kalerkantho

শুক্রবার । ৯ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৮ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


কাশ্মীরে ভারতীয় সেনাঘাঁটিতে হামলা, তিন জঙ্গি নিহত

সংলাপের পরামর্শ পাকিস্তানি সিনেটরদের

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৭ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



কাশ্মীরে ভারতীয় সেনাঘাঁটিতে হামলা, তিন জঙ্গি নিহত

কাশ্মীরে এবার আরেকটি সেনাঘাঁটিতে হামলার চেষ্টাকালে ভারতীয় সেনাদের গুলিতে ‘পাকিস্তানভিত্তিক’ তিন জঙ্গি নিহত হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের কুপওয়ারা জেলায় দুই দেশের নিয়ন্ত্রণ রেখার কাছে এ ঘটনা ঘটে।

সম্প্রতি কাশ্মীরের বারামুল্লা জেলার উরি সেনাঘাঁটিতে জঙ্গিদের হামলায় ১৮ ভারতীয় সেনা নিহত হওয়ার পর উত্তেজনা প্রশমনে যখন দুই দেশ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে, তখন নতুন করে হামলা চেষ্টার ঘটনাটি ঘটল।

অন্যদিকে, ভারতের সঙ্গে অন্তরালে আলাপ চালিয়ে যেতে নওয়াজ শরিফ সরকারকে পরামর্শ দিয়েছেন পাকিস্তানের সিনেট সদস্যরা। তবে পাকিস্তানের সেনাপ্রধান রাহিল শরিফ ফের জ্বালাময়ী ভাষণ দিয়েছেন কাশ্মীর ইস্যুতে। গতকাল এক অনুষ্ঠানে তিনি বলেন, পাকিস্তান আক্রান্ত হলে কিংবা ‘কৌশলগত ভুলের’ শিকার হলে তাঁর দেশ কাউকে ছেড়ে দেবে না।

গত ১৮ সেপ্টেম্বর ভারত নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরের উরি সেনাঘাঁটিতে হামলার পর গতকাল পর্যন্ত তিনবার হামলা ও হামলার চেষ্টা করল জঙ্গিরা। ভারত অভিযোগ করে আসছে, পাকিস্তানভিত্তিক জঙ্গি সংগঠন জইশ-ই-মুহাম্মদের সদস্যরা এই হামলা করে।

গতকাল ভোর ৫টার দিকে কুপওয়ারার ল্যাঙ্গাত সেনাঘাঁটিতে হামলার চেষ্টা চালায় জঙ্গিরা। সেনাবাহিনী জানায়, ভোরে জঙ্গিরা সেনা শিবির লক্ষ্য করে গুলিবর্ষণ করে। তারা সেনাবাহিনীর রাষ্ট্রীয় রাইফেলস ঘাঁটির দুটি চৌকির দিকে গুলিবর্ষণ করে দৌড় দেয়। সেনাবাহিনী সঙ্গে সঙ্গে পাল্টা গুলিবর্ষণ করে। সেনাদের গুলিবর্ষণের মুখে হামলাকারীরা একপাশে সরে যেতে বাধ্য হয়। এ সময় দুই পক্ষের মধ্যে প্রায় আধাঘণ্টা ধরে তীব্র গোলাগুলি হয়। একপর্যায়ে সেনাদের গুলিতে তিন হামলাকারী নিহত হয়।

ঘটনার পর সেনাঘাঁটির আশপাশের গ্রামগুলোতে তল্লাশি অভিযান শুরু করে ভারতীয় বাহিনী। ভারতীয় সেনা কর্মকর্তারা অভিযোগ করেন, এই হামলায় পাকিস্তানের সীমান্ত চৌকি থেকে সহায়তা দেওয়া হয়। পরে গতকাল দুপুরে অভিযান সমাপ্তির ঘোষণা দেয় ভারতীয় সেনাবাহিনী। জঙ্গিরা এলাকায় লুকিয়ে থাকতে পারে—এমন আশঙ্কা থেকে অভিযান আরো কয়েক ঘণ্টা অব্যাহত রাখা হয়।

৩০ রাষ্ট্রীয় রাইফেলের কমান্ডিং অফিসার রাজীব শাহারান সাংবাদিকদের জানান, হঠাৎ করেই নিরাপত্তা ভবনকে লক্ষ্য করে টানা গুলি ছুড়তে শুরু করে ওই তিন সন্ত্রাসী। সে সময় নিরাপত্তা বাহিনীর এনকাউন্টারে তারা নিহত হয়। ভারতের প্রতিরক্ষা মুখপাত্র দ্য ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেসকে জানান, তিন জঙ্গি নিহত হয়েছে এবং তিনটি একে-৪৭ উদ্ধার করা হয়েছে।

