kalerkantho

মঙ্গলবার । ২৪ জানুয়ারি ২০১৭ । ১১ মাঘ ১৪২৩। ২৫ রবিউস সানি ১৪৩৮।


ভ্যাট ফাঁকি

যমুনা গ্রুপের কাছ থেকে ৭০০ কোটি টাকা আদায় করবে এনবিআর

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৯ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



যমুনা গ্রুপের কাছ থেকে ৭০০ কোটি টাকা আদায় করবে এনবিআর

ভ্যাট ফাঁকি দেওয়ায় যমুনা গ্রুপের এরোমেটিক কসমেটিকসের কাছ থেকে ৭০০ কোটি টাকা আদায় করবে এনবিআর। সম্প্রতি আপিল বিভাগে দুটি লিভ টু আপিল পিটিশনের নিষ্পত্তি সরকারের পক্ষে যায়।

এই পরিপ্রেক্ষিতে ওই পরিমাণ অর্থ আদায় করা হবে বলে গতকাল রবিবার এনবিআর থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়।

১৯৯৬ থেকে ২০০০ সাল পর্যন্ত যমুনা গ্রুপের এরোমেটিক কসমেটিকস ভ্যাট ও সম্পূরক কর ফাঁকি দেওয়ায় দুটি দাবিনামা জারি করে ঢাকা উত্তর ভ্যাট কমিশনারেট। ভ্যাট আইনে শোকজ ও শুনানি শেষে ভ্যাট ফাঁকি ও অর্থদণ্ড বাবদ দুই মামলায় ১৭৪ দশমিক ৪৯০ কোটি টাকার দাবিনামা জারি করা হয়। ২০০৩ সালে

হাইকোর্টে রিট মামলা করলে দাবি করা ভ্যাট আদায় ঝুলে যায়। শুনানির পর হাইকোর্ট রিট দুটি খারিজ করে দেন। যমুনা গ্রুপ এ রায়ের বিপক্ষে লিভ টু আপিল দায়ের করে ২০০৫ সালে। গত ১৬ মার্চ চূড়ান্ত শুনানি শেষে সরকারের পক্ষে নিষ্পত্তি হয়।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়, আপিল বিভাগের রায়ের পর সরকারকে তথা এনবিআরকে পাওনা টাকা দিতে হবে। ভ্যাট আইন অনুযায়ী ভ্যাট জমা না দিলে প্রতি মাসে ২ শতাংশ হারে সুদ দিতে হয়। এ হিসাবে ১৭৪ কোটি টাকার ওপর এ পাওনা হয়েছে। ভ্যাট কর্তৃপক্ষ এটা আদায় করবে। সুদসহ মোট পাওনার পরিমাণ প্রায় ৭০০ কোটি টাকা।

পাওনা টাকা সময়মতো পরিশোধ না করলে ভ্যাট আইন অনুযায়ী নিষেধাজ্ঞা জারি করা হবে। এ নিষেধাজ্ঞার মধ্যে থাকবে প্রতিষ্ঠান তালাবদ্ধ করা, ব্যাংক অ্যাকাউন্ট ফ্রিজ করা ও সহযোগী প্রতিষ্ঠানের আমদানি-রপ্তানি কার্যক্রম বন্ধ করা। ভ্যাট আইনের ৬৫ ধারায় এসব বলা আছে।

 


মন্তব্য