kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


পাক সন্ত্রাসের শিকার বাংলাদেশও : মোদি

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



পাক সন্ত্রাসের শিকার বাংলাদেশও : মোদি

কাশ্মীরের উরিতে জঙ্গি হামলায় ১৮ ভারতীয় সেনা নিহত হওয়ার সপ্তাহখানেক পর পাকিস্তানের বিরুদ্ধে প্রকাশ্যে মুখ খুললেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। পাকিস্তানকে এর পরিণাম ভোগ করতে হবে মনে করিয়ে দিয়ে তিনি বলেন, উরির ঘটনা ভুলে যাবে না ভারত।

গতকাল শনিবার বিকেলে কেরালার কোঝিকোড়ে বিজেপির দলীয় সমাবেশে দেওয়া ভাষণে তিনি এ কথা বলেন।

মোদি বলেন, এশিয়ায় যত সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড হয় সবগুলোর পেছনে পাকিস্তানের হাত আছে। যেখানেই সন্ত্রাস সেখানেই পাকিস্তান। কোনো প্রতিবেশী পাকিস্তানের সেই সন্ত্রাস থেকে রক্ষা পাচ্ছে না। সেটা ভারত, আফগানিস্তান আর বাংলাদেশ যাই হোক। তাই সন্ত্রাসবাদ আঁকড়ে থাকা এই দেশটিকে বিশ্ব থেকে বিচ্ছিন্ন করার ডাক দেন তিনি।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘বিশ্বে একমাত্র দেশ পাকিস্তান, যারা বিশ্বজুড়ে সন্ত্রাসী রপ্তানি করে। ভারতসহ বাংলাদেশ ও আফগানিস্তানও পাকিস্তানের সন্ত্রাসবাদের শিকার। বিশ্বের যেখানেই সন্ত্রাসবাদের খবর আসে, সেখানেই পাকিস্তানের নাম দেখা যায়; ওসামা বিন লাদেনকেও আশ্রয় দিয়েছিল দেশটি। ’

ভারতীয় সেনা হত্যার ঘটনায় পাকিস্তানকে বিশ্ব থেকে বিচ্ছিন্ন করার সরাসরি চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দেন নরেন্দ্র মোদি। তিনি বলেন, “উরিতে পাক হামলায় ১৮ জন জওয়ানের ‘বলিদান’ ব্যর্থ হবে না। ওই জওয়ানদের বলিদানই সন্ত্রাসবাদের আঁতুড়ঘর পাকিস্তানের বিরুদ্ধে লড়াইয়ের প্রতিজ্ঞাকে দৃঢ়তর করে তুলবে। সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে জোট বাঁধার প্রক্রিয়াটাকে আরো শক্তিশালী ও গতিশীল করে তুলবে। ”

মোদি বলেন, ‘সন্ত্রাসবাদ মানবতার দুশমন। সন্ত্রাসবাদীদের বিরুদ্ধে জোট বেঁধে দাঁড়াতে হবে এবার গোটা বিশ্বের মানবতাবাদীদের। এশিয়ার যেখানে যেখানে সন্ত্রাসের ঘটনা ঘটছে তারা সবাই একটি দেশের দিকে আঙুল তুলছে। তাকেই দোষী মানছে। গোটা এশিয়ায় তারা আতঙ্কের পরিস্থিতি তৈরি করছে। এই দেশটির জন্যই গোটা এশিয়া রক্তাক্ত হয়ে উঠছে!’ তিনি পাকিস্তানকে মনে করিয়ে দিয়ে বলেন, ‘না হিন্দুস্তান ঝুকা হ্যয়, না হিন্দুস্তান ঝুকে গা। ’

ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমি ওঁদের বলতে চাই, ১৯৪৭ সালের আগে আপনাদের পূর্বপুরুষও এই হিন্দুস্তানের মাটিকেই প্রণাম করতেন। ভারত আর পাকিস্তান, দুটি দেশ একই সঙ্গে স্বাধীন হয়েছে। আজ হিন্দুস্তান সফটওয়্যার এক্সপোর্ট করে আর পাকিস্তান টেররিস্ট এক্সপোর্ট করে। প্রতিবেশী দেশের রাজনৈতিক নেতাদের জোরগলায় কথা বলার শক্তি এখন হারিয়ে গেছে। তাঁরা এখন জঙ্গিদের কথায় ওঠাবসা করেন। একসময় পূর্ববঙ্গ আপনাদেরই অঙ্গ ছিল। আপনারা কিছুই সামলাতে পারেননি! আর এখন কাশ্মীরের কথা বলছেন! যা আপনাদের সঙ্গে আছে, সেটাই আগে সামলে দেখান! কিন্তু সেটাই ওরা করে উঠতে পারছে না!’ সূত্র : হিন্দুস্তান টাইমস ও আনন্দবাজার।


মন্তব্য