kalerkantho

বুধবার । ৭ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৩ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৬ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ঈদে নিরাপত্তায় বিশেষ সতর্কতা

ঈদগাহে জায়নামাজ ছাড়া আর কিছু না

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১২ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



ঈদে নিরাপত্তায় বিশেষ সতর্কতা

গত ঈদুল ফিতরের দিন কিশোরগঞ্জের শোলাকিয়া মাঠের কাছে এবং এর কয়েক দিন আগে গুলশানে হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় জঙ্গি হামলার ঘটনা মাথায় রেখে এবারের ঈদুল আজহায় বিশেষ নিরাপত্তামূলক ব্যবস্থা নিয়েছে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। ঈদের সাধারণ নিরাপত্তা ব্যবস্থার পাশাপাশি নেওয়া হয়েছে বিশেষ সতর্কতা।

জাতীয় ঈদগাহসহ বড় ঈদের জামাতগুলোতে জায়নামাজের বাইরে অন্য কিছু না আনতে মুসল্লিদের অনুরোধ করা হয়েছে।

পুলিশ ও র‌্যাব কর্মকর্তারা বলেছেন, এবারের ঈদে নিরাপত্তা দিতে অন্তত এক লাখ ২০ হাজার পুলিশ-র‌্যাব বিশেষ দায়িত্ব পালন করছে। এ জন্য দায়িত্বশীল কর্মকর্তাদেরও ঈদ ছুটি বাতিল করা হয়েছে। গতকাল দুপুরে বাড্ডার আফতাবনগরে কোরবানিরপশুর হাট পরিদর্শন করতে গিয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, ‘জঙ্গিরা যেন মাথাচাড়া দিতে না পারে সে জন্য আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা কাজ করছেন। ঈদের জন্য সব রকমের নিরাপত্তাব্যবস্থা আমরা গ্রহণ করেছি। ’

অন্যদিকে জাতীয় ঈদগাহের নিরাপত্তা পরিস্থিতি পর্যবেক্ষণ করে র্যাবের মহাপরিচালক বেনজীর আহমেদ বলেন, ‘জায়নামাজ ছাড়া অন্য কিছু না নিয়ে নামাজ আদায় করতে আসার জন্য মুসল্লিদের অনুরোধ করা হচ্ছে। অন্য কিছু নিয়ে এলে ঈদগাহে ঢুকতে সময় লাগবে। স্ক্যান করতে দেরি হবে। ’ তিনি আরো বলেন, ‘সব বড় ঈদগাহে বিশেষ নিরাপত্তাব্যবস্থা থাকবে। টার্মিনাল, কোরবানির স্থান, মার্কেটসহ সবখানে নিরাপত্তা নজরদারি রয়েছে। দেশবাসী যেন অত্যন্ত আন্তরিক পরিবেশে নিরাপদে ঈদ উদ্যাপন করতে পারে সে জন্য আমাদের কয়েক হাজার সদস্য কাজ করছেন। ’

পুলিশ ও র‌্যাব কর্মকর্তারা জানান, মহাসড়কসহ বিভিন্ন সড়কে অস্থায়ী চেকপোস্ট বাড়ানো হয়েছে। রাজধানীতে পুলিশের ২০ হাজার সদস্য বিশেষভাবে দায়িত্ব পালন করবেন। ঢাকার বাইরে অন্তত ৩০ হাজার সদস্যকে বিশেষভাবে দায়িত্ব দেওয়া হচ্ছে। সারা দেশে পুলিশের এক লাখ সদস্য দৈনন্দিন কাজে বাইরে দায়িত্ব পালন করবেন। এ ছাড়া র‌্যাব, বিজিবি, আনসারসহ ৫০ হাজার সদস্য নিরাপত্তার দায়িত্ব পালন করছেন। ঢাকার মধ্যে কূটনৈতিক জোন গুলশানকে বিশেষ গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে। মহাসড়কে হাইওয়ে পুলিশের নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে। স্টেশন, গবাদি পশুর হাটগুলোতে গোয়েন্দা নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। স্টেশন ও মহাসড়কের বিভিন্ন স্থানে সাদা পোশাকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে।

পুলিশ সদর দপ্তরের এআইজি (মিডিয়া) জালাল উদ্দিন আহমেদ চৌধুরী জানান, ঈদ উপলক্ষে বাড়তি নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে। এবার সারা দেশে পুলিশের এক লাখ ৫৫ হাজার সদস্যই দায়িত্ব পালন করবেন। যেকোনো অনভিপ্রেত ঘটনা যাতে না ঘটে এ জন্য পুলিশ সতর্ক রয়েছে।


মন্তব্য