kalerkantho

বৃহস্পতিবার । ৮ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৪ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৭ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


বিপ্লবের গোপন ক্যামেরার ফাঁদে অর্ধশত নারী!

প্রতারক বিপ্লবকে ধরতে পুলিশের অভিযান

সোহেল হাফিজ, বরগুনা   

৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



বিপ্লবের গোপন ক্যামেরার ফাঁদে অর্ধশত নারী!

বিপ্লব

ছবি তুলতে গিয়ে উচ্চ মাধ্যমিকের শিক্ষার্থী পুষ্পর (ছদ্মনাম) পরিচয় হয় স্টুডিও মালিক বিপ্লবের সঙ্গে। একপর্যায়ে সেই পরিচিতি থেকে দুজনের ঘনিষ্ঠতা।

কিন্তু পুষ্প বুঝতে পারেনি এটা বিপ্লবের একটি ফাঁদ। স্টুডিওর ভেতরে পেতে রাখা গোপন ক্যামেরায় উঠে যায় দুজনের একান্ত মুহূর্তের ভিডিও চিত্র। আর তা দিয়ে ব্ল্যাকমেইল শুরু করে এই লম্পট। এভাবে প্রায় অর্ধশত নারীকে এই লম্পটের ফাঁদে ফেলার মতো ভয়াবহ ঘটনা ঘটেছে বরগুনার পাথরঘাটায়।

জানা গেছে, আপত্তিকর ভিডিওকে অস্ত্র বানিয়ে প্রতারক বিপ্লব মেয়েটিকে হুমকি-ধমকি দিতে থাকে—‘এটা করো, ওটা করো। টাকা দাও। নইলে এই ভিডিও চিত্র ইন্টারনেটে ছেড়ে দেব। ’ এ অবস্থায় অসহায় হয়ে পড়ে মেয়েটি। অথচ মুখ ফুটে কিছু বলতেও পারে না। একটাই ভয়, যদি এই লম্পট সত্যি সত্যিই এই ভিডিও ইন্টারনেটে ছেড়ে দেয়! এমনই অবস্থায় একদিন পুষ্প বিপ্লবের স্টুডিওতে কম্পিউটার নাড়াচাড়া করতে গিয়ে একটি গোপন ফোল্ডারে দেখতে পায় একই স্টুডিওতে পেতে রাখা গোপন ক্যামেরায় তোলা তার মতো আরো প্রায় অর্ধশত নারীর আপত্তিকর ভিডিও। তাঁরা সবাই এখন বিপ্লবের গোপন ক্যামেরার ফাঁদে বন্দি।

সম্প্রতি গোপন সংবাদের ভিত্তিতে কালের কণ্ঠ’র অনুসন্ধানে বেরিয়ে আসে পাথরঘাটার বখাটে লম্পট বিপ্লবের প্রতারণার এই ভয়াবহ চিত্র। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গোপন ক্যামেরায় ধারণ করা প্রায় অর্ধশত নারীর আপত্তিকর ভিডিও বিপ্লব ইতিমধ্যে ছড়িয়ে দিয়েছে তার বন্ধুদের মোবাইলে।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে স্থানীয় একাধিক ব্যক্তি বলেন, ‘বিপ্লবের গোপন ক্যামেরায় তোলা বিভিন্ন বয়সের প্রায় অর্ধশত নারীর গোপন ভিডিও এখন ছড়িয়ে গেছে পাথরঘাটার তরুণ প্রজন্মের মোবাইল থেকে মোবাইলে। আর তাতে করে লোকলজ্জার ভয়ে ঘরবন্দি হয়ে দুর্বিষহ জীবন কাটাচ্ছেন ওই সব নারী।

লম্পট বিপ্লবের এই প্রতারণার খবর জেনে গেছে বরগুনা জেলা পুলিশও। পুলিশ সুপার বিজয় বসাকের নির্দেশে গতকাল বৃহস্পতিবার পাথরঘাটার নতুনবাজার এলাকায় অভিযান চালায় গোয়েন্দা পুলিশের একটি দল। কিন্তু পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে সে কৌশলে পালিয়ে যায়। পরে গোয়েন্দা পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ আব্দুল্লাহর নেতৃত্বে শহরের নতুনবাজার এলাকায় বিপ্লবের আলোচিত স্টুডিওতে অভিযান চালিয়ে বিপ্লবের কম্পিউটার জব্দ করে পুলিশ। এ সময় ওই কম্পিউটারে বিভিন্ন বয়সের ভিন্ন ভিন্ন নারীর একান্ত মুহূর্তের ২০ থেকে ২৫টি ভিডিও ফুটেজ উদ্ধার করে গোয়েন্দা পুলিশ। বিকেলে এই প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত বিপ্লবকে গ্রেপ্তারে পুলিশের অভিযান অব্যাহত ছিল। তবে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য বিপ্লবের ছোট ভাই শহীদকে আটক করেছে পুলিশ।

এ বিষয়ে পুলিশ সুপার বিজয় বসাক জানান, যেখানেই থাকুক না কেন, পালিয়ে পার পাবে না বিপ্লব। তাকে গ্রেপ্তারে সর্বোচ্চ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে পুলিশ। আর এই বিকৃত মানসিকতার এই যুবকের ধারণ করা আপত্তিকর গোপন ভিডিও ফুটেজ যার মোবাইল ফোনসেটে পাওয়া যাবে তাকেও ছাড়া হবে না। পর্নোগ্রাফি আইনে ওই সব মোবাইল ফোনধারীর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

প্রসঙ্গত, বরগুনা সদর উপজেলার নলটোনা ইউনিয়নের নিশানবাড়িয়া গ্রামের আবদুর রাজ্জাক খানের ছেলে বিপ্লব খান (২৫)। তার শ্বশুরবাড়ি পাথরঘাটা উপজেলার নতুনবাজার এলাকায়। বিপ্লব দীর্ঘদিন সৌদি আরবে ছিল। দুই বছর ধরে নতুনবাজারে ‘মা ডিজিটাল স্টুডিও’ নামের একটি স্টুডিও চালাচ্ছে।


মন্তব্য