kalerkantho

বুধবার । ৭ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৬ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


প্রাইম মুভার-ট্রেইলর ধর্মঘট

কনটেইনার ফেলেই বন্দর ছাড়ল বিদেশি জাহাজ

আসিফ সিদ্দিকী, চট্টগ্রাম   

২৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



কনটেইনার ফেলেই বন্দর ছাড়ল বিদেশি জাহাজ

প্রাইম মুভার ও ট্রেইলরের মালিক-শ্রমিকদের ধর্মঘটের কারণে রপ্তানি পণ্যবাহী ১৭৭টি একক কনটেইনার (২০ ফুট দৈর্ঘ্যের) ফেলেই গতকাল মঙ্গলবার চট্টগ্রাম বন্দর ছেড়েছে বিদেশি জাহাজ ‘উরসোলা’। তৈরি পোশাক শিল্পের এসব কনটেইনার বেসরকারি কনটেইনার ডিপো থেকে চট্টগ্রাম বন্দরে নিয়ে জাহাজীকরণের কথা ছিল।

কিন্তু ধর্মঘটের কারণে এসব পণ্য কনটেইনার ডিপো থেকে বেরই হতে পারেনি। এ অবস্থায় বন্দর ছাড়তে বাধ্য হয়েছে জাহাজটি। আর রপ্তানি কনটেইনার না পাওয়ায় দুটি জাহাজকে দেরিতে বন্দর ছাড়তে বলা হয়েছে।

ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কে দাউদকান্দি ওজন স্কেলে অতিরিক্ত মাসুল আদায় এবং চালক-শ্রমিকদের মারধর ও হয়রানির অভিযোগে রবিবার রাতে অনির্দিষ্টকালের ধর্মঘটের ডাক দেয় প্রাইম মুভার ও ট্রেইলর মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদ। কর্মসূচি ঘোষণার সময় শুধু আমদানি পণ্যবোঝাই কনটেইনারের আনা-নেওয়া বন্ধ থাকবে বলে জানানো হয়েছিল। তবে গত সোমবার সকাল থেকে রপ্তানি পণ্যবোঝাই কনটেইনার আনা-নেওয়াও বন্ধ করে দেওয়া হয়।

উরসোলা জাহাজের দেশীয় শিপিং এজেন্ট ‘সি কনের’ ম্যানেজার সাইফুল আলম কালের কণ্ঠকে জানান, এক হাজার ২৭টি একক কনটেইনার নিয়ে চট্টগ্রাম বন্দর ছেড়েছে জাহাজটি। আরো ১৭৭টি একক রপ্তানি কনটেইনার নেওয়ার কথা থাকলেও সেগুলো যথাসময়ে বন্দর ইয়ার্ডে পৌঁছতে পারেনি। ফলে সেগুলো না নিয়েই সকাল সাড়ে ৭টায় মালয়েশিয়ার পোর্ট কেলাং বন্দরের উদ্দেশে চট্টগ্রাম বন্দর ছাড়ে উরসোলা।

এ বিষয়ে তৈরি পোশাক শিল্প মালিকদের সংগঠন বিজিএমইএর পরিচালক অঞ্জন শেখর রায় কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘বিগত সময়ে লাগাতার হরতালেও রপ্তানি পণ্য পরিবহনে এত বড় ঘটনা ঘটেনি। ১৭৭ একক কনটেইনার জাহাজে তুলতে না পারার ক্ষতি বিপুল। এর দায় এখন কে নেবে? রপ্তানি জিম্মি করে এ রকম আন্দোলন মেনে নেওয়া যায় না। ’

অঞ্জন শেখর রায় বলেন, তৈরি পোশাক শিল্পের উৎপাদন থেকে জাহাজীকরণ এবং রপ্তানিকারকের কাছে পৌঁছানো একটি ধারাবাহিক প্রক্রিয়া। এর কোথাও ব্যাঘাত ঘটলে পুরো সিস্টেম এলোমেলো হয়ে যায়।

জানা গেছে, সোমবার সকাল থেকে লাগাতার ধর্মঘটের কারণে ১৬টি কনটেইনার ডিপো থেকে বন্দরে এবং ইপিজেডগুলো থেকে বন্দরে পৌঁছতে না পারায় ইপিজেডে রপ্তানি পণ্যবাহী প্রচুর কনটেইনার আটকা পড়েছে।

বেসরকারি কনটেইনার ডিপো মালিকদের সংগঠন বিকডার সচিব রুহুল আমিন সিকদার কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘প্রতিদিন দেড় হাজার একক কনটেইনার ডিপো থেকে বন্দরে আনা-নেওয়া করা হয়। সেগুলো বন্দরে পৌঁছতে না পারলে জাহাজীকরণ সম্ভব হবে না। জাহাজে তোলা না গেলে নির্ধারিত সময়ে ক্রেতার কাছে পৌঁছানো নিয়ে শঙ্কা রয়েছে। ’

ধর্মঘট প্রত্যাহার হতে পারে, এ আশায় চট্টগ্রাম বন্দর কর্তৃপক্ষ গতকাল দুটি জাহাজের জেটি ত্যাগের সূচি পিছিয়েছে। ওইএল কলম্বো ও এক্সপ্রেস হটসি নামের জাহাজ দুটি আজ বুধবার বন্দর ছাড়বে।

ধর্মঘট নিয়ে আলোচনা করতে গতকাল সন্ধ্যা ৭টার দিকে চট্টগ্রাম বন্দর ভবনে বৈঠক করেছেন প্রাইম মুভার ও ট্রেইলর মালিক-শ্রমিক ঐক্য পরিষদের নেতারা। বন্দরের পরিচালক (ট্রাফিক) গোলাম সারোয়ার তাঁদের আপাতত রপ্তানি পণ্যবাহী গাড়ি ধর্মঘটের আওতামুক্ত রাখার আহ্বান জানান।

রাত ৯টার দিকে বৈঠক থেকে বের হয়ে ঐক্য পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক গোলাম মাওলা কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘রপ্তানি পণ্য জাহাজে তুলতে না পারার দায় আমাদের। আমরা বৈঠক ডেকেছি। এক ঘণ্টা পর বৈঠকের ফলাফল জানাতে পারব। তবে ধর্মঘট প্রত্যাহার না হওয়ার সম্ভাবনাই বেশি। ’

জানা গেছে, কনটেইনারভর্তি আমদানি পণ্য পরিবহনের অর্ধেক বন্ধ থাকলেও বাকিটা চালু রয়েছে। কারণ এগুলো ট্রাক ও কাভার্ড ভ্যানে পরিবহন করা হয়। এর বাইরে বন্দর থেকে খোলা পণ্য পরিবহন পুরোপুরি সচল রয়েছে।


মন্তব্য