kalerkantho

শনিবার । ১০ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৯ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


দূষণ কণা মস্তিষ্কেও

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



দূষণ কণা মস্তিষ্কেও

দূষিত বায়ুতে বসবাসের কারণে মানুষের ফুসফুস ও হৃদযন্ত্রে যে জটিলতা তৈরি হতে পারে তা আগেই অনেক গবেষণায় উঠে এসেছে। তবে এবার নতুন গবেষণায় উঠে এসেছে আরেকটি আশঙ্কার কথা।

বিজ্ঞানীরা দাবি করেছেন, নমুনা হিসেবে সংগ্রহ করা কয়েকটি মস্তিষ্কের টিস্যুর ভেতরে তারা দূষণসৃষ্ট কয়েকটি ক্ষুদ্র কণার উপস্থিতি পেয়েছেন। ধারণা করা হচ্ছে, এগুলো বিষাক্ত আয়রন অক্সাইডের কণা, যা আলঝেইমারের (স্মৃতিভ্রম) মতো রোগের জন্য দায়ী। অবশ্য এ ব্যাপারে এখনো যথেষ্ট প্রমাণ হাজির করতে পারেননি গবেষকরা।

ল্যানচেস্টার ইউনিভার্সিটির নেতৃত্বে নতুন গবেষণাটি পরিচালিত হয়েছে। পরে প্রসিডিংস অব দ্য ন্যাশনাল একাডেমি অব সায়েন্সে (পিএনএএস) গবেষণা নিবন্ধটি প্রকাশ করা হয়। এ গবেষণায় প্রথমবারের মতো এমন প্রমাণ হাজির করা হয়েছে যে দূষণ থেকে উৎপন্ন ম্যাগনেটাইট নামের মিনিট পার্টিকেলগুলো মস্তিষ্কে জায়গা করে নিতে পারে।

গবেষণার জন্য ৩৭ ব্যক্তির কাছ থেকে মস্তিষ্ক টিস্যুর নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছিল। এর মধ্যে ২৯ জন ছিল এমন যারা মেক্সিকো সিটিতে বসবাস করত এবং সেখানেই মারা গেছে। আর এই মেক্সিকো সিটি দূষণের শহর হিসেবে পরিচিত। ওই ২৯ জনের বয়স ৩-৮৫ বছরের মধ্যে। বাকি আট ব্যক্তি অর্থাৎ যাদের কাছ থেকে মস্তিষ্ক টিস্যুর নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে তাদের বয়স ৬২-৯২ বছরের মধ্যে। তারা ম্যানচেস্টারের বাসিন্দা। এ আটজনের কেউ কেউ তীব্র স্নায়ুরোগজনিত জটিলতায় ভুগে মারা গেছে।

চলতি বছরের শুরুতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা সতর্ক করে বলেছিল, প্রতিবছর বায়ুদূষণের কারণে ৩০ লাখ মানুষের অকাল মৃত্যু হচ্ছে।

গবেষণাদলের প্রধান অধ্যাপক বারবারা মাহের শুরুতে ল্যানচেস্টারের বৌস্ত সড়কে এবং একটি বিদ্যুৎকেন্দ্রের বাইরের বাতাসের নমুনায় ম্যাগনেটাইট কণার উপস্থিতি পেয়েছিলেন। একই ধরনের দূষণ কণা মানুষের মস্তিষ্কেও পাওয়া যেতে পারে বলে সেই সময় সন্দেহ করেন তিনি। আর গবেষণার পর সেই আশঙ্কাই সত্যি হলো। সূত্র : বিবিসি।


মন্তব্য