গুলশানে লেকের পাশে সড়কে ধস যান চলাচলে-334967 | শেষের পাতা | কালের কণ্ঠ | kalerkantho

kalerkantho

শনিবার । ১ অক্টোবর ২০১৬। ১৬ আশ্বিন ১৪২৩ । ২৮ জিলহজ ১৪৩৭


গুলশানে লেকের পাশে সড়কে ধস যান চলাচলে বিঘ্ন

নিজস্ব প্রতিবেদক   

১২ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



গুলশানে লেকের পাশে সড়কে ধস যান চলাচলে বিঘ্ন

গুলশান ২-এ ৫৫ নম্বর সড়কের বড় একটা অংশ গতকাল ধসে পড়ে পাশের লেকে। ছবি : কালের কণ্ঠ

রাজধানীর গুলশানের ২ নম্বরে লেকের পাড়ের ৫৫ নম্বর সড়কের একটি অংশ ধসে পড়েছে। গতকাল শুক্রবার সকালে এ ঘটনা ঘটার পর থেকে ওই পথে যানবাহন চলাচল বন্ধ রয়েছে। আতঙ্ক বিরাজ করছে স্থানীয়দের মধ্যে। রাজধানী উন্নয়ন কর্তৃপক্ষের (রাজউক) দায়িত্বশীল ব্যক্তিরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। ঘটনাস্থল ঘিরে রেখেছে পুলিশ।

রাজউক চেয়ারম্যান প্রকৌশলী জিএম জয়নাল আবেদিন ভূঁইয়া কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘আমরা খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে এসে দেখি সড়কের মাটি সরে গেছে। এখন মাটি ভরাট করে ফাটল বন্ধ করে দেওয়া হবে।’

গুলশান-বারিধারা-বনানী লেক উন্নয়ন প্রকল্পের পরিচালক (রাজউক) মনোয়ার হোসেন জানান, লেকের উন্নয়নকাজ চলমান থাকায় পানি নিষ্কাশন করা হচ্ছে। কিন্তু রাস্তাগুলো সঠিকভাবে করা ছিল না বলে রাস্তার নিচ থেকে পানি সরে গিয়ে এ ধসের ঘটনা ঘটেছে। ভরাটকাজ শুরু হয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, রাস্তা খোঁড়াখুঁড়ির একপর্যায়ে গতকাল ভোর সাড়ে ৬টার দিকে রাস্তার প্রায় ৩০ ফুট জায়গাজুড়ে ধসের সৃষ্টি হয়।

এতে ওই পথে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। অপরিকল্পিত খোঁড়াখুঁড়ির জন্যই এই সড়কে ধসের সৃষ্টি হয়েছে দাবি এলাকাবাসীর।

দুপুরে ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা গেছে, ৫৫ নম্বর সড়কের ২৯ ও ৩১ নম্বর বাড়ির সামনের রাস্তায় ধসের ঘটনা ঘটেছে। বাড়ি দুটিতে দেখা দিয়েছে ফাটল। আতঙ্কে রয়েছে ওই বাড়ির বাসিন্দারা। ৩১ নম্বর তৃতীয় তলা বাড়ির দারোয়ান হামিম খান বলেন, ফজরের নামাজের পর তিনি লেকের পাশে রাস্তায় দাঁড়িয়ে ছিলেন। সাড়ে ৬টার দিকে রাস্তা দেবে যাচ্ছে দেখতে পেয়ে তিনি দৌড় দেন। পরক্ষণেই বিকট শব্দে রাস্তা দেবে যায়। ফাটল ধরে ওই বাড়ির গেটসহ সামনের অংশে। বাড়িটির মালিক আর্কিটেক্ট মহিউদ্দিন খান।

২৯ নম্বর ষষ্ঠ তলা বাড়ির মালিক বিএনপি নেতা ড. খন্দকার মোশাররফ হোসেন। তাঁর ছেলে মারুফ হোসেন বলেন, সকালে বিকট শব্দে তাঁদের ঘুম ভেঙে যায়। মনে করেছিলেন ভূমিকম্প হয়েছে। কিন্তু বাড়ির সামনে এসে দেখেন রাস্তার একাংশ ধসে গেছে। ফাটল ধরেছে বাড়ির সামনে অংশে। তাঁদের মধ্যে আতঙ্ক বিরাজ করছে। দ্রুত রাস্তা মেরামত করা না হলে বড় ধরনের ঘটনা ঘটে যেতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করেন তিনি।

গতকাল বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে ঘটনাস্থলে ছুটে যান ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আনিসুল হক। তিনি সাংবাদিকদের বলেন, গুলশান-বনানী লেককে ঘিরে উন্নয়নকাজ চলছে। পানি সেচের কারণে পানির প্রেসার কমে গিয়ে এ ঘটনা ঘটতে পারে। দ্রুত রাস্তা সংস্কারের জন্য সংশ্লিষ্টদের অনুরোধ করা হয়েছে। এ ছাড়া কাজের ক্ষেত্রে আরো সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে।

জানা গেছে, এক মাস ধরে গুলশান-বনানী লেকের উন্নয়নকাজ করছে রাজউক। এক সপ্তাহ ধরে সেচের কাজ চলছিল। তিন-চার দিন আগে রাস্তায় ফাটল দেখা দেয়। পরে ২৯ ও ৩১ নম্বর বাড়ির কর্তৃপক্ষ রাজউককে এ বিষয়ে অবহিত করলে তারা সিমেন্ট দিয়ে ফাটল বন্ধের চেষ্টা করে। কিন্তু গতকাল সকালে রাস্তা ধসের পর বাড়ি দুটির সামনে বড় বড় ফাটল দেখা দেয়।

মন্তব্য