kalerkantho


না.গঞ্জ সিটি করপোরেশন

গ্রেপ্তার ঠিকাদারকে ছাড়িয়ে নিতে রাতভর থানায় মেয়র আইভী

নারায়ণগঞ্জ প্রতিনিধি   

১ এপ্রিল, ২০১৬ ০০:০০



গ্রেপ্তার ঠিকাদারকে ছাড়িয়ে নিতে রাতভর থানায় মেয়র আইভী

নারায়ণগঞ্জে সিটি করপোরেশনের (নাসিক) এক ঠিকাদারকে গ্রেপ্তারের ঘটনায় গত বুধবার রাতে থানা ঘেরাও করে করপোরেশনের মেয়র সেলিনা হায়াত আইভীর সমর্থকরা। বুধবার সারা রাত মেয়র আইভী নারায়ণগঞ্জ সদর থানার চত্বরে অবস্থান করে গতকাল বৃহস্পতিবার সকাল সাড়ে ৬টার দিকে থানা ত্যাগ করেন।

বিষয়টি নিয়ে গত বুধবার রাতে সদর থানায় পুলিশ কর্মকর্তাদের সঙ্গে মেয়র আইভীর তুমুল বাগিবতণ্ডার ঘটনা ঘটে। এ সময় মেয়র আইভী

ওই ঠিকাদারকে ছাড়িয়ে নেওয়ার চেষ্টা করলেও পুলিশ জানায়, রেলওয়ের দায়ের করা মামলার এজাহারভুক্ত আসামিকে তারা ছাড়তে পারে না। এ সময় আইভী পুলিশকে ওই ঠিকাদারকে ছেড়ে তাঁকে গ্রেপ্তার করতে বলেন।

গ্রেপ্তার ওই ঠিকাদারের নাম জাকির হোসেন। তিনি নারায়ণগঞ্জ শহরের জিমখানা এলাকায় সিটি করপোরেশনের চলমান আট কোটি টাকার একটি প্রকল্পের ঠিকাদার ও রত্না এন্টাপ্রাইজের কর্ণধার।

বুধবার সন্ধ্যায় রেলওয়ের কানুনগো ইকবাল মাহমুদ বাদী হয়ে নাসিকের ঠিকাদার ও রত্না-মুনিয়া কনসোর্টিয়ামের মালিক আবু সুফিয়ানকে প্রধান আসামি করে রত্না এন্টারপ্রাইজের মালিক জাকির হোসেনসহ সাত-আটজনের নামে মামলা করেন। রেলওয়ের ওই নিজস্ব জমিতে কোনো প্রকার লিজ বা অনুমতি না নিয়েই ওই প্রকল্পের কাজ করছিল সিটি করপোরেশন।

রেলওয়ে সূত্র জানায়, গত ২৭ জানুয়ারি রেলওয়ের কয়েকজন কর্মকর্তা লেক ও পার্ক নির্মাণের কাজ বন্ধ করতে গেলে ঠিকাদারের লোকজন তাঁদের ধাওয়া করে। এ নিয়ে রেলওয়ে মন্ত্রীর সঙ্গেও গত মাসে দেখা করেছিলেন মেয়র আইভী।

কিন্তু ওই জায়গায় পার্ক বা কোনো প্রকল্প করার অনুমতি মেলেনি। উল্টো রেলওয়ের মহাপরিচালক বিষয়টিকে জোরপূর্বক ও বেআইনি বলে মন্তব্য করেন।

এদিকে বুধবার রাতভর থানায় থাকলেও তিনজন কাউন্সিলর ছাড়া শহর, বন্দর ও সিদ্ধিরগঞ্জ এলাকার অন্যান্য কাউন্সিলর মেয়রের পাশে না থাকার বিষয়টি নিয়েও গতকাল দিনভর সিটি করপোরেশনে চলে আলোচনা-সমালোচনা।

