kalerkantho

৫৪ বছর ধরে...

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭ ০০:০০



৫৪ বছর ধরে...

১৯৬৩ সালের জানুয়ারি মাস। কিছুদিন আগেই চীন-ভারত যুদ্ধ শেষ হয়েছে।

দুই দেশের মধ্যে উত্তেজনা তখনো চলছে। সে সময় চীন-ভারত সীমান্তে সার্ভেয়ারের কাজ করছিলেন ওয়াং চি। উদ্দেশ্য ছিল সীমান্ত অঞ্চলে  চীনের সেনাবাহিনীর জন্য রাস্তা তৈরি করা। কাজের সময় ওয়াং চি সীমান্ত পেরিয়ে ভারতীয় অংশে ঢুকে পড়েন। কিন্তু আর ফিরে যেতে পারেননি। ৫৪ বছর ধরে ভারতে আটকে আছেন ওয়াং চি।

বিবিসিকে দেওয়া এক সাক্ষাত্কারে ওয়াং চি বলেন, সীমান্ত অঞ্চলে কাজ করার সময় তিনি বুঝতেই পারেননি যে ভারতীয় অংশে ঢুকে পড়েছেন। এরপর তিনি পথ হারিয়ে ফেলেন। নিজের গন্তব্য খুঁজতে দীর্ঘপথ হেঁটে ক্লান্ত এবং ক্ষুধার্ত হয়ে পড়েন চি।

একপর্যায়ে রেড ক্রসের একটি গাড়ির দেখা মেলে। চি তাদের কাছে সাহায্য চান। তখন রেড ক্রসের কর্মকর্তারা তাঁকে ভারতীয় সেনাবাহিনীর হাতে তুলে দেন। তাঁর ঠাঁই হয় কারাগারে। সাত বছর কারাভোগের পর ১৯৬৯ সালে আদালত তাঁকে মুক্তি দেয়। এরপর পুলিশ তাঁকে ভারতের মধ্য প্রদেশের তিরোদি গ্রামে নিয়ে যায়। সেই থেকে ওয়াং চি সেখানেই থাকছেন। কারণ সেই গ্রাম ছেড়ে যেতে তাঁকে অনুমতি দেওয়া হয়নি।

১৯৭৫ সালে তিনি সেই গ্রামের এক নারী সুশীলাকে বিয়ে করেন। এখন ছেলেমেয়ে ও নাতি-নাতনিও আছে তাঁর সংসারে।

প্রায় ৪০ বছর পর ২০০২ সালে ওয়াং চি তাঁর মায়ের সঙ্গে টেলিফোনে কথা বলেন। ২০০৬ সালে চির মা তাঁকে শেষবার দেখতে চেয়েছিলেন। কিন্তু সেটি আর সম্ভব হয়নি। কারণ চীনে ফিরে যাওয়ার জন্য তাঁর কাছে কোনো কাগজপত্র ছিল না। ২০০৬ সালে তাঁর মা মারা যান। ২০০৯ সালে চির ভাতিজা পর্যটক হিসেবে ভারতে এসে তাঁর সঙ্গে দেখা করেন। ২০১৩ সালে ভারতে চীনের দূতাবাস তাঁকে পাসপোর্ট পেতে সহায়তা করে। তবে ওয়াং চি চীনে যেতে পারবেন কি না সেটি এখনো পরিষ্কার নয়। পারলেও তিনি আবার ভারতে ফিরে আসতে পারবেন কি না সেটিও অনিশ্চিত। সূত্র : বিবিসি।


মন্তব্য