kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


কিশোরের ২০ সেমি লেজ

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৯ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



কিশোরের ২০ সেমি লেজ

 ২০ সেন্টিমিটার লম্বা লেজ নিয়ে চলাফেরা করেছে ১৮ বছর বয়সী কিশোরটি। লোকনিন্দার ভয়ে ভারতের মহারাষ্ট্র রাজ্যের নাগপুরের ওই কিশোর ও তার পরিবার এত দিন গোপন রেখেছিল মেরুদণ্ডের নিচ থেকে গজানো এই লেজের বিষয়টি।

কিন্তু সপ্তাহখানেক আগে অসহ্য যন্ত্রণা শুরু হলে তারা একজন চিকিৎসকের শরণাপন্ন হয়। পরে নাগপুরের সরকারি সুপার স্পেশালিটি হাসপাতালে লেজটি সফল অস্ত্রোপচার করে কাটা হয়েছে।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই কিশোরের মা বলেন, ‘শরীরের বাইরের দিকে লেজ গজানো একটি সমস্যা হয়ে উঠেছিল। প্রতিবার পোশাক পরিবর্তনের সময় লেজটি তুলে ধরতে হতো ওর। এটি ওর জন্য বেশ বিরক্তিকর ও বেদনাদায়ক হয়ে উঠেছিল, তাই আমি ওকে হাসপাতালে নিয়ে এসেছি। ’

চিকিৎসকরা জানিয়েছেন, গর্ভাবস্থায় থাকার সময়ই সম্ভবত মেরুদণ্ডের বিকৃতির কারণে লেজটির উৎপত্তি হয়েছিল; কিন্তু কিশোরটির বয়স বাড়ার পর লেজটি দেহের বাইরে বের হয়ে আসে বলে মনে হচ্ছে। ডা. প্রমোদ গিরি বলেন, ‘লেজটি বড় হওয়ার পর ছেলেটির পেছন দিকে চাপ দিতে শুরু করে। শারীরিক ও মানসিকভাবে এটি তার জন্য বিরক্তিকর ছিল। ’

মানব শরীরে গাজানো ‘লেজ’ অপসারণ একটি জটিল প্রক্রিয়া। একজন অভিজ্ঞ নিউরো সার্জনের তত্ত্বাবধানে এই অস্ত্রোপচারটি করতে হয়। অস্ত্রোপচারের পর ওই ছেলেকে বেশ কয়েক দিন হাসপাতালে থাকতে হচ্ছে। এরপর লেজহীন অবস্থা নিশ্চিত হওয়ার পর তাকে বাসায় যাওয়ার অনুমতি দেওয়া হবে।

মানুষের শরীরে ‘লেজ’ গজানোর ঘটনা বেশ বিরল। এ পর্যন্ত মানব শরীরে গজানো লেজগুলোর মধ্যে এটিই সবচেয়ে বড় বলে ধারণা করা হচ্ছে। চিকিৎসাবিজ্ঞানের ভাষায় একে নিউরো ডেভেলপমেন্ট অ্যাবনরমালিটি বলা হয়। সূত্র : বিবিসি।


মন্তব্য