kalerkantho


উত্তরার পর বনানী

গ্যাসলাইন বিস্ফোরণে বহুতল ভবনে আগুন

তিনজন দগ্ধসহ আহত ২০

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১৯ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



গ্যাসলাইন বিস্ফোরণে বহুতল ভবনে আগুন

বনানীর ২৩ নম্বর রোডে বহুতল ভবনটি গ্যাস বিস্ফোরণে ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার পর গতকাল সেটিকে পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়। ঘটনাস্থলে পুলিশের তদন্তদল। ছবি : কালের কণ্ঠ

রাজধানীর বনানীর একটি বাড়িতে গত বৃহস্পতিবার রাতে গ্যাস পাইপলাইনে বিস্ফোরণের পর আগুনে তিনজন দগ্ধসহ অন্তত ২০ জন আহত হয়েছে। আহতদের অ্যাপোলো ও ইউনাইটেড হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

দুর্ঘটনার পর ভবনের সব বাসিন্দাকে বের করে আনা হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত ভবনে আপাতত বসবাস না করার পরামর্শ দিয়েছে বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) বিশেষজ্ঞদল।

বনানীর বি ব্লকের ২৩ নম্বর রোডের ৯ নম্বর ‘সিলভারস্টোন সাফারি’ নামের বাড়িতে ওই বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটে। বাড়ির বাসিন্দারা অভিযোগ করেন, বাড়ির সামনে রাস্তায় খোঁড়াখুঁড়ির কাজ চলছিল। এতে গ্যাসলাইনে ছিদ্র হওয়ায় সেখান থেকে কয়েক দিন ধরে গ্যাস বের হচ্ছিল। বিষয়টি তিতাস কর্তৃপক্ষকে জানানো হলেও তারা কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। বিস্ফোরণের পর তিতাসের কর্মীরা গতকাল শুক্রবার সকালে ওই ছিদ্র বন্ধ করেন।

উত্তরার একটি বাসায় গ্যাসলাইনের ত্রুটির কারণে বিস্ফোরণে একই পরিবারের চারজনের মৃত্যুর ঘটনার ২০ দিন পর আবার বনানীতে এ বিস্ফোরণের ঘটনা ঘটল।

ঘটনার পর তিতাস, সিটি করপোরশনে ও ঢাকা ওয়াসা কর্তৃপক্ষ একে অপরকে দোষারোপ করছে।

রাস্তা খোঁড়াখুঁড়ির জন্য ওয়াসাকে দায়ী করেছেন তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন ও ডিস্ট্রিবিউশন কম্পানি লিমিটেডের কর্মকর্তারা। ঘটনার তদন্ত করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন তাঁরা।

ঢাকা ওয়াসা বলছে, ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি) ওই খোঁড়াখুঁড়ি করছে। তবে সিটি করপোরেশন বলছে, তিতাসের অবহেলা ও সমন্বয়হীনতাই ঘটনার জন্য দায়ী।

বাড়ির বাসিন্দারা জানান, ছয় তলা বাড়িটির চার তলা থেকে ওপরের দিকে আগুন ছড়িয়ে পড়ে। এ সময় বাড়ির চার তলা ও পঞ্চম তলার ওপরের অংশে বিস্ফোরণ ঘটে। এতে ভবনের কয়েকটি তলার দেয়াল ভেঙে গেছে। ওই ভবনসহ আশপাশের কয়েকটি ভবনেরও জানালার কাচ ভেঙে গেছে।

একটি ডেভেলপার প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে তৈরি ভবনটির ফ্ল্যাট মালিক কয়েকজন। তবে ভবনটির জমির মালিক শামসুল আলম। তিনি বলেন, গত তিন দিন ধরে গ্যাসের লাইন ফুটো হয়ে গ্যাস বের হচ্ছে বলে তাঁরা তিতাসের কাছে অভিযোগ করেছেন। বৃহস্পতিবার তিনবার তিনি তিতাসে অভিযোগ করেন। সকালে একবার, বিকেল ৪টায় একবার ও রাত ১০টা ৫২ মিনিটে অভিযোগ জানানো হয়।

