kalerkantho

মঙ্গলবার । ৬ ডিসেম্বর ২০১৬। ২২ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ৫ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


উদ্ধার হয়েছে ব্যবহৃত ছুরি

ওবায়দুল দায় স্বীকার করেছে

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৬ ০০:০০



উদ্ধার হয়েছে ব্যবহৃত ছুরি

রাজধানীর উইলস লিটল ফ্লাওয়ার স্কুলের অষ্টম শ্রেণির ছাত্রী সুরাইয়া আক্তার রিশাকে হত্যার দায় স্বীকার করেছে অভিযুক্ত ওবায়দুল খান। জিজ্ঞাসাবাদে তার দেওয়া তথ্য অনুযায়ী হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত ছুরিটি উদ্ধার করেছে পুলিশ।

তদন্তসংশ্লিষ্টরা জানান, হাতিরপুলের একটি দোকান থেকে ছুরিটি কেনে ওবায়দুল। গত শুক্রবার রাতে কাকরাইলের রাজস্ব ভবনের পাশের ড্রেন থেকে সেটি উদ্ধার করা হয়। বাঁটসহ ছুরিটি প্রায় এক ফুট লম্বা।

এদিকে গতকাল শনিবার রিশার স্কুলের শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও স্বজনরা আজিমপুর কবরস্থানে তার কবর জিয়ারত করেছে।

তদন্তসংশ্লিষ্ট একজন পুলিশ কর্মকর্তা জানান, ছুরিটি উদ্ধারের পর হাতিরপুলের যে দোকান থেকে সেটি কেনা হয়েছিল সেই দোকানিকে দেখানো হয়। তিনি নিশ্চিত করেছেন, সেটি তাঁর কাছ থেকে কিনেছিল ওবায়দুল।

রমনা থানার ওসি মশিউর রহমান বলেন, রিমান্ডে ওবায়দুল রিশাকে হত্যার কথা স্বীকার করেছে। ব্যবহৃত ছুরিটি কাকরাইলে রাজস্ব ভবনের পাশের ড্রেনে ফেলে দেওয়ার কথা জানায় সে। এর পরই পুলিশ (শুক্রবার রাতে) তাকে নিয়ে সেখানে যায় এবং ছুরিটি উদ্ধার করে।

ওসি জানান, প্রেমের প্রস্তাব প্রত্যাখ্যান করায় রিশার ওপর ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠে ওবায়দুল। পরে হত্যার পরিকল্পনা করে। স্বীকারোক্তি দিতে রাজি হলেই আসামিকে আদালতে হাজির করা হবে বলে জানান ওসি।

উল্লেখ্য, গত ২৪ আগস্ট দুপুরে উইলস লিটল ফ্লাওয়ার স্কুলের সামনের ফুট ওভারব্রিজের ওপর সুরাইয়া আক্তার রিশাকে ছুরিকাঘাত করে ওবায়দুল। ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ২৮ আগস্ট সকালে তার মৃত্যু হয়। গত ৩১ আগস্ট জনতার সহায়তায় ওবায়দুলকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

রিশার মা তানিয়া হোসেন ওবায়দুলকে আসামি করে রমনা থানায় মামলা করেন। ওই মামলায় তাকে ছয় দিনের রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হচ্ছে। গতকাল ছিল রিমান্ডের তৃতীয় দিন।


মন্তব্য