kalerkantho

শনিবার । ১০ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


জরিপে এগিয়ে হিলারি

ফুরিয়ে আসছে ট্রাম্পের সময়

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৪ অক্টোবর, ২০১৬ ০০:০০



ফুরিয়ে আসছে ট্রাম্পের সময়

প্রতিদ্বন্দ্বীর সঙ্গে বিতর্কে ভজকট এবং নিজের বেসামাল আচরণ—দুইয়ে মিলে রিপাবলিকান পার্টির প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্পের হাত থেকে সোনার হরিণ যেন ছুটে বের হয়ে যাচ্ছে। আর এই সোনার হরিণটি হলো ‘সময়’।

নির্বাচনের বাকি মাত্র ৩৪ দিন। এখন ভবিষ্যৎ কর্মপন্থা-নীতির ব্যাখ্যা দেওয়ার কথা তাঁর, প্রতিদ্বন্দ্বীকে যুক্তি-প্রমাণ দিয়ে পরাস্ত করার কথা। কিন্তু সে পথে না হেঁটে নিজের অতীত তৎপরতার ব্যাখ্যা করেই দিন পার হচ্ছে ট্রাম্পের। আর ট্রাম্পের এই হোঁচট খাওয়া পরিস্থিতিকে কাজে লাগিয়ে জোর কদমে এগিয়ে চলেছেন ডেমোক্রেটিক পার্টির প্রার্থী হিলারি ক্লিনটন। গত দুই দিনে প্রকাশ পাওয়া সব জরিপ এমন আভাসই দিচ্ছে।

গত সপ্তাহে হয়ে যাওয়া প্রথম বিতর্কে হিলারির বুদ্ধিদীপ্ত, চৌকস উপস্থাপন এবং পরবর্তী প্রচার এমনকি ঝুঁকিপূর্ণ রাজ্যগুলোতেও তাঁকে অনেকটাই এগিয়ে রেখেছে। ইলেকটোরাল কলেজের সমর্থন পেতে হিলারির ঠিক যে মুহৃর্তটির প্রয়োজন ছিল, বিতর্ক তাঁকে তা এনে দিয়েছে। তবে এ ক্ষেত্রে ট্রাম্পের অবদানও কম নয়। বিতর্কে তাঁর উপস্থিতি দুর্বল তো ছিলই, একই সঙ্গে তাঁর পরবর্তী আচরণও সংকট তৈরি করছে। এর মধ্যেই আয়কর নিয়ে নিউ ইয়র্ক টাইমসের বিস্ফোরক প্রতিবেদন তাঁকে আরো নাজুক অবস্থায় ঠেলে দেয়।

সমস্যা হচ্ছে, একগুঁয়ে ট্রাম্প বিষয়গুলো মানতে নারাজ। পরবর্তী বিতর্ক হবে ১০ অক্টোবর। তিনি আগাম প্রস্তুতি নিতে রাজি নন। তাঁকে পরামর্শ দেওয়া হয়েছিল, হিলারির স্বামী বিল ক্লিনটনের বিবাহবহির্ভূত সম্পর্কের বিষয়গুলো না টানতে।

তিনি সাবেক প্রেসিডেন্ট বিল ক্লিনটনের অতীত কেলেঙ্কারি তো বটেই, হিলারিকেও স্বামীর প্রতি অবিশ্বস্ত বলে মন্তব্য করেছেন। পরবর্তী বিতর্কে নোংরামির চূড়ান্ত করে ছাড়বেন এমন হুমকিও দিয়েছেন তিনি। ট্রাম্পের সবচেয়ে বড় সুবিধা হলো কোনো অভিযোগ করার জন্যই তাঁর কোনো তথ্য-প্রমাণের প্রয়োজন হয় না।

তবে সবচেয়ে বড় সমালোচনার জন্ম দিয়েছে সাবেক মিস ইউনিভার্স এলিসিয়া মাশাদোকে তাঁর স্থূলতার জন্য মিস পিগি, মিস হাউসকিপিং বলে সম্বোধন। ঘটনা ১৯ বছর আগের। তবে এর রেশ রয়ে গেছে আজও। আর বিতর্ককে উসকে দেওয়ার জন্য ট্রাম্পের প্রচেষ্টাও কম নয়। রাত ৩টার সময় এক টুইট বার্তায় তিনি এই মাশাদো সম্পর্কে আপত্তিকর মন্তব্য করেন। বিষয়টি লুফে নেয় ডেমোক্র্যাটরা। প্রশ্ন ওঠে তাঁর বিবেচনাবোধ নিয়ে। হিলারি শিবির মন্তব্য করে, প্রেসিডেন্ট হওয়ার মেজাজটিই নেই এই রিপাবলিকান প্রার্থীর।   

এরই সর্বশেষ সংযোজন নিউ ইয়র্ক টাইমসের প্রতিবেদন। এতে বলা হয়, ব্যবসায় লোকসানের জন্য ১৮ বছর কর রেয়াত পেয়েছেন ট্রাম্প। এতে তাঁর বুদ্ধিমত্তা যতই স্পষ্ট হোক, বিষয়টি ব্যবসায়ী হিসেবে তাঁকে সফল প্রতীয়মান করে না। প্রার্থী হিসেবে আয়কর তাঁকে ভোগাবে। মাত্র এক সপ্তাহের মধ্যে এতগুলো ভুল ট্রাম্প সামাল দিতে পারবেন কি না তা নিয়ে সংশয় রয়েছে। সব মিলিয়ে প্রেসিডেন্ট প্রার্থী হিসেবে প্রচারের সবচেয়ে বাজে সপ্তাহটি পার করলেন ট্রাম্প।

আজ ভাইস প্রেসিডেনশিয়াল প্রার্থীদের টিভি বিতর্ক অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা। সেখানে নির্দ্বিধায় প্রসঙ্গটি আসবে। ট্রাম্পের রানিংমেট মাইক পেন্স এর কী ব্যাখ্যা দেন সেটি দেখার জন্যই আগ্রহ নিয়ে অপেক্ষা করছেন ভোটাররা।

এরই মধ্যে প্রকাশিত জরিপগুলোতে দেখা যাচ্ছে, এগোচ্ছেন হিলারি। ফক্স নিউজ পরিচালিত জরিপে দেখা যায়, ৪৩ শতাংশ ভোটার মনে করেন হিলারি এগিয়ে আছেন। ট্রাম্পের ক্ষেত্রে এমনটি মনে করেন ৪০ শতাংশ ভোটার। ফাইভ থার্টি এইচ ডটকম পরিচালিত জরিপে হিলারির পক্ষে মত দিয়েছেন ৬৬.৭ শতাংশ অংশগ্রহণকারী।

তবে এ মুহৃর্তে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হলো ঝুঁকিপূর্ণ রাজ্যগুলোর জরিপ। ফ্লোরিডা, ওহাইয়ো, নেভাডায় হিলারি এগিয়ে আছেন। কলোরাডো ও পেনসিলভানিয়াতেও খুব অল্প ব্যবধানে এগিয়ে হিলারি।

তহবিল সংগ্রহ বন্ধের নির্দেশ : নিউ ইয়র্কে ট্রাম্পের দাতব্য সংস্থাকে তহবিল সংগ্রহ বন্ধের নির্দেশ দিয়েছেন রাজ্যের অ্যাটর্নি জেনারেল। সংস্থাটির যথাযথ নিবন্ধন না থাকায় এ নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।   সূত্র : বিবিসি, পলিটিকো, সিএনএন, এনবিসি।


মন্তব্য