kalerkantho

শুক্রবার । ২০ জানুয়ারি ২০১৭ । ৭ মাঘ ১৪২৩। ২১ রবিউস সানি ১৪৩৮।


মিয়ানমারে ‘বিশেষ উপদেষ্টা’ হচ্ছেন সু চি

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

১ এপ্রিল, ২০১৬ ০০:০০



মিয়ানমারে ‘বিশেষ উপদেষ্টা’ হচ্ছেন সু চি

মিয়ানমারের ক্ষমতাসীন দলের নেত্রী অং সান সু চিকে রাষ্ট্রের ‘বিশেষ উপদেষ্টা’র ভূমিকায় দেখতে চায় তাঁর দল ন্যাশনাল লীগ ফর ডেমোক্রেসি (এনএলডি)। পার্লামেন্টের দুই কক্ষেই সংখ্যাগুরু দল এনএলডি গতকাল বৃহস্পতিবার এ প্রস্তাব তুলেছে। বেসামরিক প্রশাসনের ওপর সু চির নিয়ন্ত্রণ নিশ্চিত করতেই এ ধরনের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে।

সামরিক জান্তা প্রণীত সংবিধান অনুসারে, সন্তান বিদেশি নাগরিক হওয়ায় রাষ্ট্রপ্রধানের আসনে বসতে পারবেন না সু চি। আর সে কারণেই ছোটবেলার সহপাঠী, ঘনিষ্ঠ সহযোগী তিন কিয়াওকে প্রেসিডেন্ট পদের জন্য মনোনীত করেছেন তিনি। এরই মধ্যে চারটি মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব নিয়েছেন সু চি। তবে এর পরও রাষ্ট্রপ্রধান পদের নিষেধাজ্ঞার ফাঁদ এড়াতেই এ ব্যবস্থা নিতে আগ্রহী এনএলডি। দলটি এ নিয়ে গতকাল পার্লামেন্টে যে প্রস্তাব উত্থাপন করে তাতে সু চির নাম উল্লেখ করে পরামর্শ দেওয়ার বিষয়টির জুড়ে দেওয়া হয়। এতে প্রয়োজনে যেকোনো বৈঠক ডাকতে পারার ক্ষমতা দেওয়া হয় সু চিকে। এ পদের মেয়াদ হবে সরকারের মেয়াদের সমান, পাঁচ বছর। যেকোনো আইনের পক্ষে-বিপক্ষে মত দিতে পারবেন তিনি।

তবে এই প্রস্তাবের বিষয়ে সেনাবাহিনীর প্রতিক্রিয়া কেমন হবে তা এখনো স্পষ্ট নয়। পার্লামেন্টের দুই কক্ষেই সেনাবাহিনীর জন্য ২৫ শতাংশ আসন বরাদ্দ রাখা হয়েছে। তাদের দিক থেকে ৭০ বছর বয়সী এই নেত্রী চারটি মন্ত্রণালয়—শিক্ষা, জ্বালানি, পররাষ্ট্র ও প্রেসিডেন্টের দপ্তর প্রসঙ্গে সিদ্ধান্ত গ্রহণে সক্ষম হবেন কি না তা নিয়েও প্রশ্ন রয়েছে।  

মিয়ানমারে নিযুক্ত অস্ট্রেলিয়ার সাবেক রাষ্ট্রদূত ট্রেভর উইলসন বলেন, সু চিকে সামনে থেকে তাঁর দলের নেতৃত্ব দিতে হবে। উইলসন বর্তমানে অস্ট্রেলিয়ান ন্যাশনাল ইউনিভার্সিটিতে কাজ করেন। ‘সু চি যদি জনগণের প্রত্যাশা অর্ধেকও পূরণ করতে চান তাহলে তাঁকে শক্ত হাতে হাল ধরতে হবে এবং অবশ্যই শৃঙ্খলা বজায় রাখতে হবে। ’

পার্লামেন্টে গতকাল প্রস্তাবটি তোলেন পার্লামেন্টের উচ্চকক্ষের এমপি কি নিয়ন্ত। তিনি বলেন, ‘জনগণ সু চিকে যে ম্যান্ডেট দিয়েছে এর প্রতি সম্মান দেখাতেই এই ভূমিকার বিষয়টি প্রস্তাব করা হয়েছে। ’ সূত্র : এএফপি।


মন্তব্য