kalerkantho

শনিবার । ৩ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানা

‘বনের রাজা’র বিয়ে

নিজস্ব প্রতিবেদক, চট্টগ্রাম   

২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



‘বনের রাজা’র বিয়ে

বিয়ে উপলক্ষে সুসজ্জিত চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানায় পাশাপাশি খাঁচায় নভ ও নোভা। ছবি : কালের কণ্ঠ

রং-বেরঙের বেলুন, পোস্টার-ফেস্টুন ও বাহারি ফুল দিয়ে সাজানো হলো ঘরবাড়ি। নতুন জামাকাপড় পরে এলেন বিভিন্ন বয়সী বহু অতিথি।

এলেন সাংবাদিক, টেলিভিশন চ্যানেল। সরাসরি সম্প্রচার চলল টিভিতে। বাতাসে ভাসল খাবারের মৌ মৌ ঘ্রাণ। এ যেন কোনো বিয়েবাড়ির উৎসব। হ্যাঁ, এমন বিয়েবাড়ির দৃশ্যই গতকাল বুধবার দেখা গেছে চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানার ভেতর। বেশ জাঁকজমক অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে ঘটা করে হলো ‘বনের রাজা’র বিয়ে। চট্টগ্রামে জন্ম নেওয়া সিংহী ‘নোভা’র সঙ্গে বিয়ে দেওয়া হলো রংপুর থেকে আনা সিংহ ‘বাদশা’কে। অবশ্য বিয়ে উপলক্ষে কনের নামের সঙ্গে মিলিয়ে বর ‘বাদশা’র নাম বদলে রাখা হয়েছে ‘নভ’।

লোহার খাঁচায় ‘বনের রাজা’র বিয়ের অনুষ্ঠানের এত আয়োজন দেখে চিড়িয়াখানায় আসা দর্শনার্থী ফারজানা হক কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘জীবনে কত মানুষের বিয়ে দেখেছি। কিন্তু আজ প্রথম কোনো বন্য প্রাণীর বিয়ের অনুষ্ঠান দেখলাম। চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ এই সিংহ জুটির জন্য বর্ণাঢ্য যে আয়োজন করেছে তা দর্শনার্থীদের মাঝে কৌতূহল তৈরি করেছে। ’

অতিথি, আপ্যায়ন, অভিভাবক, বর্ণাঢ্য আয়োজন সবই ছিল নভ এবং নোভার বিয়েতে। বিয়েবাড়ি বলে কথা। বিয়েবাড়ির প্রচলিত যত আচার-অনুষ্ঠান সবই ছিল এই বিয়েতে। কনেপক্ষ বরযাত্রীদের কাছ থেকে আদায় করেছে গেট ধরার টাকা। বরপক্ষের জন্য তৈরি করা হয়েছিল ৪৭ কেজির কেক। তাও আবার সাধারণ কেক নয়, গরুর মাংস দিয়ে তৈরি। বিয়ের স্মারক হিসেবে ওড়ানো হয় বেলুন। চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক মেজবাহ উদ্দিনের স্ত্রী ইশরাত জাহান বেলুন উড়িয়ে বিয়ে অনুষ্ঠানের সূচনা করেন। এরপর অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি জেলা প্রশাসক মেজবাহ উদ্দিন তাঁর মেয়ে মাশিয়াত মুবাশ্বিরাকে সঙ্গে নিয়ে কাটেন বিয়ের কেক।

নভ-নোভার বিয়েতে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) ড. অনুপম সাহা, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মমিনুর রশিদ, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (শিক্ষা) হাবিবুর রহমান, জিপিএইচ ইস্পাতের অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ আলমাস শিমুল, কবি অভীক ওসমান ও সেলিনা শেলী, চিড়িয়াখানার প্রতিষ্ঠাতা সদস্য শাহজাহান চৌধুরী, পরিচালনা কমিটির সদস্যসচিব মোহাম্মদ রুহুল আমীন, চিড়িয়াখানার ডেপুটি কিউরেটর চৌধুরী মো. মঞ্জুর মোরশেদ, প্রাণিচিকিৎসক শাহাদাত হোসেন শুভ প্রমুখ।

সিংহ যুগলের বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা শেষে জেলা প্রশাসক সাংবাদিকদের বলেন, ‘চট্টগ্রামবাসীর জন্য এ চিড়িয়াখানা বিনোদনের অন্যতম মাধ্যম। এ অঞ্চলের দর্শকদের প্রত্যাশা বেশি। এত দিন সিংহী ছিল দুটি। একটি রংপুর চিড়িয়াখানার সঙ্গে বদল করে এখানে সিংহ নিয়ে এসেছি। যাতে তারা প্রজননের মাধ্যমে বংশ বিস্তার করতে পারে। একই সঙ্গে দর্শকদের জন্য আনন্দঘন পরিবেশ তৈরি হবে। ’

বিয়ে প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘এটি হচ্ছে তাদের (নভ-নোভা) একসঙ্গে থাকার সুযোগ সৃষ্টি করে দেওয়া। একই সঙ্গে দেশবাসীকে প্রাণীদের প্রতি ভালোবাসার বার্তা পৌঁছে দেওয়া। আমাদের দেশে এখনো সজারু, অজগরসহ বন্য প্রাণী পিটিয়ে মারা হয়। তাই জনগণের সচেতনতা প্রয়োজন। ’

নভ-নোভার বিয়ের আগে জিপিএইচ ইস্পাতের সৌজন্যে চিড়িয়াখানার নবনির্মিত ফটক উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক মেজবাহ উদ্দিন।

উল্লেখ্য, প্রাণী বিনিময় প্রথার মাধ্যমে সম্প্রতি রংপুর চিড়িয়াখানা থেকে চট্টগ্রামে আনা হয়েছে সিংহ ‘বাদশা’কে। চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক মেজবাহ উদ্দিন তার নতুন নাম দেন ‘নভ’।

দুই ঘণ্টায় ৮০০ টিকিট বিক্রি : গতকাল সকাল ১১টায় নগরীর ফয়’স লেক চিড়িয়াখানায় সিংহ যুগলের ব্যতিক্রমী বিয়ে উপলক্ষে কৌতূহলী মানুষের ভিড় ছিল চিড়িয়াখানার ফটকে। সকাল ১০টা থেকে ১২টার মধ্যে বিক্রি হয়েছে প্রায় ৮০০ টিকিট। এ ছাড়া শতাধিক তিন বছরের কম বয়সী শিশু ছিল বিনা টিকিটের দর্শক। পাশাপাশি বিয়েতে আমন্ত্রিত অতিথি হিসেবে সাংবাদিক এবং চিড়িয়াখানা ব্যবস্থাপনা কমিটির সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

চিড়িয়াখানায় এবার আসছে রয়েল বেঙ্গল টাইগার : চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসক মেজবাহ উদ্দিন বলেন, ‘বর্তমানে চট্টগ্রাম চিড়িয়াখানায় কোনো বাঘ নেই। তাই দরপত্র আহ্বানের মাধ্যমে দুটি বাঘ আনা হচ্ছে। আশা করছি দু-এক মাসের মধ্যে বাঘ চলে আসবে। একটি পুরুষ, একটি স্ত্রী। এতে ৩৪ লাখ টাকা ব্যয় হবে। দক্ষিণ আফ্রিকা থেকে আনা হচ্ছে বিখ্যাত রয়েল বেঙ্গল টাইগার। ’


মন্তব্য