kalerkantho

রবিবার। ৪ ডিসেম্বর ২০১৬। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ভারতে বিশ্বব্যাংকের প্রধান বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত জুনায়েদ

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



ভারতে বিশ্বব্যাংকের প্রধান বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত জুনায়েদ

বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত জুনায়েদ কামাল আহমেদ আগামী চার বছরের জন্য ভারতে বিশ্বব্যাংকের আবাসিক প্রধান হিসেবে নিয়োগ পেয়েছেন। আগের আবাসিক প্রধান ঊন্য রুহল থেকে এরই মধ্যে দায়িত্বভার গ্রহণ করেছেন জুনায়েদ আহমেদ।

২০২০ সাল পর্যন্ত তিনি ভারতে আবাসিক প্রধান হিসেবে দায়িত্ব পালন করবেন। এর আগে তিনি বিশ্বব্যাংকের প্রেসিডেন্ট জিম ইয়ং কিমের উপদেষ্টামণ্ডলীর প্রধানের দায়িত্ব পালন করেছেন।

জুনায়েদ আহমেদের কর্মজীবন ও বর্ণাঢ্য ক্যারিয়ারের কথা উল্লেখ করে জিম ইয়ং কিম বলেন, ‘জুনায়েদ আহমেদকে ভারতে বিশ্বব্যাংকের আবাসিক প্রধান হিসেবে নাম ঘোষণা করতে পেরে আমি খুব আনন্দিত। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে ভারত তাদের প্রবৃদ্ধি ও উন্নয়নে অসাধারণ সাফল্য পেয়েছে। জুনায়েদের নেতৃত্বে ভারত আরো অনেক দূর এগিয়ে যাবে—আমি এমনটা বিশ্বাস করি’। বিশ্বব্যাংকের দক্ষিণ এশীয় অঞ্চলের ভাইস

প্রেসিডেন্ট অ্যানেট ডিক্সন বলেন, জুনায়েদ আহমেদের পানি, নগরায়ণ ও সামাজিক উন্নয়ন বিষয়ে বিস্তর অভিজ্ঞতা রয়েছে। এ অভিজ্ঞতা ভারতের বিশাল জনগোষ্ঠীর ভাগ্যোন্নয়নে কাজে আসবে বলে মন্তব্য করেন ডিক্সন। ভারতের জন্য বিশ্বব্যাংকের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা বাস্তবায়নে জুনায়েদ তাঁর দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করবেন বলেও আশাবাদ ব্যক্ত করেন ডিক্সন।

বাংলাদেশের গর্ব জুনায়েদ আহমেদ সম্পর্কে জানতে চাইলে বিশ্বব্যাংকের সাবেক বিকল্প নির্বাহী পরিচালক বর্তমানে বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (বিডা) নির্বাহী চেয়ারম্যান কাজী আমিনুল ইসলাম কালের কণ্ঠকে বলেন, জুনায়েদ অত্যন্ত মেধাবী, দক্ষ ও কাজের মানুষ। কাজই তাঁর একমাত্র নেশা। কাজ তাঁকে এই পদে নিয়ে গেছে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

বিশ্বব্যাংকের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে, উন্নয়ন বিষয়ে জুনায়েদ আহমেদের অগাধ জ্ঞান ও অভিজ্ঞতা রয়েছে। তিনি ১৯৯১ সালে বিশ্বব্যাংকে চাকরি শুরু করেন। তিনি আফ্রিকা ও পূর্ব ইউরোপে অবকাঠামো উন্নয়নে কাজ করেছেন। তিনি আফ্রিকা, মধ্যপ্রাচ্য, উত্তর আমেরিকা, ভারত ও দক্ষিণ এশিয়ার অন্যান্য দেশে বিশ্বব্যাংকের বিভিন্ন পদে থেকে দায়িত্ব পালন করেন।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আরো জানানো হয়েছে, জুনায়েদ আহমেদ এশিয়ার পয়োনিষ্কাশন ও পানি ব্যবস্থাপনা নিয়ে কাজ করেন। একই সঙ্গে অবকাঠামো উন্নয়নে অর্থায়ন, নগরায়ণের পথে বাধা, শহর ব্যবস্থাপনা এবং স্থানীয় সরকার সংস্কার নিয়েও তিনি কাজ করে আসছেন। জুনায়েদ আহমেদ স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে অ্যাপ্লাইড ইকোনমিক্সে পিএইচডি করেছেন। হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তিনি লোক প্রশাসন বিষয়ে মাস্টার্স সম্পন্ন করেন।


মন্তব্য