kalerkantho

রবিবার। ৪ ডিসেম্বর ২০১৬। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


কারসাজি করে বাড়ানো হচ্ছে চালের দাম!

এম সায়েম টিপু   

৯ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



কারসাজি করে বাড়ানো হচ্ছে চালের দাম!

কিছুদিন ধরে বাড়ছে চালের দাম। গত দুই সপ্তাহে মোটা চালের দাম বেড়েছে কেজিপ্রতি সাত-আট টাকা।

নাজিরশাইল ও মিনিকেটের মতো সরু চালের দাম বেড়েছে কেজিতে চার-পাঁচ টাকা। বাজারে চালের এই দাম বাড়ার যৌক্তিক কোনো কারণ দেখছেন না সাধারণ ব্যবসায়ীরা। তবে অনেক খুচরা ব্যবসায়ীর অভিযোগ, চালের দাম বাড়ার জন্য দায়ী বড় চালকল মালিকরা। দাম বাড়াতে তাঁরা বাজারে কৃত্রিম সংকট তৈরি করেছেন মোটা চালের। এ ছাড়া তেল ও চিনির দামও বাড়তির দিকে। পরিবেশকরা তেল সরবরাহ করছেন না। খুচরা ব্যবসায়ীরা জানান, শিগগিরই তেল ও চিনির দাম বাড়ানোর অসদুদ্দেশ্যে বাজারে সরবরাহ কমিয়ে দিয়েছেন পরিবেশকরা।

গতকাল শনিবার রাজধানীর কয়েকটি বাজারে গিয়ে দেখা যায়, প্রতি কেজি মোটা চাল (স্বর্ণা) ৩৬ থেকে ৩৮ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। সরু চাল বিক্রি হচ্ছে ৪৮ থেকে ৫৬ টাকা দরে। তবে কোনো কোনো বাজারে দুই-তিন টাকা বেশি দামেও বিক্রি হতে দেখা গেছে। ব্যবসায়ীরা জানান, গত দুই সপ্তাহে চালের দাম বেড়েছে কেজিপ্রতি ছয় থেকে আট টাকা। বেশি বেড়েছে মোটা চালের দাম। সরু চালের (নাজিরশাইল ও মিনিকেট) দাম বেড়েছে চার-পাঁচ টাকা।

কারওয়ান বাজার চাল ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক ও জনপ্রিয় রাইস মিলের স্বত্বাধিকারী লোকমান হোসেন কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘মোটা চালের দাম বাড়াতে বাজারে কৃত্রিম সংকট তৈরি করেছে মিল মালিকরা। তারা কম দামে ধান মজুদ করে এখন বেশি দামে বিক্রি করছে। ফলে বাজারে মোটা চালের সংকট তৈরি হয়েছে। ’

মোহাম্মদপুর কৃষি মার্কেটের মানিকগঞ্জ এন্টারপ্রাইজের স্বত্বাধিকারী কালিদাস সাহা জানান, সরু চালের তুলনায় গত তিন-চার মাসে মোটা চালের দাম বেড়েছে গড়ে ১০ টাকা। আগে যে মোটা চাল ২৪ থেকে ২৬ টাকায় পাওয়া যেত, সেই চাল বর্তমানে বিক্রি হচ্ছে ৩৬ থেকে ৩৭ টাকায়। কেন বাড়ছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘চালকল থেকে চাল আনতে গেলে মালিকরা জানায় সরকার ফড়িয়া দালাল দিয়ে চাল সংগ্রহ করায় কৃষকের হাতে ধান নেই। তাই হাটে ধান পাওয়া যায় না। ফলে দাম বাড়ছে। ’ তিনি অভিযোগ করেন, এ ব্যাপারে সরকারেরও কোনো উদ্যোগ নেই। একসময় বাজারে চালের দাম বাড়লে সরকার ভিজিএফ, ট্রাক সেল বা ওএমএসের মাধ্যমে চাল সরবরাহ করত। এবার এ পর্যন্ত কোনো উদ্যোগ নেই। তিনি মনে করেন, শুল্ক শিথিল করে ভারত থেকে চাল আমদানি করলে এখনই কেজিপ্রতি তিন-চার টাকা দাম কমে যাবে।

