kalerkantho

শনিবার । ৩ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


নিউ ইয়র্কে প্রধান বিচারপতি

বাংলাদেশে আর কখনো মার্শাল ল আসবে না

নিউ ইয়র্ক প্রতিনিধি   

১৮ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



বাংলাদেশে আর কখনো মার্শাল ল আসবে না

প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার সিনহাকে গতকাল নিউ ইয়র্কে সংবর্ধনা দেয় বাংলাদেশ ল সোসাইটি ইউএসএ। ছবি : সৌজন্যে

বাংলাদেশে আর কখনো সামরিক শক্তি ক্ষমতায় আসার সুযোগ নেই বলে মন্তব্য করেছেন প্রধান বিচারপতি সুরেন্দ্র কুমার (এস কে) সিনহা। তিনি বলেন, ‘অনেক আগেই মার্শাল লর কবর রচিত হয়েছে।

সামরিক আইন যাতে আর ফিরে আসতে না পারে, সেটি সংবিধানে সন্নিহিত করা হয়েছে। ’

যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কে স্থানীয় সময় রবিবার সন্ধ্যায় এক সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে প্রধান বিচারপতি এসব কথা বলেন। প্রবাসী বাংলাদেশি অধ্যুষিত এস্টোরিয়ার ক্লাব সনমে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করে বাংলাদেশ ল সোসাইটি ইউএসএ। যুক্তরাষ্ট্রে আইন পেশার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিরা ও বিপুলসংখ্যক প্রবাসী বাংলাদেশি  অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘বাংলাদেশের বিচার বিভাগ সম্পূর্ণ স্বাধীন। এত দিন বিচার বিভাগকে সরকারের অঙ্গ মনে করা হতো। এখন সেই ধারণা পাল্টেছে। তবে বিচার বিভাগ রাষ্ট্রের একটা অঙ্গ। বিচার বিভাগ নিরপেক্ষ না থাকলে মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠিত হয় না। বিচার বিভাগের অনিয়ম দূর করে স্থিতিশীলতা ফিরিয়ে আনতে আরেকটু সময় প্রয়োজন। ’

এস কে সিনহা বলেন, ‘বাংলাদেশে কোনো অন্যায় কাজ সুপ্রিম কোর্ট থাকতে হতে পারবে না। কোনো ধরনের অন্যায় দেখলেই বিচার বিভাগ সেখানে হস্তক্ষেপ করবে। ’ এ সময় তিনি কিছু সরকারি কর্মকর্তা এখনো দুর্নীতিগ্রস্ত আছে বলে মন্তব্য করেন।

প্রধান বিচারপতি বলেন, ‘বাংলাদেশের আদালতে মামলাজট আগের চেয়ে অনেক কমেছে। আইনজীবীরাও এখন সকাল-বিকেল দুই বেলায় তাঁদের মক্কেলদের সময় দিচ্ছেন। ’ তিনি বলেন, ‘ধীরে ধীরে বাংলাদেশের আদালতগুলোর কার্যক্রম ডিজিটাল করা হচ্ছে। পাশাপাশি আদালত যে সর্বশেষ আশ্রয়স্থল, সেটা এখন মানুষ উপলব্ধি করেছে কাঙ্ক্ষিত ফল পাওয়ার পর। ’

সংগঠনের সভাপতি অ্যাডভোকেট মোর্শেদা জামানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন প্রধান বিচারপতির সফরসঙ্গী বিচারপতি এম আর হাসান, সংসদ সদস্য ওয়ারিজা হোসেন বেলাল, জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি মাসুদ বিন মোমেন, নিউ ইয়র্কে বাংলাদেশের কনসাল জেনারেল শামীম আহসান, অ্যাটর্নি অশোক কর্মকার, অ্যাটর্নি মঈন চৌধুরী, সংগঠনের সহসভাপতি এ এস এম ফেরদৌস, সংগঠনের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট আবদুল ওয়াহিদ প্রমুখ।

অনুষ্ঠানের শুরুতে বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় সংগীত পরিবেশন করা হয়। পরে ফুল দিয়ে প্রধান বিচারপতি এস কে সিনহাকে বরণ করে নেওয়া হয়। প্রধান বিচারপতিকে সম্মাননা তুলে দেন সংগঠনের সভাপতি অ্যাডভোকেট মোর্শেদা জামান।


মন্তব্য