kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ ডিসেম্বর ২০১৬। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


অভিযোগকে ষড়যন্ত্র বললেন ট্রাম্প

আরো দূরে সরে যাচ্ছে বিজয়ের সম্ভাবনা

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৫ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



আরো দূরে সরে যাচ্ছে বিজয়ের সম্ভাবনা

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রিপাবলিকান প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্প তাঁর বিরুদ্ধে আনা যৌন অসদাচরণের অভিযোগ ‘একেবারেই মিথ্যা’ এবং ‘আমেরিকার জনগণের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্র’ বলে মন্তব্য করেছেন। তিনি অভিযোগকারী দুই নারীকে ‘ভয়ংকর মিথ্যাবাদী’ বলে অভিহিত করেন।

এসব অভিযোগের জন্য তিনি মিডিয়াকে তীব্রভাবে দোষারোপ এবং ডেমোক্র্যাট প্রার্থী হিলারি ক্লিনটনের সঙ্গে মিডিয়া আঁতাত করেছে বলেও অভিযোগ করেন। যৌন অসদাচরণের মিথ্যা অভিযোগ প্রকাশের জন্য তিনি নিউ ইয়র্ক টাইমসের বিরুদ্ধে মামলার হুমকিও দিয়েছেন।

গত বৃহস্পতিবার ফ্লোরিডায় নির্বাচনী প্রচার চালানোর সময় সমর্থকদের উদ্দেশে ডোনাল্ড ট্রাম্প এ বক্তব্য দেন। গত বুধবার নতুন করে দুই নারী ট্রাম্পের বিরুদ্ধে অসম্মানজনক স্পর্শের (গ্রুপিং) অভিযোগ আনার পর তিনি নিজের পক্ষে এ সাফাই গাইলেন। তবে অভিযোগ অস্বীকার এবং মিডিয়ার বিরুদ্ধে মামলার হুমকি ভোটারদের মতামত জরিপের ফলে কোনো প্রভাব ফেলতে পারেননি ট্রাম্প। ফক্স নিউজের সর্বশেষ জরিপে তাঁর চেয়ে সাত পয়েন্ট এগিয়ে রয়েছেন তাঁর প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী হিলারি ক্লিনটন।

বৃহস্পতিবার ফ্লোরিডায় সমর্থকদের উদ্দেশে বক্তব্য দিতে গিয়ে ডোনাল্ড ট্রাম্প যৌন অসচারণের অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করে বলেন, এগুলো ‘সম্পূর্ণভাবে এবং একেবারেই মিথ্যা’। অভিযোগকারী নারীদের ‘ভয়ংকর মিথ্যাবাদী’ উল্লেখ করে ট্রাম্প বলেন, মিডিয়া হিলারির সঙ্গে আঁতাত করে এসব অভিযোগ এনেছে।

ট্রাম্প এই বক্তব্য দেওয়ার আগে নিউ হ্যাম্পশায়ারে এক নির্বাচনী প্রচার অনুষ্ঠানে ফার্স্ট লেডি মিশেল ওবামা বলেন, নারীদের অসম্মানজনকভাবে স্পর্শ করা ট্রাম্পের ‘গর্ব’ বেদনাদায়ক ও অবমাননাকর। তিনি বলেন, ‘মানবিক শিষ্টাচারের বিষয়ে নেতাদের একটি মৌলিক মান বজায় রাখতে হয়। ’

প্রসঙ্গত, নিউ ইয়র্ক টাইমস গত বুধবার এক প্রতিবেদনে জানায়, ডোনাল্ড ট্রাম্প নারীদের সঙ্গে যৌন অসদাচরণ করেছিলেন। তাঁদের মধ্যে এক নারী অভিযোগ করেন, ট্রাম্প তাঁকে জোরপূর্বক চুমু দিয়েছিলেন। অন্য নারী বলেন, ট্রাম্প তাঁর নিতম্বে হাত দিয়েছিলেন।

নিউ ইয়র্ক টাইমসের এই প্রতিবেদনের পর বৃহস্পতিবার ফ্লোরিডায় প্রথমবারের মতো জনতার সামনে আসেন রিপাবলিকান প্রার্থী। এ দিন তিনি রাজ্যের ওয়েস্ট পাম বিচে এক নির্বাচনী সভায় বক্তব্য দেন। এ সময় তিনি বলেন, ‘এই গল্প (অসম্মানজনক স্পর্শ) আমেরিকার জনগণের বিরুদ্ধে রাজনৈতিক ও মিডিয়া এস্টাবলিশমেন্টদের একটি ষড়যন্ত্র। ’ তিনি বলেন, অভিযোগগুলো যে ভিত্তিহীন তার প্রমাণ তাঁর কাছে রয়েছে। যথাযথ সময়ে তিনি এই প্রমাণ হাজির করবেন বলে জানান।

ট্রাম্প বলেন, ‘মিডিয়া আপনারা এবং আপনাদের পরিবারকে ধ্বংস করার কাজে লিপ্ত হয়েছে। এ সময় তিনি নিউ ইয়র্ক টাইমসের বিরুদ্ধে মামলার হুমকি দেন। ’ তবে পত্রিকাটিও সঙ্গে সঙ্গে এর জবাব দিয়েছে। নিউ ইয়র্ক টাইমস ট্রাম্পের আদালতে যাওয়ার সিদ্ধান্তকে স্বাগত জানিয়েছে।

