kalerkantho

রবিবার । ১১ ডিসেম্বর ২০১৬। ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৩। ১০ রবিউল আউয়াল ১৪৩৮।


মতবিনিময়ে আইনমন্ত্রী

মামলাজট কমাতে হলে মানসিকতার পরিবর্তন চাই

নিজস্ব প্রতিবেদক   

৭ মার্চ, ২০১৬ ০০:০০



মামলাজট কমাতে হলে মানসিকতার পরিবর্তন চাই

আইনমন্ত্রী অ্যাডভোকেট আনিসুল হক বলেছেন, ‘আমাদের দেশে অনেক ফৌজদারি মামলা দায়ের হয় অন্যপক্ষকে হেনস্তা বা হয়রানি করতে। মিথ্যা মামলা দায়েরের জন্য আমাদের আইনে শাস্তির বিধান রয়েছে।

সেই বিধান প্রয়োগ করলে আদালতে মামলাজট অনেকাংশে কমে আসবে। পাশাপাশি মামলা দায়েরের ক্ষেত্রে আমাদের মানসিকতায় পরিবর্তন আনতে হবে। ’

গতকাল রবিবার রাজধানীর সিরডাপ মিলনায়তনে ‘সরকারি আইনসেবার মানোন্নয়ন, সাফল্য, সম্ভাবনা ও অভিজ্ঞতা’ শীর্ষক মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে আইনমন্ত্রী এসব কথা বলেন। আইন মন্ত্রণালয়ের যুগ্ম সচিব (প্রশাসন) বিকাশ কুমার সাহার সভাপতিত্বে আলোচনা সভায় উপস্থিত ছিলেন সুপ্রিম কোর্টের রেজিস্ট্রার জেনারেল সৈয়দ আমিনুল ইসলাম, মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক শাহীন আনাম ও ঢাকা বিশ্বদ্যািলয়ের আইন বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক শাহনাজ হুদা।

আইনমন্ত্রী বলেন, বিনা মূল্যে আইনি সেবা পাওয়া অসচ্ছল নাগরিকের সংবিধানস্বীকৃত অধিকার। সংবিধান অনুসারে সবার জন্য সুবিচার নিশ্চিতে সরকার অঙ্গীকারবদ্ধ। এ জন্য শেখ হাসিনার সরকার ১৯৯৬-০১ সেশনে জাতীয় আইনগত সহায়তা প্রদান সংস্থা প্রতিষ্ঠা করে। বর্তমানে ৬৪টি জেলায় এর কার্যক্রম চলছে। পদ সৃষ্টি করা হয়েছে ১৯২টি। আনিসুল হক বলেন, ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানদের নিয়ে প্রতি জেলায় বিনা মূল্যে আইনগত সহায়তার বিষয়ে বৈঠক করে ধারণা দেওয়া হবে। কারণ একজন ইউপি চেয়ারম্যান বিষয়টি জানলে সাধারণের কাছে খুব তাড়াতাড়ি তথ্য পৌঁছে যাবে।

আইনমন্ত্রী বলেন, ‘অনেক ক্ষেত্রে মামলা করা হয় হয়রানি করার জন্য। শুধু কোর্টে দৌড়ানোর জন্য। জেলের ভয়ে রাখার জন্য। এ রকম চলতে থাকলে মামলা ৩০ লাখ থেকে ৬০ লাখে গিয়ে দাঁড়াবে। ১৫ লাখে নেমে আসবে না। এটা থেকে বের হতে চাই। ’ তিনি বলেন, ‘মিথ্যা সাক্ষ্য দিলে শাস্তি পেতে হবে—বর্তমান সময়ে করা সব আইনে এমন বিধান সংযুক্ত করা হয়েছে। এটাকে আরো কার্যকর করতে চাই। তাহলে হয়রানির জন্য করা মামলা কমে আসবে। ’

মন্ত্রী বলেন, ‘মামলা দায়েরের ক্ষেত্রে আমাদের মানসিকতায় পরিবর্তন আনতে হবে। শুধু মামলা করেই যে বিচার পাওয়া যায় তা নয়; মামলা না করে বিকল্প বিরোধ নিষ্পত্তির বিধান কার্যকরের মাধ্যমেও বিচার পাওয়া যায়। আমাদের মধ্যে এই মাননিসকা তৈরি করতে হবে। ’


মন্তব্য