কয়েকজন ব্যবসায়ীর মতে, গত বছরের তুলনায় এবার চালের উৎপাদন খরচ বেড়ে যাওয়াও দাম বাড়ার একটি কারণ। এ ছাড়া উত্তরাঞ্চলে বন্যার কারণে চালের উৎপাদন কমে যাওয়ায় দাম বেড়েছে বলেও দাবি করেন কেউ কেউ।

কারওয়ান বাজারের খুচরা ব্যবসায়ী সোবহান স্টোরের আবদুস সোবহান জানান, গত ১০-১২ দিনে বাজারে মোটা চালের দাম বেড়েছে কেজিপ্রতি সাত-আট টাকা। যে মোটা চাল দুই সপ্তাহ আগে ৩২-৩৩ টাকা দরে বিক্রি হয়েছে, বর্তমানে একই চাল বিক্রি হচ্ছে ৩৮ থেকে ৪০ টাকায়। তিনি বলেন, ‘মিলে চালের সংকট—এ কথা বলে বেশি দামে চাল বিক্রি করছে পাইকারি ব্যবসায়ীরা। ’

দিনাজপুর চালকল মালিক গ্রুপের সাবেক সভাপতি মোসাদ্দেক হোসেন অবশ্য বলেন, বোরো চালের মৌসুম শেষ হয়েছে প্রায় দুই মাস আগে। এক মাসের মধ্যে আমন আসবে। তাই বাজারে ধান সরবরাহ কম হওয়ায় কেজিপ্রতি দু-এক টাকা করে মোটা চালের দাম বেড়েছে। বর্তমানে মিল মালিকরা মোটা চাল বিক্রি করছেন ৩৬-৩৭ টাকায়। এক মাস আগে একই চাল বিক্রি হয়েছে ৩৪-৩৫ টাকায়। আর সরু চাল বিক্রি করা হচ্ছে ৪০-৪২ টাকায়, যা ছিল ৩৭-৩৮ টাকা। তিনি আরো বলেন, সরকার একটু দেরি করে ধান-চাল কেনার ফলে বাজারে চালের সরবরাহ কিছুটা কমেছে। তবে ভোক্তাদের কাছে চালের কোনো সংকট নেই। কারণ সরকার ১০ টাকা কেজিতে চাল সরবরাহ করছে থানা ও ইউনিয়ন পর্যায়ে।

কৃষি মার্কেটে বাজার করতে আসা মুহিব মিয়া ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, কৃষকের ভালোর জন্য সরকার ভর্তুকি দিয়ে চাল কিনছে। সেই চাল আমলারা ফরিয়ার মাধ্যমে সংগ্রহ করায় কৃষক ন্যায্য দাম পাচ্ছে না। অন্যদিকে সাধারণ ভোক্তাদের বেশি দামে চাল কিনে খেতে হচ্ছে।

অন্যদিকে শেষ হতে চলেছে ইলিশের মৌসুম। চলতি মৌসুমে প্রচুর ইলিশ ধরা পড়ে। আগের কয়েক বছরের তুলনায় এবার ইলিশের দামও ছিল কম। কিন্তু কয়েক দিন ধরে বাড়তে শুরু করেছে এর দাম। গতকাল বাজারে এক কেজি ওজনের এক হালি ইলিশ বিক্রি হয় তিন হাজার ৬০০ থেকে তিন হাজার ৮০০ টাকায়, কয়েক দিন আগেও যা দুই হাজার ৬০০ থেকে দুই হাজার ৮০০ টাকায় পাওয়া গেছে।

সবজির বাজারও বেশ চড়া। প্রতি কেজি ঢেঁড়স বিক্রি হচ্ছে ৫০-৫৫, পেঁপে ৩০, ঝিঙা ৫০, কাকরোল ৫০, শসা ৪০-৫০, বরবটি ৫০-৬০, টমেটো ১০০-১১০, চিচিঙ্গা ৫০-৬০ টাকায়। কাঁচা মরিচ ১২০-১৪০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে। প্রতি কেজি দেশি পেঁয়াজ ৩৫-৪০, ভারতীয় পেঁয়াজ ২০-৩০ টাকা।


মন্তব্য