সেনাবাহিনী জানায়, নিহত জঙ্গিরা যুদ্ধের পোশাক পরা ছিল। তাদের কাছ থেকে অস্ত্র, মানচিত্র, ওষুধ ও  খাদ্যসামগ্র পাওয়া গেছে। সেনা মুখপাত্রের বরাত দিয়ে ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভি জানিয়েছে, উদ্ধারকৃত ওষুধগুলো পাকিস্তানে বানানো বলে সেগুলোর গায়ে উল্লেখ করা আছে। এর ভিত্তিতে তাঁরা ধারণা করছেন, ওই জঙ্গিরা ৫ বা ৬ অক্টোবর রাতে পাকিস্তান থেকে ভারতে প্রবেশ করেছিল। উদ্ধারকৃত বাকি জিনিসপত্র পরীক্ষা করে দেখা হচ্ছে জানিয়েছেন ভারতের সেনাবাহিনীর মুখপাত্র।

পাক সিনেটরদের আহ্বান : পাকিস্তানকে অবশ্যই ভারতের সঙ্গে অন্তরালে আলাপ চালিয়ে যাওয়ার মরামর্শ দিয়েছেন পাকিস্তানের সিনেট সদস্যরা। জাতীয় পরিষদ-সংক্রান্ত সিনেট কমিটি গত বুধবার সরকারের জন্য ‘ভারতের সঙ্গে সম্পর্কবিষয়ক ২২টি নীতিপরামর্শের’ খসড়া তৈরি করে।   এতে আন্তরালে আলাপ চালিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। তবে একই সঙ্গে ভারতের প্রতি আগ্রাসী নীতি বজায় রাখার আহ্বানও জানানো হয়।

পাকিস্তানের ডন পত্রিকার বরাত দিয়ে টাইমস অব ইন্ডিয়া জানায়, বুধবার সিনেট চেয়ারম্যান রেজা রাব্বানির নেতৃত্বে সিনেট কমিটির ইন-ক্যামেরা বৈঠক হয়। এ সময় সরকারকে দেওয়া পরামর্শে বলা হয়, ‘বাস্তবতা, কার্যক্ষমতা ও প্রয়োজনীয়তার দিকে নজর দিয়ে পাকিস্তান ও ভারতের মধ্যে অন্তরালের আলাপ পুনরায় শুরু করা উচিত। দ্বিপক্ষীয় ও কাশ্মীর-সংক্রান্ত আত্মবিশ্বাসের পুনর্নির্মাণ ও এর ব্যাপ্তি ঘটাতে হবে।

সমুচিত জবাব দেবে পাকিস্তান—রাহিল শরিফ : গতকাল খাইবার পাখতুন প্রদেশে পাকিস্তান বিমানবাহিনীর উত্তীর্ণ ক্যাডেটদের এক অনুষ্ঠানে দেশটির সেনাবাহিনী প্রধান রাহিল শরিফ বলেন, ‘আমরা সম্প্রতি (পাকিস্তান নিয়ন্ত্রিত) কাশ্মীরের ভেতর ও নিয়ন্ত্রণ রেখা বরাবর তীব্র দুঃসাহস ও দুর্ভাগ্যজনক প্রদর্শনী দেখলাম। ভারতের মিথ্যা বেসাতি ও সত্য বিকৃতির মধ্যেই এ প্রদর্শনী চলছে। ’ এ সময় তিনি সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে অতুলনীয় যুদ্ধে লিপ্ত পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ভারতের অপপ্রচারের নিন্দা জানানোর জন্য আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের প্রতি আহ্বান জানান। তিনি বলেন, ‘যেকোনো ধরনের আগ্রাসন, সেটা ইচ্ছাকৃত হোক বা কৌশলগত ভুলের কারণে হোক, এর জন্য কঠোরতম জবাব দেওয়া হবে। ’ রাহিল বলেন, ‘পাকিস্তানের শান্তি, অগ্রগতির শত্রুরা পাকিস্তানের সাফল্যের আলোকেই ধ্বংস হয়ে যাবে। ’ সূত্র : বিবিসি, রয়টার্স, দ্য ন্যাশন (পাকিস্তান), এনটিভি, দ্য হিন্দু, ইন্ডিয়ান এক্সপ্রেস।


মন্তব্য