kalerkantho

রবিবার। ৪ ডিসেম্বর ২০১৬। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


৩৮ হাজার ‘অবৈধ বাংলাদেশি’র খোঁজে আসাম পুলিশ

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



৩৮ হাজার ‘অবৈধ বাংলাদেশি’র খোঁজে আসাম পুলিশ

ভারতের আসামে ৩৮ হাজার ‘অবৈধ বাংলাদেশিকে’ শনাক্ত করতে জোরালো পদক্ষেপ গ্রহণের জন্য পুলিশকে কড়া নির্দেশ দিয়েছে রাজ্য সরকার। ১৯৭১ সালের পর আসামে অনুপ্রবেশকারী এসব ‘বাংলাদেশি’ গ্রেপ্তার এড়িয়ে আসছে বলে দাবি করা হচ্ছে।

গত বৃহস্পতিবার দি আসাম ট্রিবিউন এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানিয়েছে।

নতুন নির্দেশনা অনুযায়ী, আসামের সব জেলার পুলিশ সুপারকে (এসপি) এখন থেকে শনাক্ত না হওয়া অনুপ্রবেশকারীদের অবস্থা জানিয়ে মাসিক প্রতিবেদন তৈরি করতে হবে। এসব প্রতিবেদনে নিখোঁজ থাকা অবৈধ অভিবাসীদের ধরতে না পারায় পুলিশের ব্যর্থতার নেপথ্য কারণও এসপিদের উল্লেখ করতে হবে।

রাজ্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা আসাম ট্রিবিউনকে বলেন, “খোঁজে না পাওয়া ‘বাংলাদেশিদের’ সন্ধানে আমরা ৫০০ পুলিশ ইউনিট ও টাস্কফোর্সের মধ্যে সহযোগিতা বাড়াতে চাই। ” তিনি বলেন, “শনাক্ত না হওয়া  ‘বাংলাদেশিদের’ বিষয়ে তৈরি করা এসপিদের মাসিক পর্যালোচনা প্রতিবেদন পুলিশের বিশেষ মহাপরিচালকের (এসডিজি-সীমান্ত) কাছে জমা দিতে হবে। এসডিজি এসব প্রতিবেদন বিশ্লেষণ করবেন এবং নিজের মন্তব্যসহ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের ত্রৈমাসিক সভায় তা অবহিত করবেন।

অবৈধ অভিবাসীবিরোধী অভিযানের গতি বাড়াতে গোয়েন্দাদের সহযোগিতা নেওয়ার জন্যও আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে নির্দেশ দিয়েছে রাজ্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। এ ছাড়া অবৈধ বিদেশিদের ধরতে বিশেষ কৌশল গ্রহণের জন্যও পুলিশ সুপারদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। প্রয়োজন হলে পলাতক এসব বিদেশিকে নজরদারিতে রাখতে হবে।

সম্প্রতি রাজ্য স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক রুদ্ধদ্বার বৈঠকে এ বিষয়ে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর দুর্বল তৎপরতা নিয়ে তীব্র অসন্তোষ ব্যক্ত করা হয়। বিশেষ করে গত এক বছরে ১৯৭১ সাল-পরবর্তী অনুপ্রবেশকারীদের মধ্যে মাত্র ৮৭০ জনকে ধরতে পারায় এই ক্ষোভ প্রকাশ করা হয়।

সূত্রটি বলেছে, ‘সাফল্যের এই হার খুবই কম মনে হয়েছে। বিশেষ করে যখন আমরা এটা ভাবি, লক্ষ্য অর্জনের জন্য আমাদের ৫০০ পুলিশ ইউনিট ও টাস্কফোর্স রয়েছে। এ জন্য পুলিশ বিভাগকে তৎপরতা বাড়ানোর নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। ’

প্রসঙ্গত, চলতি বছরের শুরুর দিকে রাজ্যের সব ডিসি ও এসপিকে নিয়ে ভিডিও কনফারেন্স করেন আসামের মুখ্য সচিব। সম্মেলনে তিনি আরো বেশি পরিমাণে অবৈধ অনুপ্রবেশকারীদের তালিকাভুক্ত করতে রাজ্যের পুলিশ বিভাগ ও বেসামরিক প্রশাসনকে মিলেমিশে কাজ করার নির্দেশ দেন।


মন্তব্য