kalerkantho

শনিবার । ৩ ডিসেম্বর ২০১৬। ১৯ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ২ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


ঢাকায় নিজ বাসার ভেতর গৃহবধূকে কুপিয়ে হত্যা

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



ঢাকায় নিজ বাসার ভেতর গৃহবধূকে কুপিয়ে হত্যা

রাজধানীর দক্ষিণখানে নিজের বাসার ভেতর এক গৃহবধূকে কুপিয়ে হত্যা করেছে দুর্বৃত্তরা। গতকাল বুধবার রাতে এ ঘটনা ঘটে।

বাসা ভাড়া নেওয়ার কথা বলে দুই যুবক বাসার ভেতর ঢুকে এ ঘটনা ঘটিয়েছে বলে স্বজনরা জানিয়েছে।

নিহতের নাম ওয়াহিদা আক্তার সীমা (৪৫)। তিনি কাতারপ্রবাসী তোহরাব হোসেনের স্ত্রী। তোহরাব সম্প্রতি দেশে এসেছেন; গতকাল ঘটনার সময় তিনি কুমিল্লায় গ্রামের বাড়িতে ছিলেন। তাঁদের দুই মেয়ে ও এক ছেলে।

নিহতের মেয়ে শোভা আক্তার কালের কণ্ঠকে জানান, দক্ষিণখানের গাওইর এলাকায় নিজেদের ৭১৫/২ নম্বর বাসার তিনতলায় মাসহ তাঁরা থাকতেন। গতকাল সন্ধ্যা ৬টার দিকে দুই যুবক বাসায় ঢুকে তিনতলার কলিংবেল চাপে। মা বেরিয়ে এলে যুবকরা জানায় তারা বাসার ষষ্ঠ তলা ভাড়া নেওয়ার জন্য এসেছে। তখন মা তাদের নিয়ে বাসা দেখাতে ষষ্ঠ তলায় যান। এর কিছুক্ষণ পর মায়ের চিৎকার শুনে তাঁরা ছুটে গিয়ে দেখেন, তিনি রক্তাক্ত অবস্থায় পড়ে আছেন। তাঁরা যাওয়ার আগেই ওই যুবকরা ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে পালিয়েছে।

শোভা জানান, এরপর তাঁরা আশপাশের লোকজনের সহায়তায় মাকে দ্রুত স্থানীয় জাহানারা ক্লিনিকে নিয়ে যান। সেখান থেকে চিকিৎসকরা পাঠান ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। রাত ১০টার দিকে সেখানে নেওয়ার পর চিকিৎসকরা মাকে মৃত ঘোষণা করেন।

শোভা আরো জানান, তাঁর মায়ের গলায় সোনার চেইন ও কানে সোনার দুল ছিল। রক্তাক্ত অবস্থায় উদ্ধারের সময়ই সেই অলংকারগুলো আর দেখা যায়নি।

দক্ষিণখান থানার ওসি (তদন্ত) রুকনুজ্জামান কালের কণ্ঠকে বলেন, প্রাথমিকভাবে ঘটনাটি রহস্যজনক মনে হচ্ছে। ডাকাতির উদ্দেশ্যে নাকি পারিবারিক বিরোধে এই খুনের ঘটনা ঘটেছে, তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। এ ঘটনায় এখনো মামলা হয়নি। লাশ ময়নাতদন্তের জন্য ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল মর্গে রয়েছে।

ঢাকা মেডিক্যাল সূত্র জানায়, ওই নারীর দেহের বিভিন্ন স্থানে ধারালো অস্ত্রের আঘাতের চিহ্ন রয়েছে। ছুরি বা চাপাতি দিয়ে কুপিয়েছে দুর্বৃত্তরা। হাসপাতালে পৌঁছার আগেই ওয়াহিদা আক্তারের মৃত্যু হয়েছে বলে চিকিৎসকরা জানিয়েছেন। আজ বৃহস্পতিবার লাশের ময়নাতদন্ত হওয়ার কথা রয়েছে।


মন্তব্য