ট্রাম্পের বিজয়ের সম্ভাবনা আরো দূরে সরে গেছে : গতকাল মার্কিন গণমাধ্যম সিএনএন এক নিবন্ধে বলেছে, নির্বাচনে রিপাবলিকান প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিজয়ের সম্ভাবনা দিনকে দিনকে দূরে চলে যাচ্ছে। ‘বিজয়ের পথ ফুরিয়ে আসছে ট্রাম্পের’ শীর্ষক ওই নিবন্ধে বলা হয়, ডোনাল্ড ট্রাম্প বৃহস্পতিবার ফ্লোরিডায় এক উজ্জীবনী ভাষণ দেন। এ সময় তিনি এবারের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনকে ‘আমেরিকার জনগণের টিকে থাকার লড়াই’ হিসেবে আখ্যায়িত এবং হোয়াইট হাউসে যাওয়ার পথে জয়লাভের প্রত্যয় ব্যক্ত করেন। তবে আর মাত্র ২৫ দিন হাতে রেখে ২৭০টি ইলেকটোরাল ভোট পাওয়া অনেক অসম্ভব ব্যাপার তাঁর পক্ষে। বিভিন্ন রাজ্যে অতীতের আলোকে নির্বাচনী পরিস্থিতি মূল্যায়ন এবং মতামত জরিপে হিলারির এগিয়ে থাকার বিষয়টি তুলে ধরে ট্রাম্পের বিজয়ের সম্ভাবনা কমে আসার এই ভবিষ্যদ্বাণী করা হয় নিবন্ধটিতে।

জরিপে এগিয়ে হিলারি : নির্বাচনের আর মাত্র ২৫ দিন বাকি থাকা অবস্থায় ফক্স নিউজ নিজেদের পরিচালিত এক মতামত জরিপের ফল গতকাল প্রকাশ করেছে। এতে দেখা যায়, ৪৫ শতাংশ ভোটার হিলারিকে পছন্দ করছে। ট্রাম্পকে পছন্দ করছে ৩৮ শতাংশ ভোটার। এ ছাড়া লিবারটেরিয়ান প্রার্থী গ্যারি জনসনকে পছন্দ করছে সাত শতাংশ এবং গ্রিন পার্টির প্রার্থী জিল স্টেইনকে পছন্দ করছে তিন শতাংশ মানুষ।

ট্রাম্পের জন্য রিপাবলিকান নেতাদের প্রতি বিষোদ্গার ওবামার : বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় ওহাইও রাজ্যে হিলারির পক্ষে পৃথক নির্বাচনী প্রচার অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা। এ সময় তিনি বলেন, রিপাবলিকানরা গত কয়েক দশক ধরে যে নোংরা পরিস্থিতির সৃষ্টি করেছেন ট্রাম্প তারই ফসল। এ সময় তিনি ট্রাম্পের মতো একজন ‘নিজ থেকে ঘোষিত একজন অযোগ্য’ প্রার্থীকে সমর্থন দেওয়ার জন্য রিপাবলিকান নেতাদের তীব্র সমালোচনা করেন।

হিলারি শিবিরের সমালোচনায় ক্যাথলিক নেতারা : উইকিলিকসের প্রকাশ করা একটি ই-মেইল বার্তা নিয়ে হিলারির প্রচার শিবিরের প্রতি চটেছেন ক্যাথমিক নেতারা। হিলারির প্রচারাভিযানে নিযুক্ত শীর্ষস্থানীয় দুই কর্মকর্তার মধ্যে ২০১১ সালে ওই ই-মেইল আদান-প্রদান করা হয়, যাতে ক্যাথলিকদের নিয়ে কটাক্ষ করা হয়। তাঁরা হলেন ক্লিনটন কমিউনিকেশন পরিচালক জেনিফার পালমেইরি এবং সেন্টার ফর আমেরিকান প্রোগ্রেসের সিনিয়র ফেলো জন হেলপিং। তাঁরা দুজনই হিলারির নির্বাচনী প্রচারাভিযানে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করছেন। গত বৃহস্পতিবার এক বিবৃতিতে কয়েক ডজন ধর্মীয় নেতা তাঁদের ই-মেইল বার্তাকে ‘অবমাননাকর’ বলে আখ্যায়িত করেছেন। এ ঘটনায় ট্রাম্প শিবির হিলারিকে ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান জানিয়েছে।

ট্রাম্পের প্রার্থিতা প্রত্যাহার করতে অর্থ জোগানদাতাদের আহ্বান : ডোনাল্ড ট্রাম্পের প্রার্থিতা প্রত্যাহারের জন্য রিপাবলিকান পার্টির নেতাদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন দলটির অর্থ জোগানদাতারা। নিউ ইয়র্ক টাইমসে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে যৌন হয়রানির অভিযোগ আসার পর তাঁরা এই আহ্বান জানান। তাঁদের একজন মিশৌরির ব্যবসায়িক ডেভিড হামপ্রেইজ। তিনি গত বছর রিপাবলিকান পার্টিকে আড়াই মিলিয়ন ডলার অর্থ চাঁদা দিয়েছেন। তিনি নিউ ইয়র্ক টাইমসকে বলেন, ‘একটা পর্যায়ে আমাদের আয়নার সামনে দাঁড়াতে হয় এবং স্বীকার করতে হবে যে আমরা ট্রাম্পকে সমর্থন দেওয়ার বিষয়টি বৈধতা দিতে পারি না। ’ একই ধরনের আহ্বান জানিয়েছেন আরেক দাতা ক্যালিফোর্নিয়ার বিনিয়োগকারী উইলিয়াম ওবার্নড্রফসহ আরো অনেকে। সূত্র : বিবিসি, এএফপি, সিএনএন।


মন্তব্য