kalerkantho

সোমবার । ৫ ডিসেম্বর ২০১৬। ২১ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৪ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।

রাশি ১২ নয়, ১৩টি?

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



রাশি ১২ নয়, ১৩টি?

ভারতীয় বৈদিক জ্যোতিষের রাশি আর পাশ্চাত্য জ্যোতিষের সানসাইন জোডিয়াক সম্পূর্ণ আলাদা। কিন্তু দুটি তত্ত্ব অনুযায়ীই ১২টি রাশি রয়েছে এবং প্রতিটি রাশি যে নক্ষত্রমণ্ডলকে নির্দিষ্ট করে, সেগুলোও দুটি তত্ত্ব অনুযায়ী একই।

পার্থক্যটা হলো এই যে পাশ্চাত্য জ্যোতিষে ইংরেজি জন্ম তারিখ অনুযায়ী রাশি নির্ধারণ করা হয় আর বৈদিক জ্যোতিষে জন্মমুহূর্তে নক্ষত্রের অবস্থান ইত্যাদি বিচার করে রাশি নির্দিষ্ট করা হয়। তাই জন্মদিন অনুযায়ী যার জোডিয়াক মীন বা পাইসেস, বৈদিক জ্যোতিষ অনুযায়ী তার রাশি হতেই পারে কন্যা বা ভারগো।

সেই পাশ্চাত্য জোডিয়াক নিয়েই বিতর্ক বেধেছে। সম্প্রতি মার্কিন মহাকাশ গবেষণা সংস্থা—নাসা একটি রিপোর্ট প্রকাশ করেছে; যেখানে বলা হয়েছে, পাল্টে গেছে পৃথিবীর অক্ষ। সে অনুযায়ী পাল্টে গেছে রাশি-নক্ষত্রমণ্ডলের অবস্থান। শুধু তা-ই নয়, ১২টি নয়, ১৩টি নক্ষত্রমণ্ডলের কথাও জানিয়েছে নাসা। একটি বিদেশি সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে জন্ম তারিখ অনুযায়ী নতুন রাশির তালিকা—১. কেপ্রিকর্ন (মকর)-২০ জানুয়ারি থেকে ১৬ ফেব্রুয়ারি। ২. অ্যাকোয়ারিয়াস (কুম্ভ)-৬ ফেব্রুয়ারি থেকে ১১ মার্চ। ৩. পাইসেস (মীন)-১১ মার্চ থেকে ১৮ এপ্রিল। ৪. এরিস (মেষ)-১৮ এপ্রিল থেকে ১৩ মে। ৫. তরাস (বৃষ)-১৩ মে থেকে ২১ জুন। ৬. জেমিনাই (মিথুন)-২১ জুন থেকে ২০ জুলাই। ৭. ক্যানসার (কর্কট)-২০ জুলাই থেকে ১০ আগস্ট। ৮. লিও (সিংহ)-১০ আগস্ট থেকে ১৬ সেপ্টেম্বর। ৯. ভারগো (কন্যা)-১৬ সেপ্টেম্বর থেকে ৩০ অক্টোবর। ১০. লিব্রা (তুলা)-৩০ অক্টোবর থেকে ২৩ নভেম্বর। ১১. স্করপিও (বৃশ্চিক) ২৩ নভেম্বর থেকে ২৯ নভেম্বর। ১২. অফিউচুস-২৯ নভেম্বর থেকে ১৭ ডিসেম্বর। ১৩. স্যাজিটেরিয়াস (ধনু)-১৭ ডিসেম্বর থেকে ২০ জানুয়ারি।

অর্থাৎ প্রতিটি রাশির জন্য জন্ম তারিখের যে সীমা নির্দিষ্ট ছিল সেগুলোতে বেশ ভালো রকম রদবদল ঘটেছে। টাইম ম্যাগাজিনের একটি প্রতিবেদন অনুযায়ী, নতুন রাশির এই ক্রমতালিকা তৈরি করেছে একটি বিশেষ অ্যাস্ট্রোনমি (জ্যোতির্বিদ্যা) সোসাইটি।

অনেকেই এই তালিকাকে নাসা প্রকাশিত তালিকা বলে ভুল করছে। নাসা এ বিষয়ে স্পষ্ট জানিয়েছে, তারা জ্যোতির্বিদ্যা চর্চা করে, জ্যোতিষ নয়। পৃথিবীর পরিবর্তিত অক্ষের সাপেক্ষে তারা কিছু গাণিতিক হিসাব-নিকাশ করেছে মাত্র এবং সেখানেই তারা অফিউচুস নক্ষত্রমণ্ডলের কথা বলেছে।

কিন্তু কোথা থেকে এলো এই নতুন রাশি বা নক্ষত্রমণ্ডল অফিউচুস? নাসার বক্তব্য, প্রথম থেকেই মহাকাশে ছিল এই কনস্টেলেশন। প্রাচীন ব্যাবিলনীয়রা ১২টি রাশির ক্যালেন্ডার মেলাতে গিয়ে এই রাশিকে বাদ দিয়ে দেয়। অথচ ১২টি নয়, অফিউচুসকে নিয়ে মোট ১৩টি নক্ষত্রমণ্ডলেই সূর্যের আপাত চলন ঘটে। সূত্র : এবেলা।


মন্তব্য