kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


জঙ্গিবাদ দমনে হাসিনার অকুণ্ঠ প্রশংসা মোদির

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৮ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



জঙ্গিবাদ দমনে হাসিনার অকুণ্ঠ প্রশংসা মোদির

গুলশান হামলার পর বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেওয়া পদক্ষেপগুলো জঙ্গি ও সন্ত্রাসবাদ দমনে যথেষ্ট কার্যকর বলে মনে করছেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। গত রবিবার ব্রিকস-বিমসটেক আউটরিচ সম্মেলনের ফাঁকে আয়োজিত বৈঠকে তিনি শেখ হাসিনাকে বলেছেন, ‘কিভাবে সন্ত্রাসবাদ নিয়ন্ত্রণ করা যায় সে বিষয়ে অন্য দেশগুলোর জন্য অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে বাংলাদেশ।

’ বাংলাদেশ সরকারের নেওয়া উদ্যোগের প্রশংসা করতে গিয়ে তিনি বলেন, শুধু জনগণের দৃঢ় সমর্থন নিয়েই জঙ্গিবাদ নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব।   

দুই প্রধানমন্ত্রীর দ্বিপক্ষীয় ওই বৈঠকের আলোচ্য বিষয়বস্তু তুলে ধরে ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বিকাশ স্বরূপ গতকাল সোমবার গোয়ায় সম্মেলনস্থলে সাংবাদিকদের এ কথা জানান।

কাশ্মীরে সেনা ঘাঁটিতে সাম্প্রতিক জঙ্গি হামলার পর পাকিস্তানের সঙ্গে ভারতের সম্পর্কে নতুন করে টানাপড়েন সৃষ্টি হয়েছে। এ অবস্থায় এবারের ব্রিকস-বিমসটেক সম্মেলনে জঙ্গিবাদ নির্মূলের ওপর জোর দেন মোদি।

দ্বিপক্ষীয় বৈঠকের পর বাংলাদেশের পররাষ্ট্রসচিব শহীদুল হক সাংবাদিকদের বলেছিলেন, ‘ভারতের প্রধানমন্ত্রী আমাদের প্রধানমন্ত্রীর কাছে জানতে চেয়েছেন যে তিনি (হাসিনা) কিভাবে (জঙ্গিবাদ দমনে) সফল হয়েছেন?’

জবাবে শেখ হাসিনা জনসচেতনতার কথা বলেছিলেন বলে প্রধানমন্ত্রীর প্রেসসচিব ইহসানুল করিম জানান। তিনি পরে সাংবাদিকদের বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী বৈঠকে সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে জনসচেতনতার কথা তুলে ধরেছেন। বলেছেন, সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে পারিবারিকভাবে সচেতনতা সৃষ্টি করা হচ্ছে। মসজিদের ইমাম সাহেবরা সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে কথা বলছেন। ’

বিকাশ স্বরূপ জঙ্গিবাদ দমনে বাংলাদেশের কার্যক্রমের প্রশংসা করে মোদিকে উদ্ধৃত করে সাংবাদিকদের বলেন, ‘জনগণের দৃঢ় সমর্থন নিয়েই কেবল জঙ্গিবাদ দমন করা সম্ভব। ’

গত জুলাইয়ে গুলশানে হলি আর্টিজান বেকারিতে জঙ্গি হামলায় ১৭ বিদেশিসহ ২২ জন নিহত হয়। এরপর বাংলাদেশে জঙ্গিবিরোধী অভিযানে এ পর্যন্ত দুই ডজনের বেশি জঙ্গি নিহত হয়েছে। জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানসহ সবক্ষেত্রে জনসচেতনতা তৈরিতে পদক্ষেপ নিয়েছে সরকার।

বিকাশ স্বরূপ বলেন, গুলশান হামলার পর বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে সবাইকে এক করতে যেভাবে জেলায় জেলায় যোগাযোগ করেন এবং ইমামদের জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে জড়িত করেন তার প্রশংসা করেছেন মোদি। জবাবে বাংলাদেশে জঙ্গিবাদের বিরুদ্ধে ব্যাপক জনসচেতনতা রয়েছে বলে মন্তব্য করেন শেখ হাসিনা। ’ বিকাশ বলেন, প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, জঙ্গিবাদের হুমকি কিভাবে মোকাবিলা করতে হয় সে বিষয়ে সব দেশের জন্য বাংলাদেশ নতুন দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছে। ’

জঙ্গিবাদবিরোধী পদক্ষেপে শেখ হাসিনার সরকারের পেছনে পুরো বাংলাদেশ এক হওয়ায় গুলশান-শোলাকিয়ার পর এ ধরনের আর কোনো হামলার ঘটনা ঘটেনি বলে মন্তব্য করেন বিকাশ স্বরূপ। জঙ্গিবাদ দমনে বাংলাদেশ-ভারত যৌথ কার্যক্রম হাতে নিয়েছে এবং তা যথাযথভাবে কাজ করছে বলেও সাংবাদিকদের জানান তিনি। সূত্র : বিডিনিউজ, পিটিআই, ইন্ডিয়া টিভি।


মন্তব্য