এ ব্যাপারে শহরের ১২ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর শওকত হাশেম বলেন, ‘মেয়র হয়তো মনে করেন উন্নয়নের ভাগীদার কাউন্সিলররা নন, ঠিকাদাররা। তাই গত এক বছরে একাধিক কাউন্সিলর গ্রেপ্তার হলেও তিনি থানায় যাওয়া তো দূরে থাক, তাঁদের বাসায় গিয়ে পরিবারের প্রতি ন্যূনতম সহমর্মিতাও জানাননি। তাই রাতভর একজন ঠিকাদারের জন্য থানায় অবস্থান নিলেও আমরা সেখানে যাইনি। ’ 

নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি আব্দুল মালেক জানান, বুধবার সন্ধ্যায় রেলওয়ে কর্তৃপক্ষের দায়ের করা মামলার আসামি ঠিকাদার জাকির হোসেনকে রাত পৌনে ১০টার দিকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারের খবর পেয়ে রাত সাড়ে ১০টার দিকে সদর মডেল থানায় হাজির হন মেয়র আইভীসহ আওয়ামী লীগ-যুবলীগের নেতাকর্মীরা। ওই সময় আইভীর সঙ্গে সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়র ওবায়দুল্লাহ, কাউন্সিলর অসিত বরণ, কাউন্সিলর মনিরুজ্জামান মনির, জেলা যুবলীগের সভাপতি আবদুল কাদির প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

এ সময় নারায়ণগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি আব্দুল মালেককে উদ্দেশ করে মেয়র আইভী বলেন, ‘আমি থানার ভেতর থেকে এক পাও নড়ব না। কার নির্দেশে এই মামলা হয়েছে সেটা জানতে চাই। কাল থেকে আর উন্নয়নকাজ চলবে না। ’ এ সময় তাঁদের সঙ্গে থানার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের তুমুল বাগিবতণ্ডা হয়।

পরে মেয়র আইভী সাংবাদিকদের বলেন, ‘কোনো অপরাধ ছাড়া আমাদের ঠিকাদারদের বিরুদ্ধে একের পর এক মিথ্যা মামলা দেওয়া হচ্ছে। ঠিকাদার জাকিরকে কাজ আমি দিয়েছি। গ্রেপ্তার করতে হলে আমাকে করেন। একটি বিশেষ মহলের নির্দেশে মামলা হচ্ছে। প্রয়োজন হলে আমি সারা রাত থানায় থাকব। প্রয়োজনে সকালে আমাকেও আদালতে চালান করা হোক। ’

এ সময় সাংবাদিকরা পাল্টা প্রশ্ন করে বলেন, কাজটি টেন্ডারের মাধ্যমে হয়েছিল, তাহলে আপনি কী করে তাঁকে কাজ দেন এবং ওই প্রকল্পের জমিটি কার? এমন প্রশ্ন শুনে মেয়র আইভী কোনো উত্তর না দিয়ে উল্টো ক্ষোভ প্রকাশ করেন। এ সময় সাংবাদিকরা আরো বলেন, গ্রেপ্তার ঠিকাদারের বিরুদ্ধে বন্দরে একটি শিশু আহত হওয়ার অভিযোগে এবং ফতুল্লায় শ্রমিকের মৃত্যু, লাশ গুমের অভিযোগে মামলা হয়েছিল। ওই মামলাগুলোও কি বিশেষ মহলের ইশারায় হয়েছে এবং সে ব্যক্তি কে? এমন প্রশ্নের উত্তরও এড়িয়ে যান মেয়র আইভী।

উল্লেখ্য, নারায়ণগঞ্জ সিটি করপোরেশনের উদ্যোগে শহরের জিমখানায় রেলওয়ের নিজস্ব জমিতে রেলের কোনো অনুমতি বা লিজ না নিয়েই পার্ক নির্মাণের জন্য সাত কোটি ৭৪ লাখ ৯৮ হাজার টাকার টেন্ডার দেওয়া হয়।


মন্তব্য