kalerkantho


খুলনায় জঙ্গি সন্দেহে স্বামী-স্ত্রী ও ছেলে আটক

গাইবান্ধায় জেএমবি সদস্য গ্রেপ্তার

নিজস্ব প্রতিবেদক, খুলনা ও গাইবান্ধা প্রতিনিধি   

৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



খুলনায় জঙ্গি সন্দেহে স্বামী-স্ত্রী ও ছেলে আটক

খুলনা নগরীর বসুপাড়া এরশাদ আলী লেনের বাসা থেকে জঙ্গি সন্দেহে স্বামী-স্ত্রী ও ছেলেকে আটক করেছে র‌্যাব। গত বুধবার রাত ২টার দিকে তাদের আটক করা হয়।

আটকৃতরা হলো খুলনা আঞ্চলিক খাদ্য নিয়ন্ত্রকের একান্ত সহকারী ইদ্রিস আলী, তার স্ত্রী ও ছেলে ইমতিয়াজ।

র‌্যাব-৬ খুলনার পরিচালক অতিরিক্ত ডিআইজি খন্দকার রফিকুল ইসলাম জানান, আটককৃতদের বিরুদ্ধে জঙ্গি কর্মকাণ্ডের অভিযোগ রয়েছে। ইদ্রিস আলীর ছেলে ইমতিয়াজ একটি প্রাইভেট মেডিক্যঅল ইনস্টিটিউশনের প্যারা মেডিক্যালের ছাত্র। তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। তাদের এখনো গ্রেপ্তার দেখানো হয়নি।

এদিকে গতকাল বৃহস্পতিবার সকালে গাইবান্ধার সাঘাটা উপজেলার বোনারপাড়া কলেজ রোড এলাকা থেকে এক জেএমবি সদস্যকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। তার নাম ফরিদ উদ্দিন (৪৫)। পরে তার বাড়ির পেছনে বাঁশঝাড়ের নিচে পুঁতে রাখা তিনটি তাজা বোমাসহ ৯টি সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়েছে। গতকাল বিকেলে তাকে আদালতে নেওয়া হলে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মো, জয়নাল আবেদিন।

সাঘাটা থানার ওসি মোস্তাফিজুর রহমান জানান, জিজ্ঞাসাবাদে ফরিদ উদ্দিন পুলিশকে জানিয়েছেম তার আদি বাড়ি ছিল ফুলছড়ি উপজেলা হেডকোয়ার্টার সংলগ্ন এলাকায়। নদীভাঙনের কারণে ১৯৯৪ সাল থেকে তারা সাঘাটার পশ্চিম রাঘবপুর ভূতমারা গ্রামে বসবাস শুরু করে। সেখানেই জেএমবির সক্রিয় কর্মী মোকছেদুল ইসলামের মাধ্যমে জঙ্গি সংগঠনে সদস্য হয়। মোকছেদুলের পাওয়ারট্রলির চালক হিসেবে কাজ করত ফরিদ ।

ওসি আরো জানান, গাইবান্ধায় জঙ্গিদের বিরুদ্ধে অভিযান শুরু হলে মোকছেদুল বোমাভর্তি ব্যাগ ফরিদ উদ্দিনের কাছে রেখে স্ত্রী রোজিনা বেগমসহ পালিয়ে গিয়ে টাঙ্গাইলে বসবাস শুরু করে। গত মাসে জেএমবি কর্মী মোকছেদুল ইসলাম ও তার স্ত্রী রোজিনা ধরা পড়লে জিজ্ঞাসাবাদে তারা ফরিদ উদ্দিনের কথা জানায়। এরপর টাঙ্গাইল পুলিশসহ বিভিন্ন আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্য গত মাসে একাধিকবার ফরিদ উদ্দিনের বাড়িতে অভিযান চালায়। তবে টের পেয়ে ফরিদ পালিয়ে যায়। পরে গোপন সূত্রের ভিত্তিতে তাকে আটক করে গাইবান্ধার সাঘাটা থানার পুলিশ।

পুলিশ সুপার মো. আশরাফুল ইসলাম জানান, বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে তাকে সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে নেওয়া হলে সে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। পরে তাকে কারাগারে পাঠানোর নির্দেশ দেন আদালত।

 


মন্তব্য