kalerkantho


২২০০ টন ডিজেল নিয়ে পার্বতীপুরের পথে ভারতের ট্রেন

পালাটানা থেকে বিদ্যুৎ আসছে ২৩ মার্চ

কূটনৈতিক প্রতিবেদক   

১৮ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মদিনে শুভেচ্ছাস্বরূপ বাংলাদেশে ডিজেল (গ্যাসঅয়েল) সরবরাহ শুরু করেছে ভারত। ঢাকায় ভারতীয় হাইকমিশন গতকাল বৃহস্পতিবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানায়, পশ্চিমবঙ্গের শিলিগুড়ি থেকে গতকালই ২২০০ মেট্রিক টন ডিজেলের প্রথম চালান নিয়ে একটি ট্রেন বাংলাদেশের উদ্দেশে রওনা হয়েছে। ভারতের জ্বালানি ও প্রাকৃতিক গ্যাসসম্পদ মন্ত্রী ধর্মেন্দ্র প্রধান গতকাল শিলিগুড়িতে ওই ট্রেনটির যাত্রা উদ্বোধন করেন। বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশন (বিপিসি) প্রস্তাবিত শুভেচ্ছামূল্যে ভারতের আসামের গোয়ালঘাটস্থ নুমালিগড় রিফাইনারি লিমিটেড (এনআরএল) থেকে ওই ডিজেল বাংলাদেশে পাঠানো হচ্ছে।

বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ ও বাংলাদেশে ভারতের হাইকমিশনার হর্ষ বর্ধন শ্রিংলা আগামীকাল শনিবার দিনাজপুরের পার্বতীপুরে ডিজেলের চালানটি গ্রহণ করবেন। বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে জ্বালানি খাতে সহযোগিতার ক্ষেত্রে এটি অত্যন্ত  গুরুত্বপূর্ণ এক পদক্ষেপ। ২০১৫ সালের জুন মাসে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির বাংলাদেশ সফরে যৌথ ঘোষণায় ‘নতুন প্রজন্ম, নয়া দিশা’ এ বিষয়টির উল্লেখ ছিল।

ভারতীয় হাইকমিশন জানায়, একটি যৌথ উদ্যোগ কম্পানির মাধ্যমে এনআরএলের শিলিগুড়ি মার্কেটিং টার্মিনাল (পশ্চিমবঙ্গ) থেকে বিপিসির দিনাজপুর জেলায় পার্বতীপুর জ্বালানি পণ্য সংরক্ষণাগার পর্যন্ত ১৩০ কিলোমিটার ‘ইন্দো-বাংলা ফ্রেন্ডশিপ পাইপলাইন’ (আইবিএফএল) বাস্তবায়নে গত বছরের ২০ এপ্রিল ঢাকায় এনআরএল ও বিপিসির মধ্যে স্বাক্ষরিত সমঝোতা স্মারকে এনআরএল এবং বিপিসি উভয়ের পক্ষ থেকে ‘নিরপেক্ষ অংশগ্রহণের’ (ইকুইটি পার্টিসিপেশন) কথা বলা রয়েছে।  

ভারতের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের মুখপাত্র বিকাশস্বরূপ গত ১০ মার্চ নয়াদিল্লিতে এক ব্রিফিংয়ে বাংলাদেশে শুভেচ্ছা হিসেবে ডিজেল পাঠানোর কথা আনুষ্ঠানিকভাবে জানিয়েছিলেন। ৫০টি ওয়াগনে ওই ২২০০ টন ডিজেল বাংলাদেশে পৌঁছাবে। ‘ইন্দো-বাংলা ফ্রেন্ডশিপ পাইপলাইন’-এর পাঁচ কিলোমিটার ছাড়া বাকি পুরোটাই পড়েছে বাংলাদেশে। আগামী ২০ বছর এ পথে বাংলাদেশে ডিজেল আসবে।

এদিকে আগামী ২৩ মার্চ ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের পালাটানা থেকে বাংলাদেশে ১০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ সরবরাহ শুরু হওয়ার কথা রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি সেদিন নিজ নিজ দেশ থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে বিদ্যুৎ সরবরাহ উদ্বোধন করবেন। এদিকে বাংলাদেশ কক্সবাজারের ইন্টারনেট পোর্ট থেকে ভারতকে ব্যান্ডউইডথ ইজারা দিচ্ছে। এটি ভারতের ত্রিপুরাসহ উত্তর-পূর্বাঞ্চলীয় রাজ্যগুলোর ইন্টারনেট সংযোগব্যবস্থার উন্নয়নে ভূমিকা রাখবে।


মন্তব্য