kalerkantho

শনিবার । ৩ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


খালেদা জিয়ার বিবৃতি

বিএনপি সবার ধর্মীয় স্বাধীনতা রক্ষায় প্রতিশ্রুতিবদ্ধ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১১ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



বিএনপি সবার ধর্মীয় স্বাধীনতা রক্ষায় প্রতিশ্রুতিবদ্ধ

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বলেছেন, ‘বাংলাদেশ ধর্মীয় সম্প্রীতির দেশ। যেকোনো ধরনের অশুভ তৎপরতা সম্পর্কে ধর্ম-বর্ণ-নির্বিশেষে সবাইকে সজাগ থাকতে হবে।

বিএনপি এ দেশের প্রত্যেক মানুষের ধর্মীয় স্বাধীনতা রক্ষায় প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। আমরা সংখ্যাগুরু ও সংখ্যালঘু তত্ত্বে বিশ্বাস করি না। আমরা সবাই বাংলাদেশি—এটাই হোক আমাদের বড় পরিচয়। ’

শারদীয় দুর্গাপূজা ও বিজয়া দশমী উপলক্ষে গতকাল সোমবার দেওয়া এক বিবৃতিতে বিএনপি চেয়ারপারসন এসব কথা বলেন। তিনি হিন্দুধর্মাবলম্বী সবাইকে আন্তরিক শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন জানিয়ে তাদের সুখ, শান্তি ও কল্যাণ কামনা এবং শারদীয় দুর্গোৎসবের সর্বাঙ্গীণ সাফল্য কামনা করেন।

দলের যুগ্ম মহাসচিব মোয়াজ্জেম হোসেন আলাল স্বাক্ষরিত বিবৃতিতে খালেদা জিয়া বলেন, শারদীয়  দুর্গাপূজা বাংলাদেশসহ এ উপমহাদেশের সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব। সুদীর্ঘকাল ধরে এই ধর্মীয় উৎসব সাড়ম্বরে পালিত হয়ে আসছে। তিনি বলেন, ‘যেকোনো ধর্মীয় উৎসবই মানুষে মানুষে নিবিড় বন্ধন রচনা করে ও ভ্রাতৃত্ববোধ জাগ্রত করে। সব ধর্মের মর্মবাণী শান্তি ও মানবকল্যাণ। মানুষ হিসেবে হিংসা-বিদ্বেষ ও রক্তারক্তি পরিহার করে সমাজে শান্তি ও সাম্য প্রতিষ্ঠায় ব্রতী হওয়া আমাদের সবার কর্তব্য। দুর্গাপূজার অন্তর্নিহিত বাণীই হচ্ছে হিংসা, লোভ ও ক্রোধরূপী অসুরকে বিনাশ করে সমাজে স্বর্গীয় শান্তি প্রতিষ্ঠা করা; যেখানে ন্যায় ও সুবিচার নিশ্চিত হবে। ’

বিএনপিপ্রধান আরো বলেন, নির্যাতন, নিপীড়ন ও প্রতিহিংসা চরিতার্থ করার মধ্য দিয়ে যারা সমাজ ও মানবসভ্যতাকে ধ্বংস করতে চায়, প্রতিষ্ঠা করতে চায় দুঃশাসন, তাদের বিরুদ্ধে সংগ্রাম করে মানবকল্যাণ প্রতিষ্ঠা এই উপাসনার মূল লক্ষ্য। সেই বাণীকে আত্মস্থ করেই দুর্গাপূজার উৎসবের আনন্দ সবাই মিলে ভাগ করে নিতে হবে।

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর পৃথক বিবৃতিতে শারদীয় দুর্গাপূজার সার্বিক সাফল্য কামনা করেন।


মন্তব্য