শামসুল আলম বলেন, সর্বশেষ রাত ১০টা ৫২ মিনিটে তিতাসের অভিযোগকেন্দ্র থেকে একজন বলেন, শ্রমিক পাঠাতে পারলে তাঁরা লাইন মেরামত করে দেবেন। এরপর রাতেই বিস্ফোরণ ও আগুনের ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় বাড়িটির মালিক ও শরিকরা তিতাসের বিরুদ্ধে ক্ষতিপূরণ চেয়ে মামলা করবেন বলে জানিয়েছেন।

বাসিন্দারা জানান, ছয়তলার ওই ভবনে তাঁরা ২০১০ সাল থেকে বসবাস করছেন। সেখানে ২০টি ফ্ল্যাট রয়েছে। বাসার নিচতলায় গ্যারেজ। দ্বিতীয় তলায় একটি বায়িং হাউজের অফিস ছাড়া সব ফ্লাটই আবাসিক।

রহমত আলী ও সোহরাব হোসেন নামে স্থানীয় দুই বাসিন্দা বলেন, রাস্তায় কয়েক দিন ধরে খোঁড়াখুঁড়ি চলছিল। এ সময় গ্যাসের লাইন ফুটো হয়ে গেছে বলে তাঁদের ধারণা। জমে থাকা পানিতে বুদ্বুদও দেখেছেন তাঁরা। সেখানে গ্যাসের গন্ধ পাওয়া গেছে।

ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের পরিচালক (অপারেশন্স) মেজর এ কে এম শাকিল নেওয়াজ বলেন, বাড়ির তৃতীয় তলা থেকে ষষ্ঠ তলা পর্যন্ত আগুন ছড়িয়ে পড়লে সেসব ফ্ল্যাটের বাসিন্দারা ছাদে উঠে যায়। সেখান থেকে ২৫ জনকে নামিয়ে আনা হয়। এ ঘটনায় তিনজন সামান্য দগ্ধ হয়েছে। জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘গ্যাসলাইনে লিকেজ থেকে আগুন লাগতে পারে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করছি। তদন্তে আসল কারণ জানা যাবে। ’

বনানী থানার পরিদর্শক (অপারেশন) নাজমুল হোসেন অবশ্য ওই ঘটনায় ১০ জন আহত হওয়ার কথা জানিয়েছেন। তিনি বলেন, আহদের মধ্যে বাড়ির মালিকের ছেলে নাভেদ ইমতিয়াজ দগ্ধ হয়েছেন। আহতদের ইউনাইটেড ও অ্যাপলো হাসপাতালে নেওয়া হয়েছে। ভবনের পঞ্চম তলায় বসবাসকারী শ্রীলঙ্কার দুই নাগরিক অক্ষত আছেন।

সরেজমিনে দেখা গেছে, বিস্ফোরণে ভবনের দ্বিতীয়, চতুর্থ, পঞ্চম ও ষষ্ঠ তলার সামনের দেয়াল ভেঙে পড়েছে। ফাটল দেখা দিয়েছে ‘ফলস পিলারে’। দেয়াল ভাঙা আর ব্যালকনি পোড়া।

গুলশান বিভাগের সহকারী কমিশনার রফিকুল ইসলাম জানান, ভবনটি এখন বসবাসের জন্য নিরাপদ কি না, এ ব্যাপারে তাঁরা নিশ্চিত নন। এ কারণে কাউকে ভেতরে যেতে দেওয়া হচ্ছে না।

