kalerkantho

মঙ্গলবার। ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ । ৯ ফাল্গুন ১৪২৩। ২৩ জমাদিউল আউয়াল ১৪৩৮।


সিরিয়ায় ত্রাণবহরে হামলা, রেডক্রসের কার্যক্রম আংশিক বন্ধ

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



সিরিয়ায় ত্রাণবহরে হামলা, রেডক্রসের কার্যক্রম আংশিক বন্ধ

সিরিয়ার আলেপ্পোর উত্তরে ওরাম আল-কুবরা শহরে বিমান হামলায় বিধ্বস্ত জাতিসংঘের ত্রাণবাহী ট্রাক। গতকালের ওই হামলায় অন্তত ১৮টি ট্রাক ধ্বংস হয়। ছবি : এএফপি

সিরিয়ার আলেপ্পো নগরীর কাছে জাতিসংঘের ত্রাণবহরে সিরীয় সরকারি বাহিনীর বিমান হামলায় অন্তত ১২ জন নিহত হয়েছে। হামলায় বহরের ৩১টির মধ্যে ১৮টি ট্রাক ক্ষতিগ্রস্ত হয়। গত সোমবার সরকারি ও বিদ্রোহীদের অস্ত্রবিরতি চুক্তি ভেঙে পড়ার পরপরই এ হামলার ঘটনা ঘটল। এ  ঘটনায় আন্তর্জাতিক সাহায্য সংস্থা রেডক্রস সিরিয়ার চারটি শহরে ত্রাণ কার্যক্রম স্থগিতের ঘোষণা দিয়েছে। গতকাল মঙ্গলবার ইন্টারন্যাশনাল কমিটি অব দ্য রেডক্রসের একজন জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তা ত্রাণ কার্যক্রমে আংশিক স্থগিতাদেশের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

মানবাধিকার পর্যবেক্ষণকারী যুক্তরাজ্যভিত্তিক সংস্থা সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস জানিয়েছে, আনুষ্ঠানিকভাবে অস্ত্রবিরতি ভেঙে পড়ার পর সোমবার আলেপ্পো এবং তার আশপাশে বিমান হামলা চালানো হয়। এতে অন্তত ৩২ জন বেসামরিক সিরীয় নাগরিক নিহত হয়েছে।

সিরিয়ান অবজারভেটরি জানিয়েছে, উরম আল-কুবরা এলাকায় চালানো হামলায় জাতিসংঘের ত্রাণবহরের ত্রাণকর্মী, ট্রাকচালকসহ অন্তত ১২ জন নিহত হয়েছে। সিরিয়ান রেড ক্রিসেন্টের এক কর্মকর্তাও বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। সিরিয়ার রেড ক্রিসেন্ট জানিয়েছে, ত্রাণবহরটি নিয়মিত আলেপ্পো থেকে বিদ্রোহী নিয়ন্ত্রিত গ্রামীণ এলাকায় ত্রাণ সরবরাহ করছিল।

সিরিয়াবিষয়ক জাতিসংঘের বিশেষ দূত স্টিফান ডি মিস্তুরা বলেন, ‘আমাদের ত্রাণবহরে ভয়াবহ হামলা চালানো হয়। বিচ্ছিন্ন নাগরিকদের জন্য ত্রাণ পৌঁছে দিতে এ ত্রাণবহর অনুমতির দীর্ঘপ্রক্রিয়া ও প্রস্তুতি সম্পন্ন করতে হয়েছিল। ’

আন্তর্জাতিক রেডক্রস কমিটির প্রধান পিটার মোরার বলেছেন, এই হামলা আন্তর্জাতিক মানবিক আইনের এক চরম লঙ্ঘন। ত্রাণ কার্যক্রম বন্ধের ঘোষণা দিয়ে রেডক্রসের কর্মকর্তা জানান, ত্রাণবাহী ট্রাকবহরে হামলা এবং সহিংসতার তীব্রতা বৃদ্ধির ফলে কর্মীদের নিরাপত্তার বিষয়টি পুনর্মূল্যায়নের জন্য এ পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।

এক প্রত্যক্ষদর্শী টেলিফোনে জানিয়েছেন, ত্রাণবহরে অন্তত পাঁচটি ক্ষেপণাস্ত্র আঘাত হানে। উরম আল-কুবরা এলাকায় রেড ক্রিসেন্টের পার্কিংয়ে বহরটি অবস্থান করছিল।

এ হামলার বিষয়ে সিরিয়া সরকারের কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

সাত দিন আগে শুরু হওয়া অস্ত্রবিরতি চুক্তির অন্যতম ছিল অবরুদ্ধ আলেপ্পোতে ত্রাণ সরবরাহ নিশ্চিত করা। কিন্তু সিরিয়ার সেনাবাহিনী ও বিদ্রোহীরা একে অপরের বিরুদ্ধে চুক্তি ভঙ্গের অভিযোগ করে আসছে।

অস্ত্রবিরতি ভেঙে পড়ার সঙ্গে সঙ্গে আলেপ্পো ও কয়েকটি শহরে বিমান হামলা চালায় সিরীয় ও রুশবাহিনী। সিরিয়ার দাবি, বিদ্রোহীরা অস্ত্রবিরতি চুক্তির কোনো ধারাই মানেনি। বিদ্রোহীরাও আসাদ বাহিনীর বিরুদ্ধে অস্ত্রবিরতি ভঙ্গের অভিযোগ করেছে।

এর আগে অস্ত্রবিরতি চলাকালে মার্কিন নেতৃত্বাধীন জোটের বিমান হামলায় ৮০ সিরীয় সেনা নিহত হন। ওই ঘটনায় অস্ত্রবিরতি ভেঙে পড়ে। সূত্র : বিবিসি ও রয়টার্স।


মন্তব্য