kalerkantho


ওয়াশিংটনে নিশা বিসওয়াল

সৎ সুষ্ঠু নির্বাচনে সহায়তা দেবে যুক্তরাষ্ট্র

কূটনৈতিক প্রতিবেদক   

৩১ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



সৎ সুষ্ঠু নির্বাচনে সহায়তা দেবে যুক্তরাষ্ট্র

বাংলাদেশের নাগরিকদের মতপ্রকাশ, বিশ্বাসের চর্চা, শান্তিপূর্ণভাবে সমবেত হওয়া এবং সৎ ও সুষ্ঠু নির্বাচনে ভোট দেওয়ার অধিকারকে সহায়তা দেওয়ার আশ্বাস দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের দক্ষিণ ও মধ্য এশিয়াবিষয়ক অ্যাসিস্ট্যান্ট সেক্রেটারি নিশা দেশাই বিসওয়াল। ৪৬তম স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষে বাংলাদেশ সময় গতকাল বুধবার ভোরে ওয়াশিংটনে বাংলাদেশ দূতাবাস আয়োজিত সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে তিনি এ আশ্বাস দেন। তিনি বলেন, সব ধরনের বাধা সত্ত্বেও বাংলাদেশ স্বাধীনতা অর্জন করেছে। আর এটি তার অর্জনের সূচনা মাত্র। যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশের অনেক সাফল্যের গর্বিত অংশীদার।

বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্র উভয় দেশের জনগণের ডিএনএতে গণতন্ত্র রয়েছে। আগামী দশকগুলোতে দুই দেশ সব ধরনের জটিলতা দূর করতে কাজ করবে। দুই দেশ পারে না এমন কিছু নেই। যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত বক্তৃতা থেকে এ কথা জানা গেছে। অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত মোহাম্মদ জিয়াউদ্দিনও বক্তব্য দেন।

নিশা বিসওয়াল বলেন, ৪৫ বছর আগে বাংলাদেশের স্বাধীনতা অর্জন এ দেশের অনেক বিজয়ের সূচনা মাত্র। গত কয়েক দশকে বাংলাদেশ খাদ্য আমদানিকারক থেকে রপ্তানিকারক দেশে পরিণত হয়েছে। ২০ বছর ধরে প্রতিবছর বাংলাদেশের অর্থনীতির ৬ শতাংশ হারে প্রবৃদ্ধি হচ্ছে। এক কোটির বেশি মানুষ দারিদ্র্যমুক্ত হয়েছে। এ দেশের শিশুদের বাঁচার হার এখন আগের চেয়ে বেশি। বাংলাদেশে সৃষ্ট ব্র্যাক ও গ্রামীণ ব্যাংকের মতো প্রতিষ্ঠানগুলো সারা বিশ্বের কাছে উন্নয়নের অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত।

তিনি বলেন, ঢাকায় যুক্তরাষ্ট্রের আন্তর্জাতিক উন্নয়ন সংস্থা ইউএসএআইডির মিশন বিশ্বের অন্যতম বৃহত্তম মিশন। বাংলাদেশিদের আরো স্বাস্থ্যবান, দীর্ঘায়ু ও ফলপ্রসূ করতে এ মিশন প্রতিবছর প্রায় ২০০ মিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করে থাকে।

বিসওয়াল দাবি করেন, বাংলাদেশের পণ্য যুক্তরাষ্ট্রের চেয়ে বেশি আর কেউ কেনে না। প্রতিবছর যুক্তরাষ্ট্র ৫০০ কোটি ডলারেরও বেশি বাংলাদেশি পণ্য কিনে এ দেশের লাখ লাখ মানুষের জীবিকাকেই সহযোগিতা করছে।

তিনি বলেন, আমেরিকান জনগণ বাংলাদেশের সঙ্গে অনেক আগে থেকেই আছে। যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশের পাশে থাকবে—এটি গুরুত্ব দিয়ে বলার জন্য তিনি সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে এসেছেন।

নিশা বিসওয়াল বলেন, সন্ত্রাস ও সহিংস উগ্রবাদ যুক্তরাষ্ট্র, বাংলাদেশসহ মৌলিক স্বাধীনতার চর্চা করা আরো অনেক সমাজের জন্য হুমকি। সন্ত্রাস ও সহিংস উগ্রবাদের বিরুদ্ধে চলমান লড়াই, জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবিলায় যুক্তরাষ্ট্র বাংলাদেশের পাশে থাকবে।

অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক রাষ্ট্রদূত জেমস মরিয়ার্টি, ড্যান ডাব্লিউ মজিনা, হাউই শেফার উপস্থিত ছিলেন।

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের ওয়েবসাইটে প্রকাশিত নিশা বিসওয়ালের আরেকটি বক্তৃতা থেকে জানা যায়, তিনি গত মঙ্গলবার ওয়াশিংটনে ‘সেন্টার ফর নিউ আমেরিকান সোসাইটি’তে দক্ষিণ ও মধ্য এশিয়ায় ২০১৬ সালে যুক্তরাষ্ট্রের নীতি ও অগ্রাধিকার বিষয়ে বক্তব্য দিয়েছেন। সেখানে তিনি বাংলাদেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির চিত্র তুলে ধরে বলেন, ২০৩০ সালের মধ্যে বিশ্বের ৩০টি শীর্ষ অর্থনীতির দেশের মধ্যে স্থান পেতে চলেছে বাংলাদেশ। তিনি সাম্প্রতিক সময়ে বাংলাদেশে জঙ্গিগোষ্ঠী ইসলামিক স্টেটের কথিত হামলার বিষয়টিও তুলে ধরেন। এ ছাড়া তিনি বিশ্ব শান্তি রক্ষায় বাংলাদেশসহ এ অঞ্চলের দেশগুলোর শান্তিরক্ষীদের অবদানের কথাও বলেন।


মন্তব্য