kalerkantho

রবিবার। ৪ ডিসেম্বর ২০১৬। ২০ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৩ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


মহাসড়কের গাড়িজটে অবরুদ্ধ রাজধানী

পার্থ সারথি দাস   

৮ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



মহাসড়কের গাড়িজটে অবরুদ্ধ রাজধানী

ভয়াবহ যানজটে স্থবির রাজধানীর রাজপথ। বাংলামোটর-কারওয়ান বাজার এলাকায় ভিআইপি রোডের গতকালের চিত্র। ছবি : কালের কণ্ঠ

মঙ্গলবার রাত ৯টায় কুষ্টিয়ার মিরপুর থেকে ট্রাকে ২১টি গরু তুলে ঢাকার আফতাবনগরের উদ্দেশে রওনা দেন চালক ফকির আলী। রাত দেড়টায় বঙ্গবন্ধু সেতু পার হয়েই পড়েন যানজটে।

বুধবার দুপুর সাড়ে ১২টায় আবদুল্লাহপুরে ঢোকেন তিনি। সেখান থেকে দেড় ঘণ্টায় কুড়িল-প্রগতি সরণি হয়ে আফতাবনগর পৌঁছেন। রাজধানীর অন্যতম করিডর কুড়িল-প্রগতি সরণি-রামপুরা-মালিবাগ-খিলগাঁও-সায়েদাবাদ-যাত্রাবাড়ী সড়ক ঘুরে গতকাল দুপুরে দেখা গেল, নতুনবাজার, মধ্য বাড্ডা, রামপুরা, মালিবাগ চৌধুরীপাড়া পর্যন্ত জট পাকিয়ে আছে পশুবাহী ট্রাক, প্রাইভেট কার, দূরপাল্লা ও লোকাল রুটের বাসগুলো। মধ্য বাড্ডায় ইউ লুপ নির্মাণের জন্য অর্ধেক রাস্তা বন্ধ। সেখানে জটে আটকে থাকা তুরাগ পরিবহনে চেপে সায়েদাবাদ যাচ্ছিলেন সিরাজুল ইসলাম। যাবেন চট্টগ্রাম। বললেন, ‘কুড়িল থেকে রওনা দিয়ে দেড় ঘণ্টা ধরে জ্যামে আছি, কখন বাসে উঠব?’

গতকাল বুধবার সকাল থেকেই যানজটের ভোগান্তিতে পড়তে হয়েছে ঈদযাত্রীদের। বিশেষ করে উত্তর ও দক্ষিণ-পশ্চিমের বিভিন্ন জেলা থেকে পশুবাহী ট্রাকের চাপ বেড়ে যাওয়ায় ঘণ্টার পর ঘণ্টা মহাসড়কের যানজট রাজধানীর প্রধান প্রবেশপথগুলো হয়ে পুরো মহানগরীতে ছড়িয়ে পড়ে। পাটুরিয়া-দৌলতদিয়া ঘাটে ফেরি সংকটের কারণে ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে বাড়তি চাপ এবং ওই মহাসড়কে একের পর এক গাড়ি বিকল হওয়ায় রাত থেকে দীর্ঘ যানজট শুরু হয়। এর সঙ্গে অবরোধে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক দুই ঘণ্টা বন্ধ থাকায় রাজধানী কার্যত অচল হয়ে পড়ে।

কমলাপুর থেকে ৩১টি আন্তনগর ট্রেন সকাল থেকে একে একে ছেড়ে যায় বিভিন্ন গন্তব্যে। মহাসড়কেও বাড়তি চাপ, যা আজ আরো বাড়বে বলে সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন। কারণ আজ বিকেলে অফিস ছুটির পরই টানা ছয় দিনের ছুটি সামনে রেখে শুরু হবে বাড়ি ফেরা। তবে তার আগে কেনাকাটা ও অন্যান্য জরুরি কাজে বেরিয়ে রাজধানীতে গতকাল মানুষজনকে ভয়াবহ যানজটে পড়তে হয়। অফিস ছুটির পর যানজট এড়াতে উত্তরা ও আশপাশের বাসিন্দারা কমলাপুরে গিয়ে বিভিন্ন ট্রেনে উঠে বিমানবন্দর রেলস্টেশনে নামেন। বিকেলে কমলাপুর রেলস্টেশনে যমুনা, উপকূলসহ বিভিন্ন ট্রেনে যাত্রীদের ভিড় ছিল বেশ।

