kalerkantho

মঙ্গলবার । ১৭ জানুয়ারি ২০১৭ । ৪ মাঘ ১৪২৩। ১৮ রবিউস সানি ১৪৩৮।


ফেসবুকে ক্ষোভের পর স্বাধীনতা পদক নির্মলেন্দু গুণকে

কালের কণ্ঠ ডেস্ক   

২১ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



ফেসবুকে ক্ষোভের পর স্বাধীনতা পদক নির্মলেন্দু গুণকে

ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করার ৯ দিন পর কবি নির্মলেন্দু গুণকেও স্বাধীনতা পদক দেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। সাহিত্যে বিশেষ অবদানের জন্য তাঁকে এই পদক দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয় বলে গতকাল রবিবার সরকারি এক প্রজ্ঞাপনে এ কথা জানানো হয়েছে।

আগামী ২৪ মার্চ ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে এক অনুষ্ঠানে ১৫ ব্যক্তি ও এক প্রতিষ্ঠানকে এই সর্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় পুরস্কারে ভূষিত করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

এর আগে গত ৭ মার্চ মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ স্বাধীনতা পদকের জন্য মনোনীত অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত, রবীন্দ্রসংগীত শিল্পী রেজওয়ানা চৌধুরী বন্যাসহ ১৪ বিশিষ্ট ব্যক্তি ও এক প্রতিষ্ঠানের নাম প্রকাশ করেছিল। ওই তালিকায় নিজের নাম না আসায় ১০ মার্চ ফেসবুকে ক্ষোভ প্রকাশ করে স্ট্যাটাস দেন নির্মলেন্দু গুণ।

ফেসবুক স্ট্যাটাসে তিনি লিখেছিলেন, ‘আমার একদা সহপাঠিনী, বাংলাদেশের বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিচারদৃষ্টে আমি প্রথম কিছুকাল অবাক হয়েছিলাম—কিন্তু আজকাল খুবই বিরক্ত বোধ করছি। অসম্মানিত বোধ করছি। ক্ষুব্ধ বোধ করছি। ’

ষাটের দশকের শেষ দিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগে একই ব্যাচের শিক্ষার্থী ছিলেন শেখ হাসিনা ও নির্মলেন্দু গুণ।

স্ট্যাটাসে গুণ আরো লিখেছিলেন, ‘শেখ হাসিনা স্বাধীনতা পদকের মুলোটি আমার নাকের ডগায় ঝুলিয়ে রেখেছেন। কিন্তু কিছুতেই সেটি আমাকে দিচ্ছেন না। উনার যোগ্য ব্যক্তির তালিকা ক্রমশ দীর্ঘ হতে হতে আকাশ ছুঁয়েছে। কিন্তু সেই তালিকায় আমার স্থান হচ্ছে না। ’

তিনি আরো লিখেছিলেন, ‘পারলে ভুল সংশোধন করুন। অথবা পরে একসময় আমাকে এই পদকটি দেওয়া যাবে, এমন ধারণা চিরতরে পরিত্যাগ করুন। ’

সরকারের নতুন সিদ্ধান্তের পর নির্মলেন্দু গুণ বিবিসি বাংলাকে বলেন, ‘আমি খুবই খুশি। ফেসবুক যে অনেক শক্তিশালী সেটা আবার প্রমাণিত হয়েছে। আমার এই স্ট্যাটাসটি প্রধানমন্ত্রীর চোখে পড়েছে। তিনি মনে করেছেন আমার এই দাবি ন্যায্য। তাঁকে ধন্যবাদ। ’

 


মন্তব্য