kalerkantho


আইসিটি ফর ডেভেলপমেন্ট অ্যাওয়ার্ড গ্রহণ করলেন জয়

মা হিসেবে আমি গর্বিত : শেখ হাসিনা

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



আইসিটি ফর ডেভেলপমেন্ট অ্যাওয়ার্ড গ্রহণ করলেন জয়

নিউ ইয়র্কে ইউএন প্লাজা হোটেল মিলনায়তনে আইসিটি ফর ডেভেলপমেন্ট অ্যাওয়ার্ড’ প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে পুরস্কার হাতে সজীব ওয়াজেদ জয়। ছবি : পিএমও

প্রথমবারের মতো প্রবর্তিত ‘আইসিটি ফর ডেভেলপমেন্ট অ্যাওয়ার্ড’ পেলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছেলে এবং তাঁর তথ্য ও প্রযুক্তিবিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়। ডিজিটাল বিশ্বের সড়কে বাংলাদেশকে পৌঁছে দেওয়ার স্বীকৃতি হিসেবে তাঁকে এই পুরস্কার দেওয়া হয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্ক সময় সোমবার সন্ধ্যায় জাতিসংঘ সদর দপ্তরের কাছে ইউএন প্লাজা হোটেল মিলনায়তনে এক জমকালো অনুষ্ঠানে জয়ের হাতে এই পুরস্কার তুলে দেন হলিউডের অভিনেতা রবার্ট ডেভি। তিনি জয়ের ভূয়সী প্রশংসাও করেন।

অনুষ্ঠানে সম্মানিত অতিথির বক্তব্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, “জয় সরকারের ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’-এর অর্জনের লক্ষ্য রূপায়ণ সম্ভব করে তুলেছে। আমাদের যুবকদের অব্যাহতভাবে নির্ভয়ে বড় কাজ করার জন্য অনুপ্রাণিত করে যাচ্ছে। আমার ছেলে তার কাজের জন্য স্বীকৃতি পাচ্ছে দেখে মা হিসেবে আমি গর্বিত। সে আমাদের জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের ‘সোনার বাংলা’ বাস্তবায়নে তার কৃতিত্ব দেখিয়েছে। ”

শেখ হাসিনা বলেন, ‘জয়ের কাছ থেকেই আমি কম্পিউটার চালানো শিখেছি। এ জন্য সে আমার শিক্ষক। ’ এই পুরস্কারের জন্য বাংলাদেশ থেকে কাউকে মনোনয়ন দেওয়ার জন্য আয়োজকদের ধন্যবাদ জানান প্রধানমন্ত্রী।

পুরস্কার গ্রহণের পর অনুভূতি ব্যক্ত করতে গিয়ে সজীব ওয়াজেদ জয় বলেন, ‘আমি এই পুরস্কার লাভ করায় খুবই সম্মানিত বোধ করছি। ’ তিনি ‘ডিজিটাল বাংলাদেশ’ বিনির্মাণের সম্ভাবনাময় শক্তি দেশের সব তরুণের উদ্দেশে এই পুরস্কার উৎসর্গ করেন।

জাতিসংঘের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য (এসডিজি) গৃহীত হওয়ার প্রথম বর্ষপূর্তি উপলক্ষে ওয়ার্ল্ড অর্গানাইজেশন অব গভর্ন্যান্স অ্যান্ড কম্পিটিটিভনেস, প্ল্যান ট্রিফিনিও, গ্লোবাল ফ্যাশন ফর ডেভেলপমেন্ট এবং যুক্তরাষ্ট্রের কানেটিকাট স্টেটের নিউ হ্যাভেন বিশ্ববিদ্যালয়ের স্কুল অব বিজনেস সম্মিলিতভাবে এ পুরস্কার প্রবর্তন করেছে। পুরস্কারটি বার্ষিক ভিত্তিতে নিয়মিতভাবে দেওয়া হবে।

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পাশাপাশি বাংলাদেশ ও অন্যান্য দেশ থেকে আসা মন্ত্রী ও উচ্চ পর্যায়ের রাজনৈতিক নেতারা, জাতিসংঘের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা, আন্তর্জাতিক সংগঠনের প্রধানরা, দূতরা, বেসরকারি খাত ও সুধীসমাজের নেতারা এবং খ্যাতিমান তারকারা উপস্থিত ছিলেন। সূত্র : বাসস।

 


মন্তব্য