সকাল থেকেই বিজয় সরণি, মহাখালী, তেজগাঁও, মগবাজার, বনানী, কাকলির মতো এলাকা স্থবির হয়ে পড়ে যানজটে। গাজীপুরের টঙ্গী কলেজ গেটে ফুট ওভারব্রিজ নির্মাণের দাবিতে শিক্ষার্থীরা ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক অবরোধ করলে দুই ঘণ্টা যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকে। ফলে তীব্র যানজট দেখা দেয় টঙ্গী-আব্দুল্লাহপুর-উত্তরা-বিমানবন্দর সড়ক, কাকলি, বনানী ও মহাখালী অংশে। দুপুরে শাহবাগ, জাতীয় প্রেস ক্লাব, হাইকোর্ট, মগবাজার, গুলশান-১ ও গুলশান-২ নম্বর গোলচত্বরে গাড়ির চাপে স্থবিরতা নেমে আসে।

ট্রাফিক পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, স্বাভাবিক সময়ের চেয়ে দ্বিগুণের বেশি যানবাহনের চাপে বিভিন্ন সড়কে গাড়ির জট লেগে যাচ্ছে। সোমবার থেকে পশুবাহী গাড়ি রাজধানীতে ঢুকতে শুরু করেছে। উত্তর ও দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের অধীন ২৩টি হাটে পশুবাহী ট্রাকের সঙ্গে রাজধানীর অন্যান্য যানবাহন চলাচলের সমন্বয়ে দক্ষতা দেখাতে পারছে না পুলিশ। বিজয় সরণি-তেজগাঁও ফ্লাইওভার-সাতরাস্তা পার হয়ে হাতিরঝিলে ঢোকার রাস্তা ফাঁকাই ছিল। কিন্তু হাতিরঝিল থেকে কুড়িল-রামপুরা সড়কে ছিল তীব্র জট। সেখানে দায়িত্বরত ট্রাফিক পুলিশ সদস্য মো. শফিকুল ইসলাম দুপুর ২টায় দায়িত্বে এসে যানজট দেখে রীতিমতো ভড়কে যান। গাবতলী বাস টার্মিনাল থেকে আমিনবাজার, মহাখালী থেকে আব্দুল্লাহপুর, সায়েদাবাদ থেকে যাত্রাবাড়ী হয়ে কাঁচপুর, ফুলবাড়িয়া থেকে যাত্রাবাড়ী অংশে যানজটের কারণে দুর্ভোগে পড়ে মানুষ। রাজশাহী যাওয়ার জন্য সকালে হানিফ পরিবহনের বাসে উঠে গাবতলী থেকে সকাল ৮টায় রওনা দিয়ে সাভার যেতেই তিন ঘণ্টা পার হয়ে যায় ইরাজ উদ্দিনের।

চট্টগ্রাম, সিলেটসহ পূর্বাঞ্চলের ১৬ জেলার বাস চলাচল করে সায়েদাবাদ-যাত্রাবাড়ী সড়ক হয়ে। মালিবাগের বাসা থেকে অটোরিকশায় উঠে সায়েদাবাদ টার্মিনালে যেতে ইয়ার আলীর দেড় ঘণ্টা সময় লেগেছে। তাঁকে বাড়তি ভাড়া দিতে হয় ১৮০ টাকা। মগবাজার, মালিবাগ, রাজারবাগ, শান্তিনগরে ফ্লাইওভারের কাজ চলতে থাকায় যানজট ঠেলে যাত্রীদের টার্মিনালে যেতে হয়েছে। গোলাপবাগ হয়ে যাত্রাবাড়ী থানা পর্যন্তও ছিল তীব্র জট। ট্রাফিক পুলিশের পূর্ব বিভাগের উপকমিশনার মো. মাঈনুল হাসান কালের কণ্ঠকে বলেন, যাত্রাবাড়ী-কাঁচপুর সড়ক আট লেন হওয়ায় সমস্যা তেমন হচ্ছে না।

বৃহত্তর ময়মনসিংহ, টাঙ্গাইল ও উত্তরবঙ্গের কিছু অংশের মানুষকে মহাখালী-বিমানবন্দর হয়ে রাজধানী ছাড়তে হয়। ময়মনসিংহ, টাঙ্গাইল, সিরাজগঞ্জসহ উত্তরাঞ্চল থেকে আসা যাত্রীবাহী বাসগুলোকে গাজীপুর চৌরাস্তা, টঙ্গীর চেরাগ আলী, স্টেশন রোড, উত্তরার আব্দুল্লাহপুর মোড়, কুড়িল বিশ্বরোড, স্টাফ রোড, বনানী, কাকলী ও মহাখালী লেভেলক্রসিংয়ে আটকে থাকতে হয়েছে দীর্ঘ সময়। পশুবাহী গাড়ি ঢোকার ফলে এসব স্থানে যানজট গতকাল তীব্র ছিল।

দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া ঘাটে ফেরি সংকট, পশুবাহী ট্রাকের চাপে মঙ্গলবার রাত ৩টা থেকে গতকাল সকাল ৯টা পর্যন্ত তীব্র যানজট ছিল ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে। বঙ্গবন্ধু সেতুর পূর্ব পাশ থেকে চন্দ্রা পর্যন্ত ৭০ কিলোমিটার মহাসড়কে গাড়ির গতি ছিল ধীর। রাতে দুই ঘণ্টার ব্যবধানে খাড়াজোরায় দুটি ট্রাকের এক্সেল ভেঙে গেলে এই পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। গতকাল সকালে রেকার দিয়ে ট্রাক দুটি সরানো হয়। তার পরও চন্দ্রা, কোনাবাড়ী, সফিপুর, মৌচাকে যানজট ছিল।

আমাদের টাঙ্গাইল প্রতিনিধি জানান, মঙ্গলবার রাত থেকে সকাল ৮টা পর্যন্ত যানজট ছিল। পরে আস্তে আস্তে গাড়ি চলতে শুরু করে। গতকাল দুপুর আড়াইটায়ও গাড়ির গতি ছিল ধীর। মির্জাপুরের গোড়াই হাইওয়ে থানার ওসি খলিলুর রহমানের বরাতে তিনি জানান, মঙ্গলবার রাত থেকে পাটুরিয়ার গাড়িগুলো এ মহাসড়কে আসায় চাপ অতিরিক্ত বেড়ে গিয়েছিল। ঈদের আগ পর্যন্ত গরুবোঝাই ট্রাকের চাপ থাকায় যানজট নিরসনে বেগ পেতে হবে বলে ওসি জানান।

কালিয়াকৈর (গাজীপুর) প্রতিনিধি জানান, ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কের গাজীপুর ভোগড়া বাইপাস থেকে কালিয়াকৈরের বোর্ডঘর পর্যন্ত গত মঙ্গলবার রাত থেকে গতকাল বুধবার সকাল পর্যন্ত ২০ কিলোমিটার দীর্ঘ যানজটের সৃষ্টি হয়।

গাজীপুরের টঙ্গী কলেজ গেটে ফুট ওভারব্রিজ নির্মাণের দাবিতে শিক্ষার্থীরা ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক অবরোধ করলে দুই ঘণ্টা যানবাহন চলাচল বন্ধ থাকে। মহাসড়কে তীব্র জটে আটকা পড়ে অসংখ্য মানুষ। গাজীপুর থেকে নিজস্ব প্রতিবেদক জানান, সকাল ৮টার দিকে সফিউদ্দিন সরকার একাডেমি অ্যান্ড কলেজের শিক্ষার্থীরা প্রতিষ্ঠানের সামনের মহাসড়ক অবরোধ করে। গত রবিবার বিকেলে ওই একাডেমির সপ্তম শ্রেণির ছাত্রী রিফাহ্ তাসনিহ্ (১২) ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক পার হওয়ার সময় বাসচাপায় নিহত হয়। কয়েক বছরে এখানে ১০-১২ জন শিক্ষার্থীর মৃত্যু হয়েছে।

সোনারগাঁ (নারায়ণগঞ্জ) প্রতিনিধি জানান, ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের সোনারগাঁয়েও মেঘনা সেতুর পশ্চিম দিকে দুটি গাড়ি বিকল হওয়ায় গতকাল সকাল থেকে বিকেল পর্যন্ত যানজট ছিল। গত রাতে যানবাহন চলেছে কচ্ছপগতিতে। কাঁচপুর হাইওয়ে পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) শেখ শরিফুল আলম জানান, গরুবোঝাই ট্রাক চলাচল বেড়ে গেছে মহাসড়কে। মেঘনা সেতু দুই লেনের হওয়ায় যানবাহন ধীরে ধীরে চলাচল করে।

মুন্সীগঞ্জ প্রতিনিধি জানান, মহাসড়কের গজারিয়ায় যানজট ছিল ১৩ কিলোমিটার দীর্ঘ। গতকাল ভোরে বাউশিয়া পাখির মোড়ে কুমিল্লাগামী কাভার্ড ভ্যানের সঙ্গে বিপরীতমুখী পিকআপের, ভাটেরচরে দুটি ট্রাকের সংঘর্ষ ও সকালে মেঘনা সেতুর ওপর দুটি মালবাহী ট্রাক বিকল হয়ে যাওয়ায় যানজট বেধে যায়।

বিআইডাব্লিউটিসি সূত্রে জানা গেছে, দৌলতদিয়া প্রান্তের চারটি ঘাট দফায় দফায় ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। পদ্মায় পানি বেড়ে যাওয়া ও ঘাট বিপর্যয়ে ঢাকা-আরিচা-খুলনা মহাসড়কের গাড়ি স্বাভাবিকের তুলনায় অর্ধেকে নেমেছে। গতকাল বিকেলে দুই ঘাটে পারাপারের অপেক্ষায় ছিল পাঁচ শতাধিক যানবাহন।


মন্তব্য