তিতাস গ্যাস ট্রান্সমিশন ও ডিস্ট্রিবিউশন কম্পানি লিমিটেডের পরিচালক (অপারেশন) এইচ এম আলী আশরাফ বলেন, ‘বাসিন্দাদের অভিযোগ পেয়েছি। তিতাস গ্যাসের অভিযোগ কেন্দ্র থেকে যিনি শ্রমিক পাঠানোর কথা বলেছিলেন, তাঁর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে। তবে গ্যাসের লাইন ছিদ্র হওয়ার কথা ওয়াসা আমাদের জানায়নি। জানালে ব্যবস্থা নেওয়া যেত। তবে বিষয়টি তদন্ত করা হবে। ’ তিনি দাবি করেন, প্রাথমিকভাবে তাঁরা মনে করছেন, ভবনটিসংলগ্ন স্যুয়ারেজের পাইপ দিয়ে গ্যাস ওপরে উঠে গেছে।

জানা গেছে, ঢাকা ওয়াসার রেডিও অপারেটর আলমগীর হোসেনকে দায়িত্বে অবহেলার দায়ে বহিষ্কার করা হয়েছে।

ঢাকা ওয়াসার উপব্যবস্থাপনা পরিচালক এ এস ডি কামরুল আলম চৌধুরী কালের কণ্ঠকে বলেন, গুলশান এলাকায় তাঁরা রাস্তায় খোঁড়াখুঁড়ি করে পাইপ বসানোর কাজ করছিলেন না। কাজটি করছিল ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন।

গতকাল দুপুরে ঘটনাস্থল পরিদর্শনে গিয়ে ডিএনসিসির মেয়র আনিসুল হক বলেন, ‘সিটি করপোরেশনের খোঁড়াখুঁড়ির কারণে গ্যাসের লাইন লিকেজ হয়নি। গ্যাসের লাইন লিকেজের বিষয়ে আমাদের লোক বেশ কিছুদিন আগে তিতাসের কমপ্লেইন বক্সে অভিযোগ করেছে। কিন্তু তারা কোনো ব্যবস্থা নেয়নি। তিতাস, ওয়াসা, ডেসা ও সিটি করপোরেশনের মধ্যে সমন্বয়হীনতার কারণেই এই অগ্নিকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে। ’ তিনি আরো বলেন, ‘রাতে অগ্নিকাণ্ডের খবর শোনার সঙ্গে সঙ্গে আমি এখানে চলে আসি। ভবন থেকে মানুষদের নিরাপদে বের করে আনার জন্য আমি নিজে কাজ করেছি। ’

ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে তিতাসের উপসহকারী প্রকৌশলী শিবেন্দ্র নাথ ঘোষ বলেন, ভবনের গ্যাসের পাইপলাইনে ছিদ্র পেয়েছেন তাঁরা। ভবনের নিচ দিয়ে দুই ইঞ্চি পাইপ গেছে। এতে পৌনে এক ইঞ্চি ছিদ্র করে সেখানে পাইপ বসিয়ে বাসায় গ্যাস সংযোগ নেওয়া হয়। মূল লাইনের একটা সংযোগে পাইপ ছিল না, সেখানে ছিদ্র দিয়ে অনবরত গ্যাস বেরোচ্ছিল। তিনি বলেন, ‘ওই গ্যাস কোনোভাবে পানি বা স্যুয়ারেজ পাইপে প্রবেশ করে। প্রচুর গ্যাস পাইপে ঢুকে পড়ায় বিস্ফোরণ হয়েছে বলে আমরা ধারণা করছি। ’

ভবনে বাস না করার পরামর্শ বুয়েট বিশেষজ্ঞদের : ক্ষতিগ্রস্ত ভবন ঝুঁকিপূর্ণ মন্তব্য করে ওই ভবনে বসবাস না করার পরামর্শ দিয়েছে বুয়েট বিশেষজ্ঞ দল। গতকাল ভবন পরিদর্শন শেষে বুয়েটের সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের অধ্যাপক সৈয়দ ইশতিয়াক আহমেদ সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমাদের মতে এ ভবনে আপাতত না থাকাই ভালো। ’


মন্তব্য