kalerkantho

রবিবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


পরিকল্পনার তথ্য দিচ্ছে না রাসেল

ফের রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করা হতে পারে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২২ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



পরিকল্পনার তথ্য দিচ্ছে না রাসেল

গুলশানের হলি আর্টিজানে হামলাসহ নব্য জেএমবির বেশ কিছু পরিকল্পনার ব্যাপারে আগেই তথ্য পেয়েছে জঙ্গি তানভীর কাদেরী ওরফে আবদুল করিমের ছেলে তাহরীম কাদেরী ওরফে রাসেল। পুলিশের জিজ্ঞাসাবাদে অনেক বিষয় সম্পর্কে ‘শুনেছে’ বলে দাবি করলেও বিস্তারিত তথ্য দেয়নি সে।

তার যমজ ভাই আকিব কাদেরী সংগঠনের কাজে কোথায় আছে সে বিষয়েও তথ্য গোপন করছে রাসেল। গতকাল বুধবার ছিল তার তিন দিনের রিমান্ডের শেষ দিন।

পুলিশের কাউন্টার টেররিজম অ্যান্ড ট্রান্সন্যাশনাল ক্রাইম (সিটিটিসি) ইউনিট সূত্র জানিয়েছে, কৈশোরের ভালোমন্দ বুঝে ওঠার আগেই বাবা ও তাঁর সহকর্মীদের কাছ থেকে উগ্রবাদের দীক্ষা পেয়েছে রাসেল। এ কারণে সে পুলিশকে তথ্য না দিয়ে অনেক বিষয় গোপন করছে। আজ বৃহস্পতিবার তাকে আদালতে হাজির করে আবারও রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করা হতে পারে বলে সূত্র জানায়।

তদন্তসংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বলেন, তানভীর তাঁর ভাড়া বাসাগুলোতে ছেলে রাসেলের সামনেই বিভিন্ন হামলার পরিকল্পনা করতেন। কিন্তু জিজ্ঞাসাবাদে সে পরিকল্পনার ব্যাপারে কোনো তথ্য দেয়নি। আদালতের মাধ্যমে তিন দিনের রিমান্ডে নেওয়া হলেও সমাজকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের প্রবেশন অফিসারের সামনে রাসেলকে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। তথ্যের জন্য তার ওপর কোনো ধরনের চাপ প্রয়োগ করা হচ্ছে না। এ কারণে তার মধ্যে তথ্য গোপন করার প্রবণতা দেখা যাচ্ছে। তবে সে স্বাভাবিক আচরণ করছে। ১০ সেপ্টেম্বর আজিমপুরের আস্তানায় অভিযানের সময় তার বাবা তানভীর কাদেরী আত্মহত্যা করেন। তার মা আবেদাতুল ফাতেমা ওরফে খাদিজা অভিযানের সময় আহত হন। মা-বাবার এমন পরিণতির বিষয়েও সে বিচলিত নয়।

সূত্র জানায়, নব্য জেএমবির সমন্বয়ক তামিম চৌধুরীসহ গুরুত্বপূর্ণ জঙ্গি নেতাদের বিষয়ে রাসেল কিছু তথ্য দিয়েছে। তাদের বারিধারার বাসায় গুলশানে হামলাকারী পাঁচ আত্মঘাতী জঙ্গির সঙ্গে তামিম চৌধুরীও অনেক দিন বসবাস করেছে। তার মা আবেদাতুল ফাতেমা ওরফে খাদিজা জঙ্গিদের রান্না করে খাওয়াতেন। সূত্র বলছে, কৈশোরে ইসলামের ‘মনগড়া ব্যাখ্যা’ শুনে রাসেলও জঙ্গিবাদে উদ্বুদ্ধ হয়ে কথিত জিহাদের জন্য ‘প্রস্তুত’ ছিল। তার ভাই আকিব কাদেরী এরই মধ্যে সংগঠনের জন্য কাজ করতে শুরু করেছে। সে এখন কোনো জঙ্গি ডেরায় অবস্থান করছে। এসব ব্যাপারে জানতে রাসেলকে ফের রিমান্ডে নেওয়ার আবেদন করা হবে কি না তা নিয়ে আলোচনা করছেন তদন্তকারীরা।

এ ব্যাপারে সিটিটিসি ইউনিটের উপকমিশনার মহিবুল ইসলাম বলেন, শিশুদের ক্ষেত্রে দ্বিতীয়বার রিমান্ড চাওয়ার বিষয়ে অনেক কিছু বিবেচনা করতে হয়। এসব বিষয় বিশ্লেষণ করে দ্বিতীয়বার রিমান্ড চাওয়া হবে কি না সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।


মন্তব্য