পাদক ও পরে বার্তা সম্পাদক হন তিনি।

২০০৩ সালে দৈনিক যায়যায়দিন পত্রিকায় প্রধান বার্তা সম্পাদক হিসেবে যোগ দেন খ্যাতিমান এই সাংবাদিক। তবে পত্রিকাটি বাজারে আসে ২০০৬ সালে। পত্রিকাটি প্রকাশে মূল ভূমিকা পালনকারী অমিত হাবিব পত্রিকা প্রকাশের ছয় মাসের মধ্যে সম্পাদক কর্তৃপক্ষের সঙ্গে মতাদর্শগত বিরোধের কারণে যায়যায়দিন ছাড়েন। ২০০৭ সালে চীনের আন্তর্জাতিক বেতারে বিদেশি বিশেষজ্ঞ হিসেবে যোগ দিয়ে পেইচিংয়ে কর্মরত থাকা অমিত হাবিব দেশীয় সাংবাদিকতার সঙ্গে দূরত্বের কথা বিবেচনায় তা ছেড়ে দেশে ফিরে আসেন এবং ২০০৮ সালে দৈনিক সমকালে প্রধান বার্তা সম্পাদক হিসেবে যোগ দেন।


মন্তব্য