kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


মন্ত্রী সচিবের সচিবালয়ে অবস্থান ইচ্ছামতো

১৪ জঙ্গির লাশ আঞ্জুমানকে দেওয়া হবে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



মন্ত্রী সচিবের সচিবালয়ে অবস্থান ইচ্ছামতো

অফিস সময়ের পর আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য ছাড়া অন্য কেউ সচিবালয়ে অবস্থান করতে পারবেন না—এমন আদেশের সংশোধন করা হয়েছে। মন্ত্রী, সচিব ও তাঁদের কাজের প্রয়োজনে যাঁদের থাকতে হবে তাঁরা এ নিষেধাজ্ঞার বাইরে থাকবেন।

তবে এর বাইরে যাঁরা আছেন তাঁদের আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর কাছ থেকে অনুমতি নিতে হবে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান সাংবাদিকদের এসব তথ্য জানিয়েছেন।

গতকাল দুপুর পৌনে ২টার দিকে সাংবাদিকরা সচিবালয়ের নিরাপত্তাসংক্রান্ত বিষয়ে কথা বলতে যান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর সঙ্গে। এ সময় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘নিরাপত্তার বিষয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। সচিবালয়ের সর্বোচ্চ নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে এ প্রজ্ঞাপন জারি করতে হয়েছে। কিছুটা সংশোধনী এনে ফাইনাল করছি। এতে বলা হয়েছে, বিকেল ৫টার পর কেউ সচিবালয়ে থাকবে না। মন্ত্রী ও সচিব মহোদয়রা এ প্রজ্ঞাপনের আওতায় আসবেন না। যতক্ষণ প্রয়োজন তাঁরা সচিবালয়ে কাজ করবেন। আর তাঁদের প্রয়োজন হবে যাঁদের তাঁরাও অবস্থান করতে পারবেন। কোনো অবস্থাতেই যাতে স্বাভাবিক কাজ বিঘ্নিত না হয় সে জন্য এ সংশোধনী। সচিবালয়ের পরিবেশ ঠিক রাখার ও অধিকতর নিরাপত্তার জন্য প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। ’ এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘গোয়েন্দাদের ফাইন্ডিং ছিল সচিবালয়ে অনেকে রাত্রীযাপন করে। ভেতরে হোটেল-রেস্টুরেন্ট রয়েছে, তাদের কর্মীরাও রাত্রীযাপন করে। আরো কেউ কেউ রাত্রীযাপন করেন। যাঁরা এখানে অতিথি হিসেবে আসেন তাঁদেরও কেউ কেউ অনেকক্ষণ অবস্থান করেন। এসব রিপোর্টের ভিত্তিতে ওই প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়েছে। ’

সচিবালয়ে কি কোনো নিরাপত্তা হুমকি আছে বলে মনে করছেন? এ প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘অমরা কোনো থ্রেট অনুভব করছি না। ডিসিপ্লিন আনা দরকার। যাঁরা এখানে আসেন তাঁরা নরমাল ওয়ার্কের পর চলে যাবেন। মন্ত্রী-সচিবের জন্য কোনো বাধা-নিষেধ নেই। তাঁদের জন্য কোনো পারমিশনের প্রয়োজন নেই। অন্যরা থাকতে চাইলে যাঁরা নিরাপত্তায় নিয়োজিত আছেন তাঁদের জানাতে হবে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য, অগ্নিনির্বাপণকর্মী ছাড়া অন্য যাদের প্রয়োজন নেই তারা রাত্রীযাপন করতে পারবে না। কোনো অবস্থাতেই কাউকে রাতে থাকতে দেওয়া হবে না। আমাদের কাছে নিরাপত্তার ব্যাপারটা টপ প্রায়োরিটি। ’

সম্প্রতি সীমান্ত হত্যা বেড়েছে, তা নিরসনে কী উদ্যোগ নিচ্ছেন? এ প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘দেখুন, বিএসএফ-বিজিবির মধ্যে চমৎকার সম্পর্ক রয়েছে। যখন এ ধরনের ঘটনা ঘটে তখন পতাকা বৈঠকের মাধ্যমে সংকটের সমাধান হয়। বিজিবি ও বিএসএফ সক্রিয় থাকবে বর্ডার কিলিং যেন না হয়। ভারতের সংবাদিকদের একটি বড় টিম বিজিবির কার্যক্রম দেখতে এসেছিল। তারা সব দেখে গেছে। ’

কলকাতায় ছয়জন বাংলাদেশি জঙ্গি ধরা পড়েছে—এ বিষয়ে আপনি কিছু বলবেন? এমন প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘অফিশিয়ালি এখনো আমরা বিষয়টি জানি না। গোয়েন্দা সংস্থা হয়তো জানে। জানলে আপনাদের জানানো হবে। ’

আপনার দৃষ্টিতে বাংলাদেশে জঙ্গিবাদ কি নিয়ন্ত্রণে রয়েছে? এ প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘আমি যদি পাল্টা প্রশ্ন করি, জঙ্গিবাদী সন্ত্রাস নিয়ন্ত্রণে রয়েছে কি না—আপনিও বলবেন নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। জঙ্গি কার্যক্রম বলেন, সন্ত্রাস বলেন, এগুলো নিয়ন্ত্রণে রয়েছে। পৃৃথিবীর বহু দেশের চেয়ে আমরা ভালো আছি। ’

পাঁচ জঙ্গির লাশ দাফনের জন্য আঞ্জুমান মুফিদুল ইসলামকে দেওয়া হয়েছে। মর্গে রয়েছে আরো ১৪ জনের লাশ। তাদের লাশের পরিণতি কী হবে? জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘ঢাকা মেডিক্যাল থেকে আমাদের চিঠি দিয়ে তাগাদা দিচ্ছিল যথাযথ ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য। আমরা অপেক্ষা করছিলাম তাদের লাশ নিকটাত্মীয়রা নিয়ে যাবেন। এক নিকটাত্মীয় ক্ষোভ-দুঃখ অনুভূতি জানিয়েছেন। তিনি কুপুত্র হিসেবে উল্লেখ করেছেন ছেলেকে। তাদের আত্মীয়স্বজনরা ক্ষোভে-দুঃখে তাদের আত্মীয় বলে পরিচয় দিচ্ছে না। অপেক্ষা করেছি। আঞ্জুমানকে আগেরগুলো দেওয়া হয়েছে। পরবর্তীগুলোর ব্যাপারেও একই ব্যবস্থা নেওয়া হবে। ’


মন্তব্য