kalerkantho


৪৫ দেশের জাতীয় পতাকায় স্বাধীনতা উৎসব

নিজস্ব প্রতিবেদক   

২৬ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



৪৫ দেশের জাতীয় পতাকায় স্বাধীনতা উৎসব

স্বাধীনতার ৪৫ বছরপূর্তি উপলক্ষে মুক্তিযুদ্ধ একাডেমি গতকাল শুক্রবার জাতীয় জাদুঘরে আয়োজন করেছিল এক উৎসবের। ‘স্বাধীনতা উৎসব-২০১৬’ শীর্ষক দিনব্যাপী অনুষ্ঠানে বাংলাদেশকে প্রথম স্বীকৃতিদানকারী ৪৫টি দেশের জাতীয় পতাকা উত্তোলন ও জাতীয় সংগীত গাওয়া হয়।

সকালে উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। বিশেষ অতিথি ছিলেন বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজসম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ। জাতীয় জাদুঘর বোর্ড অব ট্রাস্টিজের সভাপতি এম আজিজুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানের শুরুতেই স্বাগত বক্তব্য দেন বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ একাডেমির চেয়ারম্যান ড. আবুল আজাদ।

অনুষ্ঠানে স্বাধীন বাংলাদেশকে স্বীকৃতি প্রদানকারী প্রথম ৪৫টি দেশের হাইকমিশনার, রাষ্ট্রদূত ও প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন। ভারতীয় জাতীয় সংগীত বাজানোর পর অনুষ্ঠানে বক্তব্য দেন দেশটির হাইকমিশনার হর্ষবর্ধন শ্রীংলা। এভাবে একের পর এক জাতীয় সংগীত বাজানো হয়, পাশাপাশি ছিল সেই সব দেশের প্রতিনিধিদের বক্তৃতা।

আলোচনায় অংশ নেন রাশিয়ান চার্জ দ্য অ্যাফেয়ার্স ড. আনাতোলি ওয়াই ডেবিডুকো, নেপালি দূতাবাসের প্রতিনিধি সুশীল কে লাংশান, মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিলের সাবেক চেয়ারম্যান অধ্যক্ষ আব্দুল আহাদ চৌধুরী, স্বাধীন বাংলা বেতারকেন্দ্রের শিল্পী ফকির আলমগীর, মুক্তিযুদ্ধ একাডেমির উপদেষ্টা ড. শরীফ আশরাফুজ্জামান, কুষ্টিয়া ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত উপাচার্য এম শাহীনুর রহমান প্রমুখ।

অর্থমন্ত্রী প্রধান অতিথির বক্তৃতায় বলেন, ‘বাঙালির জীবনের সবচেয়ে বড় গৌরবজনক অধ্যায় ১৯৭১ সাল। ২৫ মার্চ রাতেই পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর গণহত্যা ও বীর বাঙালির প্রতিরোধের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশের হয়েছে। আজকের দিনটা আমাদের জন্মদিন। এই দিনে অনেক কথাই মনে আসে। আমরা মুক্তিযুদ্ধ করেছি শোষণের বিরুদ্ধে। আমরা চেয়েছি, আমাদের জীবন যাতে নিজেদের ইচ্ছামতো গড়ে তুলতে পারি। তাতে যখন বাধা এলো, তখনই মুক্তিযুদ্ধের সূচনা। ’


মন্তব্য